Ami Bangladeshi

Ami Bangladeshi

Ami Bangladeshi

বিন লাদেনের শেষ কয়েক ঘন্টা...(মার্কিন ভার্সন)

ঘটনার শুরু ৪৮ মাস আগে। স্থান কিউবার মাটিতে লিজ নেয়া মার্কিন ঘাঁটি গুয়ানতানামোয় কোন এক টর্চার সেল। পাকিস্তান হতে ধরে আনা ৯/১১ ঘটনার মূল পরিকল্পনাকারী খালিদ শেখ মোহম্মদের উপর নিয়মিত টর্চারের আরও একটা দিন। টর্চারের পদ্ধতি ওয়াটারবোর্ডিং। কুয়েতি এই শেখের কাছে মার্কিনীদের একটাই চাওয়া, সৌদি শেখ ওসামা বিন লাদেনের সর্বশেষ অবস্থান। দিনের পর দিন নির্মম অত্যাচারের ধারাবাহিকতা শেখ মোহম্মদকে বাধ্য করে ওসামার অবস্থান সম্পর্কে কিছু একটা তথ্য প্রকাশ করতে। এ ব্যাপারে নিজের অজ্ঞতার কথা বার বার প্রকাশ করলেও এ যাত্রায় নতুন একটা তথ্য প্রকাশ করতে বাধ্য হয়। বাইরের পৃথিবীর সাথে ওসামা বিন লাদেনের যোগাযোগের একমাত্র মাধ্যম নাকি কয়েকজন বার্তাবাহক, যাদের অবস্থান পাকিস্তানে। এভাবেই শুরু হয় বিন লাদেন হান্টের নতুন অধ্যায়, এবং শেষ অধ্যায়। তথ্য প্রকাশের ২ বছরের মাথায় এমনি এক বাহকের সন্ধান পায় মার্কিন গোয়েন্দারা।

কেবল পাহাড় পর্বত নয়, বছরের পর পর বছর ধরে পাকিস্তানের প্রতিটা সন্দেহজনক স্থাপনার উপর নজর রাখছিল মার্কিন ইন্টিলিজেন্ট। ওবামা প্রশাসনের অনেকেই বিশ্বাস করত আফগানিস্তানের অনাবাসযোগ্য পাহাড় পর্বতে নয়, বরং পাকিস্তানের জনবহুল কোন শহরে লুকিয়ে আছে বিন লাদেন। বিবেচনায় আনা হয় তার কিডনি রোগ ও তার ডায়ালাইসিস ট্রিটমেন্ট। আফগানিস্তান অথবা পাকিস্তানের জনমানবহীন গুহায় এ চিকিৎসা ছিল অসম্ভব। আকাশে গোয়েন্দা বিমান আর মাটিতে প্রশিক্ষণ প্রাপ্ত গোয়েন্দাদের চোখ এড়িয়ে ওসামা বিন লাদেন আজীবন পালিয়ে থাকতে পারবে মার্কিনিরা কখনোই তা বিশ্বাস করেনি। তাই সামান্যতম লীড পেলে হাউ¨ ডগের মত তার পিছু নিতে কার্পণ্য করেনি। খালিদ শেখ মোহম্মদের লীডকেও তারা তথ্য বিভ্রান্তি হিসাবে উড়িয়ে দেয়নি। মাসের পর মাস আঠার মত লেগে থেকে শেষ পর্য্যন্ত গত আগষ্ট মাসে হদিস পায় তথ্য সূত্রের। সন্দেহের তালিকায় যোগ হয় পাকিস্তানী বাসিন্দা দুই ভাই। বিরামহীন অনুসরণের মাধ্যমে মার্কিন গোয়েন্দাদের নজরে আসে রাজধানী ইসলামাবাদ হতে ৭৫ মাইল দুরের শহর এবোটাবাদের অদ্ভুত একটা বাড়ি। নির্জন এবং ভৌতিক, এভাবেই বর্ণনা করা হয় ইন্টিলিজেন্ট রিপোর্টে। সাধারণের চাইতে অনেক উঁচু দেয়াল (১৮ ফুট), দুই ধাপের প্রতিরক্ষা দেয়াল, ফোন, ইন্টারনেট বিহীন মিলিয়ন ডলারের বাড়িটাকে আখ্যায়িত করা হয় হাই প্রোফাইল ক্রিমিনাল লুকিয়ে রাখার পারফেক্ট স্থাপনা হিসাবে। গোয়েন্দা এনালিস্টের সভায় উপসংহারে আসা হয় কেবল ওসামা বিন লাদেনের পক্ষেই সম্ভব এমন একটা বাড়ি মেইনটেইন করা। ব্যাপারটা প্রেসিডেন্ট ওবামার দৃষ্টিতে আনা হয় গত ফেব্রুয়ারীতে। মার্চের ১৪ তারিখ মার্কিন প্রশাসনের সর্বোচ্চ পর্যায় হতে গ্রীন সিগন্যাল পেয়ে শুরু করা হয় কোর্স অব একশ্যান।

স্যাটেলাইট সার্ভেলেন্স হতে নেয়া বাড়ির ষ্ট্রাকচারকে কপি করে তৈরী করা হয় একই ধাচের একটা বাড়ি এবং এখানেই ট্রেনিং নিতে শুরু করে সেনাবাহিনীর সবচাইতে দক্ষ ও নির্ভরযোগ্য গ্রুপ নেভী সীল। নেভী সীলের অতীত অভিজ্ঞতা খুব একটা সুখকর ছিলনা তাই প্রেসিডেন্ট ওবামা শেষ মুহূর্ত পর্যন্ত অপেক্ষা করেন ওসামার অবস্থান নিশ্চিত হওয়ার জন্যে। ১৯৮০ সালের ইরান হতে জিম্মি উদ্ধার মিশন ব্যর্থ হওয়ার খেসারত দিতে হয় প্রেসিডেন্ট কার্টারকে। পরবর্তীতে এই ব্যর্থতা প্রকট হয় আমেরিকার সোমালিয়া মিশনে। ওয়ার লর্ড ফারাহ আইদিদকে ধরতে গিয়ে নিজেরাই ফেসে যায় মোগাদিসুর অলিগলিতে। এক কথায় পালিয়ে আসতে বাধ্য হয় শক্তিধর মার্কিন সেনাবাহিনী। এ যাত্রায় ব্যর্থ হওয়ার ফল কি হতে পারে প্রেসিডেন্ট ওবামার ভাল করেই জানা ছিল। জন্মস্থান ও জাতীয়তা প্রশ্নে সন্দেহের পাশাপাশি যোগ্যতা নিয়ে প্রতিপক্ষ রিপাবলিকানদের বহুমুখী আক্রমণের ফলে এমনিতেই তিনি ছিলেন কোণঠাসা। এ সময় ওসামা নিধনে ব্যর্থ অভিযান তার পুনঃ নির্বাচনের সম্ভাবনায় শেষ পেরেক এটে দিত। প্রেসিডেন্ট পিছিয়ে যাননি। নিশ্চিত হওয়ার পর গত শুক্রবার রাত ৮টা ২০ মিনিটে অনুমতি দেন পাকিস্তান অভিযানের।

রোববার দুপুর ২টায় ফাইনাল রিভিউর পর অভিযান শুরু হয় বিকেল ৩টায়। ২টা হেলিকপ্টার সহ দুই ডজন কমান্ডো অংশ নেয় এ অভিযানে। ৪০ মিনিট স্থায়ী অপারেশনে মার্কিন নেভী সীলদের মুখোমুখী হতে হয় দুই স্তরের বাধা। প্রথম বাধা আসে নীচ তলার রক্ষীদের কাছ থেকে। সর্বশেষ স্ত্রী নিয়ে বিন লাদেন বাস করতেন দুই তলায়। নীচতলার বাধা প্রতিহত হওয়ার পর উপর হতে শুরু হয় দ্বিতীয় দফা আক্রমন এবং এ আক্রমনে অংশ নেন খোদ বিন লাদেন ও তার ছেলে। নেভী সীলদের টিম লিডার ওসামাকে সারেন্ডারের আহ্বান জানালে পালটা আক্রমন আরও জোরদার হয়। বাধা দূর হওয়ার পর সাঁড়াশি আক্রমনে কমান্ডোরা উঠে যায় উপর তলায়। শয়নকক্ষে ওসামাকে আবিস্কার করা হয়। স্ত্রীকে ঢাল হিসাবে ব্যবহার করে নিজকে আড়াল করার চেষ্টা করলে কমান্ডোরা উভয়ের উপর গুলি চালায়। প্রথমে গুলি করা হয় বিন লাদেনের বক্ষে, দ্বিতীয়টা কপালে যা মস্তক সহ বেরিয়ে আসে পিছন হতে। তাৎক্ষনিক মৃত্যু হয় ওসামা বিন লাদেনের। একই সাথে নিহত হয় তার ৩য় স্ত্রী ও এক সন্তান। কমান্ডোরা থাবা মেরে খুলে নেয় কম্পিউটারের অংশ যেখানে রক্ষিত ছিল আল-কায়েদা নেটওয়ার্কের গুরত্বপূর্ণ তথ্যাবলী। নিহত ওসমার লাশ ঝড়ো গতিতে উঠানো হয়ে অপেক্ষমান হেলিকপ্টারে এবং কমান্ডো গ্রুপ ভোজবাজির মত মিলিয়ে যায় দিগন্তরেখায়। ল্যান্ড করার সময় উড্ডয়ন ক্ষমতায় ত্রুটি দেখা দেওয়ায় কমান্ডোরা উড়িয়ে দেয় একটা চপার।

Photobucket

প্রযুক্তির সহায়তায় ৪০ মিনিটের এ অভিযান সরাসরি প্রচার করা হয় হোয়াইট হাউজে জমায়েত ওবামা প্রশাসনের গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিদের জন্যে (উপরের ছবি)। ‘জোরানামো‘ ’জোরানামো‘...‘ই কে আই এ'..., চীৎকার করে উঠে কমান্ডো নেতা। এটাই ছিল তাদের সংকেত যার অর্থ ’এনিমি কিলড ইন একশ্যান‘। তাৎক্ষনিক ডিএনএর মাধ্যমে নিশ্চিত করা হয় ওবামা বিন লাদেনের মৃত্যু। কেবল তারপর প্রেসিডেন্ট ওবামা মুখোমুখি হন আমেরিকান জনগণের এবং ঘোষনা দেন বহুপ্রতীক্ষিত মৃত্যুর।

ইসলামী বিধান মতে বিন লাদেনকে গোসল করান আমেরিকান যুদ্ধ জাহাজ ’কার্ল ভিনসেন্টে’ কর্মরত জনৈক মুসলমান নৌ সেনা। তার জানাজা হয়ছিল কিনা তা নিশ্চিত করা হয়নি। সবশেষে সাদা কাপড়ের কফিন পরিয়ে এ্যারাবিয়ান সাগরের উত্তাল ঢেউ রাশিতে ভাসিয়ে দেয়া হয় এক কালের শক্তিমান পুরুষ ওসামাহ বিন মোহাম্মদ বিন আওয়াদ বিন লাদেনকে।

তথ্যসূত্রঃ বিভিন্ন প্রচার মাধ্যম হতে সংকলিত

Comments

জয়

খুব ভাল

বিন লাদেনের মৃত্যু 'নিশ্চিত' করেছে আল-কায়েদা

ওয়াশিংটন, মে ০৬ (বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম/রয়টার্স)- আল-কায়েদা ওসামা বিন লাদেনের মৃত্যু নিশ্চিত করেছে বলে জানিয়েছে আন্তর্জাতিক পর্যবেক্ষক সংস্থা এসআইটিই।

ইসলামী চরমপন্থী সংগঠনগুলোর অনলাইন কার্যক্রম পর্যবেক্ষণকারী মার্কিন সংস্থা সার্চ ফর ইন্টারন্যাশনাল টেরোরিস্ট এনটিটিজ (এসআইটিই) বলেছে, শুক্রবার জিহাদিস্ট ফোরামে আল-কায়েদার কাছ থেকে প্রকাশিত এক বিবৃতিতে সংগঠনের প্রধান বিন লাদেনের মৃত্যুর খবর নিশ্চিত করা হয়েছে।

বিবৃতিতে বলা হয়, বিন লাদেনের রক্ত 'বৃথা' যাবে না। এ মৃত্যু যুক্তরাষ্ট্রের জন্য 'অভিশাপ' হবে। দেশ ও বিদেশে আমেরিকান ও তাদের চররা ভয়ানক পরিণতির মুখে পড়বে।

বিবৃতিতে যুক্তরাষ্ট্র ও তার মিত্রদের ওপর হামলা অব্যাহত রাখারও ঘোষণা দেয় সংগঠনটি।

"তাদের সন্তুষ্টি বেদনায় রূপ নেবে। অশ্র"তে মিশবে তাদের রক্ত।

আল-কায়েদা বলেছে,"শেখ ওসামা যেখানে শহীদ হয়েছেন সেই পাকিস্তানের জনগণের প্রতি রুখে দাঁড়ানোর এবং এ লজ্জা মোচনের আহ্বান জানাচ্ছি।"

সোমবার ভোররাতে পাকিস্তানের অ্যাবোটাবাদের একটি বাড়িতে অভিযান চালিয়ে বিন লাদেনকে হত্যা করে মার্কিন বাহিনী।

সকালে টেলিভিশন ভাষণে বিষয়টি বিশ্বকে জানান যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা।

এদিকে পাকিস্তানের অনুমতি না নিয়ে সেখানে মার্কিন বাহিনীর অভিযান ও বিন লাদেনকে হত্যার প্রতিবাদে শুক্রবার জুমার নামাজের পর বেশ কয়েকটি শহরে বিক্ষোভ হয়।

অ্যাবোটাবাদে সমবেত হাজারখানেক বিক্ষোভকারী টায়ারে আগুন জ্বালিয়ে সড়ক অবরোধ করে। এ সময় তারা স্লোগান দেয়, 'পতন হোক, যুক্তরাষ্ট্রের পতন হোক!', 'সন্ত্রাসী, সন্ত্রাসী, যুক্তরাষ্ট্র সন্ত্রাসী'
এদিন বেলুচিস্তান প্রদেশের রাজধানী কোয়েটায়ও মার্কিনবিরোধী বিক্ষোভ হয়েছে।

 লাদেনকে যেমন দেখেছি...

হামিদ মির তিন-তিনবার সাক্ষাৎকার নিয়েছেন ওসামা বিন লাদেনের। বিশ্বের তিনিই একমাত্র সাংবাদিক যিনি ৯/১১-এর পরে লাদেনের সাক্ষাৎকার নিয়েছিলেন। একাধারে তিনি লাদেনের জীবনীকারও। হামিদ মির পাকিস্তানের জিয়ো টিভিতে কর্মরত।

‘ধনী বাবার ছেলে আমি। চাইলে অন্যান্য ধনাঢ্য সৌদি নাগরিকের মতো আমিও ইউরোপ কিংবা আমেরিকায় বিলাসী জীবন কাটাতে পারতাম। আমি তা করিনি। হাতে তুলে নিয়েছি অস্ত্র, চলে এসেছি আফগানিস্তানের পাহাড়ে। শুধু কি ব্যক্তিগত লাভের আশায়, যেখানে আমার প্রতিটি মুহূর্ত কাটছে মৃত্যুকে সঙ্গী করে? না, মুসলমানদের ওপর যারা আঘাত করে চলেছে, তাদের বিরুদ্ধে জিহাদ পরিচালনার ধর্মীয় দায়িত্ব থেকেই শুধু আমি এ পথে এসেছি। এই দায়িত্ব পালন করতে গিয়ে মৃত্যু হলেও আমি তা পরোয়া করি না। আমি এবং আমার মতো আরও অনেকের মৃত্যুই একদিন লাখ লাখ মুসলিমকে তাদের উদাসীনতা সম্পর্কে সচেতন করে তুলবে।’

১৯৯৭ সালের মার্চের এক সকালে আল-কায়েদা নেতা ওসামা বিন লাদেন এ কথাগুলোই বলেছিলেন আমাকে। আফগানিস্তানের তোরাবোরা পাহাড়ের একটি গুহায় বসে প্রথম পাকিস্তানি সাংবাদিক হিসেবে আমি তাঁর সাক্ষাৎকার নিয়েছিলাম। ১৯৯৮ সালের মে মাসে কান্দাহার বিমানবন্দরের কাছে একটি গুপ্ত স্থানে দ্বিতীয়বারের মতো লাদেনের সাক্ষাৎকার নেওয়ার সুযোগ আমার হয়েছিল। কয়েক ঘণ্টার দীর্ঘ সেই সাক্ষাৎকারে তিনি তাঁর মৃত্যুর সম্ভাব্য হুমকিগুলো বারবার আমাকে বলেছিলেন। লাদেন বলেছিলেন, ‘হ্যাঁ, আমি জানি, আমার শত্রুরা অনেক বেশি ক্ষমতাধর। তবে আমি আপনাকে নিশ্চিত করে বলছি, তারা আমাকে হত্যা করতে পারবে, কিন্তু জীবিত ধরতে পারবে না।’

যুক্তরাষ্ট্রে নাইন-ইলেভেনের হামলার কয়েক ঘণ্টা পর তিনি যে বার্তা দিয়েছিলেন, তা আমি জানি। হামলার সঙ্গে জড়িত সবার প্রশংসা করেছিলেন তিনি, কিন্তু হামলার দায় স্বীকার করেননি। বিষয়টি আমিও বুঝে উঠতে পারিনি। তাই আবার তাঁর সঙ্গে দেখা করতে উদ্যোগী হই। ২০০১ সালের নভেম্বরে মার্কিন জঙ্গি বিমান যখন আল-কায়েদা ও তালেবানের লক্ষ্যবস্তুতে সমানে হামলা চালিয়ে যাচ্ছে, তখন জীবনের ঝুঁকি নিয়ে আমি আফগানিস্তানে ঢুকি। আমার ভাগ্য যথেষ্ট ভালো ছিল। ৮ নভেম্বর সকালে তাঁর সঙ্গে তৃতীয়বারের মতো সাক্ষাতের সুযোগ পেলাম। নাইন-ইলেভেনের ঘটনার পর আমিই প্রথম এবং একমাত্র সাংবাদিক, যে লাদেনের সাক্ষাৎকার নিতে পেরেছে।
কাবুলে ও কাবুলের বাইরে তখন সমানে বোমা হামলা চলছে। হাসিমুখেই তিনি আমাকে স্বাগত জানালেন। লাদেন বললেন, ‘শেষবার আমি আপনাকে বলেছিলাম, শত্রুরা আমাকে হত্যা করতে পারবে, কিন্তু জীবিত ধরতে পারবে না।’ সাক্ষাৎকার পর্ব শেষ করে তিনি আরও একবার বললেন, ‘হামিদ মির, মনে রাখবেন, তারা আমাকে হত্যা করতে পারবে, কিন্তু জীবিত আটক করতে পারবে না। যদি তারা সেটা পারে, কেবল তখনই তারা নিজেদের সফল বলে দাবি করতে পারে। আর তারা যদি কেবল আমার মৃতদেহটা হাতে পায়, তাহলে সেটা হবে তাদের পরাজয়। আমার মৃত্যুর পরও আমেরিকানদের বিরুদ্ধে যুদ্ধ শেষ হবে না। নিজের বন্দুকে শেষ গুলিটি অবশিষ্ট থাকা পর্যন্ত আমি লড়ে যাব। শহীদ হওয়াই আমার সবচেয়ে বড় স্বপ্ন। আমি শহীদ হলে আরও অনেক ওসামা বিন লাদেন সৃষ্টি হবে।’

আমার কাছে প্রতিবার বলা সেই কথা রেখেছেন লাদেন। তিনি আত্মসমর্পণ করেননি। মার্কিন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা গত রোববার ঘোষণা দিয়েছেন, লাদেনকে হত্যা করা হয়েছে। আমেরিকানদের কাছে এটি একটি বড় খবর। কিন্তু লাদেনের সমর্থকেরা অন্তত খুশি যে, তাঁকে জীবিত ধরতে পারেনি আমেরিকা। জীবিত ধরতে পারলে তাঁকেও হয়তো ইরাকের সাবেক প্রেসিডেন্ট সাদ্দাম হোসেনের মতো অসম্মান করা হতো। আমার নিজের কাছে এটা একটা অবাক করার মতো ব্যাপার—বিশ্বের সবচেয়ে ‘কাঙ্ক্ষিত সন্ত্রাসী’ ব্যক্তিটি পাকিস্তানের অ্যাবোটাবাদ শহরে লুকিয়ে ছিলেন! যেখানে অবস্থিত পাকিস্তানের মিলিটারি একাডেমি। জানা গেছে, এই অভিযান সম্পর্কে পাকিস্তানকে আগেভাগে কিছুই জানায়নি যুক্তরাষ্ট্র। আফগানিস্তানের পূর্বাঞ্চল থেকে দুটি মার্কিন চিনুক হেলিকপ্টার পাকিস্তানি ভূখণ্ডে ঢোকে। পাকিস্তানি কর্মকর্তারা দাবি করেছেন, মার্কিনরা তাঁদের (পাকিস্তানের) রাডার-ব্যবস্থা অচল করে দেওয়ায় তাঁরা কিছুই জানতে পারেননি।

তবে সরকারের শীর্ষ পর্যায়ের দায়িত্বশীল সূত্র নিশ্চিত করেছে, গত বছরের মে মাসে লাদেন-সম্পর্কিত গুরুত্বপূর্ণ তথ্য মার্কিন গোয়েন্দা সংস্থা সিআইএকে জানায় পাকিস্তান। তক্ষশীলা ও অ্যাবোটাবাদ এলাকা থেকে কিছু আরব নাগরিকের একটি ফোনালাপে আড়ি পাতে পাকিস্তানের নিরাপত্তা বাহিনী। ওই বছরের আগস্ট মাসে সিআইএকে জানানো হয়, তক্ষশীলা ও অ্যাবোটাবাদ এলাকার মধ্যে কোনো গুরুত্বপূর্ণ আল-কায়েদা নেতা থাকতে পারেন। সম্ভবত, ওই ফোনটা করেছিলেন লাদেন এবং ওটাই হয়তো তাঁর সবচেয়ে বড় ভুল। আমার জানামতে, নাইন-ইলেভেনের পর কমপক্ষে চারবার তিনি মৃত্যুর কবল থেকে বেঁচে যান, কিন্তু পারলেন না পঞ্চমবার। শুধু নিজের বুদ্ধির জোরেই লাদেন কয়েকবার দুনিয়ার সবচেয়ে অত্যাধুনিক উপগ্রহব্যবস্থা এবং ভয়ংকর ক্ষেপণাস্ত্রকে ফাঁকি দিতে পেরেছেন অথবা কোনো কোনোবার শুধু বরাত-জোরে দু-এক মিনিটের হেরফেরে রক্ষা পান।

তালেবান ও আল-কায়েদার অবস্থান লক্ষ্য করে মার্কিন বিমান হামলা শুরু হয় ২০০১ সালের ৭ অক্টোবর। এরপর ৮ নভেম্বর কাবুলে লাদেনের অবস্থান চিহ্নিত করে ফেলে মার্কিন বাহিনী। তখন তাঁর সঙ্গে ছিলেন আল-কায়েদার আরেক নেতা আইমান আল জাওয়াহিরি। আল-কায়েদার একটি বৈঠকে যোগ দিতে তাঁরা জালালাবাদ থেকে কাবুলে যান। ওই দিনই কাবুলে লাদেনের তৃতীয় সাক্ষাৎকার নিই আমি। আমার ক্যামেরায় লাদেনের কোনো ছবি তুলতে দেওয়া হয়নি। তবে লাদেনের ছেলে আবদুল রেহমান তাঁর ক্যামেরায় লাদেন ও জাওয়াহিরির সঙ্গে আমার ছবি তোলেন এবং সেই ছবির ফিল্ম আমাকে দেন। ওই সময় অনেক গোপনীয়তা রক্ষা করা সত্ত্বেও এক নারী গোয়েন্দা কর্মী কাবুলে গুরুত্বপূর্ণ কয়েকজন আরব নাগরিকের উপস্থিতির বিষয়টি ঠিকই লক্ষ করেন।
একটা ঘটনা মনে পড়ছে। সাক্ষাৎকার নেওয়া শেষ। লাদেন ও জাওয়াহিরির সঙ্গে বসে চা খাচ্ছি। তখন লাদেন আমাকে জানান, এই নিয়ে তৃতীয়বার তিনি আমাকে সাক্ষাৎকার দিলেন। তিনি বলেন, প্রথম সাক্ষাৎকারটিতে তাঁর বক্তব্যের অনুবাদে আমি কিছু ভুল করেছিলাম। তবে তথ্য বিকৃত করা হয়েছে এমন কিছু তাঁর নজরে পড়েনি। এ সময় তিনি বলেন, ‘আমি আশা করছি, এবার আর আপনি কোনো ভুল করবেন না।’ যেখানে বসে আমি তাঁর সাক্ষাৎকার নিয়েছিলাম, সেখানে উপস্থিত ছিলেন আরও প্রায় ২০ জন আল-কায়েদা নেতা। তাঁরাও সবাই চা খাচ্ছিলেন। তাঁদের কথাবার্তা থেকে আমি আন্দাজ করতে পারছিলাম, মার্কিন নেতৃত্বাধীন বাহিনী কাবুলের দিকে এগিয়ে আসছে। মার্কিন বাহিনী পাকিস্তানের প্রেসিডেন্ট জেনারেল পারভেজ মোশাররফের সহযোগিতা পাচ্ছে। তিনি মার্কিন বাহিনীকে পাকিস্তানের সেনাঘাঁটি ব্যবহার করতে দিয়েছেন।

হঠাৎ করে এক আরব আল-কায়েদা যোদ্ধা ওই কক্ষে ঢুকে পড়লেন। তিনি তাঁর নেতাদের জানান, আমরা যেখানে বসে আছি, তার মাত্র কয়েক গজ দূর থেকে বোরকা পরিহিত এক নারীকে আটক করা হয়েছে। ভিক্ষা করার ছলে ওই নারী গোয়েন্দাগিরি করছিলেন। ভবনের বাইরে নিয়োজিত আল-কায়েদার নিরাপত্তারক্ষীরা তাঁকে ভিক্ষা দিতে চাইলেও সেদিকে তাঁর মন ছিল না। তখন নিরাপত্তারক্ষীরা তাঁর দিকে নজর রাখেন। এর মধ্যে তাঁরা দেখতে পান, ওই নারী স্যাটেলাইট টেলিফোনে কারও সঙ্গে কথা বলছেন। তখনই হাতেনাতে তাঁকে ধরে ফেলা হয়। এসব কথাবার্তা তাঁরা আরবি ভাষাতেই বলছিলেন। কিন্তু এর সারাংশ আমি ঠিকই বুঝতে পারি। তখন মুুহাম্মাদ নামের এক সহযোগীকে লাদেন নির্দেশ দেন, তাঁর মেহমানের (আমি) যেন কোনো ক্ষতি না হয়। মুহাম্মাদ আমাকে জানান, তিনি আমাকে জালালাবাদ পৌঁছে দিতে চান। তখন আমি তড়িঘড়ি করে লাদেনকে বিদায় জানিয়ে মুহাম্মাদের সঙ্গে একটি গাড়িতে উঠে পড়লাম। কাবুলের বাইরে কিছু তালেবান যোদ্ধা আমাদের পাকড়াও করল, কারণ আমার দাড়ি নেই। আবার আমার সঙ্গে ক্যামেরাও আছে। মুহাম্মাদ একবারের জন্যও তালেবান যোদ্ধাদের কাছে বলেননি যে, তিনি আল-কায়েদার লোক। বরং তিনি তাঁদের বললেন, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী মোল্লা আবদুল রাজি আসেদের হয়ে কাজ করছেন তিনি। তখন তাঁরা স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর কাছ থেকে বিষয়টি নিশ্চিত হন। অবশেষে তিন ঘণ্টা পর আমাদের ছেড়ে দেওয়া হয়।

এলাহাবাদ পৌঁছাতে পৌঁছাতে রাত হয়ে গেল। মুহাম্মাদ আমাকে বিশাল একটা বাড়িতে নামিয়ে দিয়ে কোথায় যেন হারিয়ে গেলেন। ঘণ্টা দুয়েক বাদে ফিরে এলেন। সঙ্গে আনলেন চমকে ওঠার মতো খবর। তিনি বললেন, কাবুলের যে জায়গায় আমি তাঁর ‘শেখ’-এর (লাদেন) সঙ্গে দেখা করেছি, আমরা চলে আসার মাত্র ১৫ মিনিট পর সেখানে বোমা হামলা হয়েছে। ‘শেখ’ এবং তাঁর অন্য সহযোগীরাও সৌভাগ্যক্রমে আগেভাগেই সরে পড়েছিলেন। ফলে কেউ হতাহত হননি। মুহাম্মাদ মুচকি হেসে আমাকে বললেন, ‘ভাইজান, আমাদের সঙ্গে শহীদ হওয়ার সুযোগটা আপনার হাতছাড়া হয়ে গেল!’ সাক্ষাৎকারটি ঠিক কোন জায়গায় নিয়েছিলাম, তা নির্দিষ্ট করে বলতে পারব না। অবশ্য মুহাম্মাদ আমাকে বলেছিলেন, জায়গাটা ছিল কাবুলের বীর আকবার খান এলাকা। সেখানেই আমি মোস্ট ওয়ান্টেড এই লোকটির সাক্ষাৎকার নিয়েছিলাম। রাতটা জালালাবাদে কাটালাম। আমার আশ্রয়স্থলের ডান ও বাঁ পাশে মার্কিন বাহিনী অবিরাম বোমা ফেলছিল। কপালগুণে বেঁচে গেলাম। পরদিন সকালবেলা জালালাবাদ থেকে মুহাম্মাদ আমাকে বিদায় জানালেন এবং আমি সড়কপথে পাকিস্তানের দিকে রওনা হলাম। ২০০৪ সালে আফগানিস্তানের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের সময় সেখানে খবর সংগ্রহের জন্য গিয়েছিলাম। সেবার গিয়ে আবার মুহাম্মাদের সঙ্গে দেখা হলো। পূর্ব আফগানিস্তানের তোরাবোরা পর্বতে মার্কিন বিমানবাহিনী কার্পেট বোমা ফেলার পরও কীভাবে তিনি এবং তাঁর ‘শেখ’ বেঁচে গিয়েছিলেন, সব খুলে বললেন।

২০০১ সালের ডিসেম্বর মাসের তৃতীয় সপ্তাহে বিন লাদেন এবং তাঁর সাথিদের মার্কিন বাহিনী স্থানীয় নেতা হাজি জহির, হাজি জামান ও হজরত আলীর সহায়তায় চার দিক থেকে ঘিরে ফেলে। তবে তাঁরা সুচতুর কৌশলে সেই বলয় ভেদ করে পালিয়ে যেতে সক্ষম হন। আল-কায়েদা মাঝেমধ্যে এমন সব যুদ্ধকৌশলের আশ্রয় নেয়, যার সঙ্গে পশ্চিমা সিনেমার মিল রয়েছে। তোরাবোরা থেকে বিপুলসংখ্যক আল-কায়েদা যোদ্ধা বেরিয়ে এসে পাকিস্তানের কুররম উপজাতীয় এলাকার দিকে ছুটতে থাকে। কিন্তু বিন লাদেন ছোট একদল যোদ্ধা নিয়ে ঠিক উল্টো দিকে রওনা হন। ওই দলে মুহাম্মাদ নিজেও ছিলেন। চেচেন ও সৌদি বংশোদ্ভূত কিছু বন্দুকধারী এ সময় তাঁদের ‘কাভার’ দিতে থাকে। সারা রাত পায়ে হেঁটে তাঁরা পাকতিয়ায় নিরাপদ আশ্রয়ে পৌঁছান। লুৎফুল্লাহ মশাল নামের একজন শীর্ষস্থানীয় নিরাপত্তা কর্মকর্তা অবশ্য আমাকে ওই সময় বলেছিলেন, ২০০১ সালের ডিসেম্বরে বিন লাদেন তোরাবোরা থেকে পাকতিয়ায় পালিয়ে গিয়েছিলেন। মশাল তাঁকে গোপনে অনুসরণ করেছিলেন। মশালের দাবি, বিন লাদেন পাকতিয়া থেকে উত্তর ওয়াজিরিস্তানে চলে আসেন। সেখানকার শাওয়াল এলাকায় কিছুদিন অবস্থান করার পর তিনি আফগানিস্তানের পূর্বাঞ্চলীয় খোস্ত প্রদেশে চলে যান। লুৎফুল্লাহ মশাল বর্তমানে প্রেসিডেন্ট হামিদ কারজাইয়ের সঙ্গে কাজ করছেন। মশালের দাবি, আফগানিস্তানে পদাতিক সেনা নামানোর জন্য তখনো মার্কিন বাহিনী তৈরি হয়নি; শুধু এ কারণে সেদিন লাদেন ও তাঁর সাথিরা পালিয়ে যেতে সক্ষম হন। তিনি বলেন, ওই সময় মার্কিন বাহিনী উত্তরাঞ্চলীয় জোটের কমান্ডার হজরত আলীর ওপর বেশি নির্ভরশীল হয়ে পড়েছিল। তবে শেষ পর্যন্ত হজরত আলী আল-কায়েদার কাছ থেকে মোটা অর্থ নিয়ে মার্কিন বাহিনীর সঙ্গে বিশ্বাসঘাতকতা করেন এবং লাদেনকে নিরাপদে পালিয়ে যাওয়ার সুযোগ করে দেন।
২০০২ সালের পুরো সময়টা লাদেন ও তাঁর সাথিরা এখান থেকে সেখানে পালিয়ে বেড়িয়েছেন। একের পর এক তাঁরা আস্তানা বদল করছিলেন। নিজেদের বাঁচানোই তাঁদের কাছে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ছিল। এ কারণে এ সময়কালে তাঁরা কোনো লড়াইয়ে জড়াননি।

যুক্তরাষ্ট্র ইরাকে হামলা চালানোর পর ২০০৩ সালের এপ্রিলে আবারও প্রেক্ষাপটে নিজের উপস্থিতির জানান দেন বিন লাদেন। কুনার প্রদেশের পেখ উপত্যকায় তিনি একটি বৈঠক ডাকেন। সেখানে দেওয়া জ্বালাময়ী ভাষণে তিনি ইরাকে মার্কিন বাহিনীকে প্রতিহত করার ঘোষণা দেন। ওই ভাষণে তিনি সমর্থকদের উদ্দেশে বলেন, ‘আফগানিস্তানে মার্কিন বাহিনী আমাদের পাকড়াও করার আগেই ইরাকে তাদের পাকড়াও করতে হবে।’ সেখানে তিনি ঘোষণা করেন, ইরাকের প্রতিরোধ বাহিনীর প্রধান সংগঠক হবেন সাঈফ আল আদিল। তিনি আদিলকে ইরানে আত্মগোপনে থাকা আল-কায়েদা নেতা আবু মুসাব আল জারকাবির সঙ্গে দেখা করার নির্দেশ দেন। এর পর থেকে তিনি কুনার ও পাকতিয়ায় ছোট ছোট গোপন সমাবেশে বক্তব্য দিতে থাকেন।
এ সময়কালে কুনার এলাকায় লাদেনের এক পুত্রবধূ সন্তান জন্ম দেওয়ার সময় মারা যান। তাঁর দাফন অনুষ্ঠানে বহু লোক শরিক হয়েছিল। স্থানীয় আফগান বাসিন্দারা তাঁর মৃত্যুর খবর পেয়ে সেখানে এসেছিল। তাদের মাধ্যমে কথাটা মার্কিন সেনাদের কানেও পৌঁছায়। তাৎক্ষণিকভাবে তারা কুনারে অভিযান চালায়। কিন্তু তারা পেচ উপত্যকায় বোমা ফেলা শুরু করার আগেই বিন লাদেন দক্ষিণাঞ্চলে পালিয়ে যান।

২০০৪ সালে আফগানিস্তানের দক্ষিণাঞ্চলীয় হেলমান্দ প্রদেশে অবস্থানকালে লাদেন বুঝতে পারেন, ব্রিটিশ বাহিনী তাঁকে ঘিরে ফেলেছে। বিন লাদেন সেখানে অনুগতদের বানানো তিনটি নিরাপত্তাব্যূহের মধ্যে আশ্রয় নিয়েছিলেন। সম্প্রতি কাবুলে আফগানিস্তানের একজন শীর্ষস্থানীয় কূটনীতিক আমাকে জানিয়েছেন, ব্রিটিশ সেনাবাহিনী লাদেনকে পাকড়াও করার খুব কাছাকাছি পর্যায়ে চলে গিয়েছিল। কিন্তু বিশ্বের সবচেয়ে সুসংগঠিত সেনাবাহিনীকেও ধোঁকা দিয়ে সেবারও তিনি পালিয়ে যেতে সক্ষম হন। হেলমান্দের কয়েকজন তালেবান সদস্যের দেওয়া তথ্যমতে, পাঁচ কিলোমিটারব্যাপী ওই এলাকায় ব্রিটিশ বাহিনী লাদেনের দুটি নিরাপত্তাব্যূহ ভেঙে ফেলেছিল। দিনের বেলা ব্রিটিশ বাহিনীর সঙ্গে লাদেনের অনুগত যোদ্ধাদের ‘ওয়ান-টু-ওয়ান’ লড়াই হতে যাচ্ছিল। তবে রাত নেমে পড়ায় নিকষ অন্ধকার আল-কায়েদার সামনে মুক্তির দূত হিসেবে হাজির হয়। বিন লাদেন নিজে ফ্রন্ট লাইনে লড়াই করতে চেয়েছিলেন, কিন্তু তাঁর সাথিরা তাঁকে নিবৃত্ত করেন। এ নিয়ে তাঁদের সঙ্গে লাদেনের উত্তপ্ত বাক্যবিনিময়ও হয়। লাদেন রেগে গেলেও আবু হামজা আল জাজিরি তাঁকে পালানোর ব্যাপারে রাজি করান। প্রতিপক্ষকে ধোঁকা দিতে তাঁরা দুটি ভিন্ন দিকে মুখ করে অসংখ্য টাইমার লাগানো রকেট বসিয়ে রেখেছিলেন। তাঁরা তৃতীয় ব্যূহের মাধ্যমে প্রতিপক্ষের চক্রব্যূহ ভেঙে ফেলার সিদ্ধান্ত নেন। একটি গ্রুপ লাদেনকে কভার দেয়। ওই ঘটনায় লাদেনের সহযোগীদের বেশির ভাগই মারা যায়। তবে শেষ পর্যন্ত লাদেন পালিয়ে যেতে সক্ষম হন।

আবু হামজা আল জাজিরি এবং অন্য কিছু যোদ্ধার সহায়তায় লাদেন পালাতে সক্ষম হন। ধরা পড়ার মতো পরিস্থিতি এলে দেহরক্ষীরা যেন তাঁকে গুলি করে হত্যা করে—লাদেন এমন নির্দেশ দিয়েছিলেন বলে যে খবর শোনা যায়, এসব সূত্র তার সত্যতা অস্বীকার করেছিল। আল-কায়েদা সূত্রের দাবি, লাদেন আত্মহত্যায় বিশ্বাসী ছিলেন না। এর চেয়ে শেষ বুলেট ও রক্তবিন্দু পর্যন্ত লড়াই চালানো তাঁর কাছে অনেক সহজ ছিল। ওইবার শত্রুর হাত থেকে বেরিয়ে যাওয়ার পর তিনি অনেক বেশি সতর্ক হন। তিনি আফগানিস্তানে যাওয়া বন্ধ করে পাকিস্তানের উপজাতীয় এলাকায় আত্মগোপন করেন। নাইন-ইলেভেনের পর তাঁর বিরাট পরিবারের সদস্যরা ছড়িয়ে-ছিটিয়ে পড়েন। তাঁর বেশ কয়েকজন ছেলে-মেয়ে ইরানে গিয়ে বসবাস শুরু করেন। এক ছেলে কিছুদিন করাচিতে বাস করছিলেন বলে ধারণা করা হচ্ছিল। তবে তাঁকে যে অ্যাবোটাবাদ থেকে আটক করা হবে, তা কেউ আশা করেনি।
অ্যাবোটাবাদে স্ত্রী, এক ছেলে ও এক মেয়ে নিয়ে বিন লাদেন বাস করছিলেন। আমেরিকান সেনারা তাঁর আস্তানায় হামলা চালানোর পর তাৎক্ষণিকভাবে তিনি পাল্টা গুলিবর্ষণ শুরু করেন। এ সময় তাঁর স্ত্রীর পায়ে গুলি লাগে। আহত স্ত্রীর ভাষ্যমতে, ওসামা দৌড়ে বাড়ির ছাদে উঠে যান এবং রক্ষীদের সঙ্গে তিনিও গুলি চালাতে থাকেন। লাদেনের ১০ বছর বয়সী মেয়ে সাফিয়া জানিয়েছে, মার্কিন সেনারা বাড়ির মধ্যে ঢুকে তার বাবার মৃতদেহ নিয়ে গেছে। এটা সে দেখেছে। সাফিয়া আরও বলেছে, ‘মার্কিন সেনারা বাবার লাশ সিঁড়ি দিয়ে টেনেহিঁচড়ে নিয়ে যাচ্ছিল।’
ওসামা বিন লাদেন এখন মৃত, কিন্তু আল-কায়েদা ও তার মিত্ররা মরেনি। লাদেন সব সময়ই মার্কিন নীতির ভুলত্রুটিকে অস্ত্র হিসেবে ব্যবহার করেছেন। মার্কিনবিদ্বেষ ছিল তাঁর মূল শক্তি, ইসলাম কখনোই নয়। বিন লাদেনের মৃত্যু যুক্তরাষ্ট্রের জন্য একটি বড় খবর হতে পারে; কিন্তু আমেরিকার বাইরের বহু মানুষ সেই সব মার্কিন নীতির পরিবর্তন চায়, যা কিনা আরও অনেক লাদেনের জন্ম দিতে পারে।

আমেরিকা আফগানিস্তানে এসেছিল লাদেনের খোঁজে। সন্দেহ নেই বিন লাদেন বহু নিরপরাধ মানুষকে হত্যা করেছিলেন; কিন্তু লাদেনকে খুঁজে বের করার নামে মার্কিন বাহিনী ড্রোন হামলা চালিয়ে যেসব নিরপরাধ মানুষকে হত্যা করছে, তা-ও বৈধ বলে বিবেচিত হতে পারে না। লাদেন ও আমেরিকা উভয়ই পাকিস্তানের সার্বভৌমত্ব লঙ্ঘন করেছে। এটা এখনই বন্ধ হতে হবে। বিন লাদেনের মৃত্যুর পরও আমেরিকা যদি আফগানিস্তান ছেড়ে না যায়, তাহলে এ যুদ্ধ খুব শিগগির থামবে না। বিশ্ব আগের মতোই অনিরাপদ থেকে যাবে।
http://www.prothom-alo.com/detail/date/2011-05-03/news/151281

Post new comment

  • Allowed HTML tags: <a> <em> <strong> <cite> <code><b><p><h1><h2><h3><ul> <ol> <li> <dl> <dt> <dd><img><object><param><embed>
  • Web page addresses and e-mail addresses turn into links automatically.
  • Lines and paragraphs break automatically.

More information about formatting options

Image CAPTCHA
Enter the characters shown in the image.
Write in Bangla