Ami Bangladeshi

Ami Bangladeshi

Ami Bangladeshi

গ্রামীন নয়, আমাদের প্রয়োজন আরও আবদুল জলিল ব্যাংক, ফালু ব্যাংক

Grameen Bank
আরও অনেক ব্যাংক আছে বাংলাদেশে, এত ব্যাংক থাকতে শুধু গ্রামীন ব্যাংক নিয়ে কেন এত মাতামাতি বুঝতে একটু কষ্ট হয়। ডক্টর মোহম্মদ ইউনুসই কি বাংলাদেশের একমাত্র ব্যাংকার যাকে নিয়ে হৈচৈ করতে হবে? আবদুল জলিল, মোসাদ্দেক হোসেন ফালু আর আখতারুজ্জামানরা কি বিশিষ্ট ব্যাংকার নন, উনাদের নিয়ে কেন কথা হয়না? গ্রামীন ব্যাংকের শতকরা সাড়ে তিন ভাগের মালিক সরকার এবং বাকি ৯৬ দশমিক ৫০ ভাগের মালিক এর ৮৩ লাখ গ্রাহক। বাবার মৃত্যুর পর উত্তরাধিকার সূত্রে একটা জুটমিলের বেশ কিছু শেয়ারের মালিক হওয়ার সৌভাগ্য হয়েছিল (হয়ত এখনও আছি)। পাকিস্তান আমলে প্রতিষ্ঠিত মিলটির উদ্যোক্তাদের সবাই ছিলেন দেশি। দেশি মানে তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তানী। ভালই চলছিল জুটমিল ব্যবসা। বাধ সাধল সহস্রাব্দের সেরা বাঙালীর সমাজতন্ত্র। কলমের এক খোঁচায় হাতছাড়া হয়ে গেল ২০ বছরের পরিশ্রম। ৭৫’এর পট পরিবর্তনের পর অবশ্য তা ফিরিয়ে দেয়া হয়েছিল। ততদিনে এ আর জুটমিল থাকেনি , পরিনত হয়েছিল মৃত আওয়ামী কংকালে। মিলটি চালু করতে নগদ অর্থের প্রয়োজন দেখা দেওয়ায় সাহায্য নিতে হল সরকারের। সরকার দেখিয়ে দিল সোনালী ব্যাংকের রাস্তা। ব্যাংকটির কাছে মিলের ৪৯ ভাগ শেয়ার হস্তান্তরের মাধ্যমে চালু করা হয় প্রায় পরিত্যক্ত অবস্থায়। প্রতিষ্ঠানটির পরিচালনা পর্ষদের আমিও তখন সক্রিয় সদস্য। পর্ষদে ব্যংকের প্রতিনিধিত্ব করতে পাঠানো হয় একজন উঁচুদরের সরকারী ব্যাংকারকে। মিল মালিকানা নিয়ে ৪৯-৫১ ভাগের লড়াই হতে দেখিনি, কেবল বছরে একদিন প্রতিষ্ঠানটির বার্ষিক সাধারণ সভায় দেখা হত সরকারী প্রতিনিধির। সভা শেষে পেটমোটা একটা খাম নিয়ে হাসি মুখে চলে যেতেন ভদ্রলোক এবং ব্যাংকে ফিরে চমৎকার একটা রিপোর্ট দিতেন প্রতিষ্ঠানটির স্বাস্থ্যের উপর। এই পেটমোটা খামটাকে ঠাট্টাচ্ছলে আমারা সবাই অক্সিজেন মিয়া বলে আখ্যায়িত করতাম। বাস্তবেই রুগ্ন এ প্রতিষ্ঠানটা চালু রাখতে এ ধরণের অক্সিজেনের বিকল্প ছিলনা। কিন্তু দিন বদলের সাথে অক্সিজেনের চাহিদা এত বেশি বৃদ্ধি পায় যা মালিক পক্ষের সাধ ও সাধ্যের বাইরে চলে যায়। রুগির অবধারিত মৃত্যু তরান্বিত হয় মহান জননেত্রী শেখ হাসিনার প্রথম দফার ঐতিহাসিক ক্ষমতায়নে। শুনেছি প্রতিষ্ঠানটি এ মুহূর্তে লাশ হয়ে শুয়ে আছে কোন বাংলাদেশের কোন এক প্রত্যন্ত অঞ্চলে।

গ্রামীন ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক পদ হতে ডক্টর মো ইউনূসের বিদায়ের একদিনের মাথায় প্রায় ৪০০ কোটি টাকা তুলে নিয়েছে এর আমানতকারীরা। নগদ টাকা না থাকায় চাহিদা মেটাতে পারছেনা অনেক শাখা। পাশাপাশি ব্যাংক হতে অতীতে বহিস্কৃত শত শত কর্মচারী চাকরী ফিরে পাওয়ার আন্দোলন শুরু করেছে। এক কথায়, সোনালী আর রূপালী নামের যেসব লাল-নীল ব্যাংক আছে গ্রামীনকে তাদের এক কাতারে শামিল করার চমৎকার প্রেক্ষাপট তৈরী করে দিয়েছেন যোগ্য পিতার যোগ্য কন্যা। সন্দেহ নেই স্বাভাবিক ধারাতেই জন্ম নেবে গ্রামীন এমপ্লয়িজ ইউনিয়ন (মুক্তিযুদ্ধের চেতনা শাখা) এবং এর বিরোধী দল। কালের চক্রে মানুষের স্মৃতি হতে হয়ত মুছে যাবে এর জন্মদাতা ডক্টর মোহম্মদ ইউনূসের নাম এবং ঘুরে ফিরে উচ্চারিত হবে আমাদের সবার পরিচিত পিতা আর ঘোষকের নাম। লাশ হওয়া জুটমিল সৃষ্টিতে শেখ মুজিবের কোন হাত ছিলনা, এর পেছনে পরিশ্রম ছিল একদল নিবেদিত শিল্পপতির। শেখ মুজিব তার রাজনৈতিক দর্শন বাস্তবায়ন করতে গিয়ে গিনিপিগ বানিয়ে ধ্বংস করেছিলেন প্রতিষ্ঠিত একটা শিল্প প্রতিষ্ঠানকে। বাবার যোগ্য সন্তানের মতই কন্যা শেখা হাসিনা হাত দিয়েছেন গিনিপিগ প্রকল্পে। এ যাত্রার শিকার গ্রামীন ব্যাংক।

বাংলাদেশের সমসায়িক বাস্তবতায় যারা খুশি তাদের জন্যে এ লেখা নয়। বরং তাদের অনুরোধ করব চোখ ধাঁধানো উদ্ধোধনী অনুষ্ঠান সমৃদ্ধ ক্রিকেট নিয়ে সময় ব্যয় করতে। আমার মত যারা দেশ নিয়ে অখুশি তাদের কলমে ঘুরে ফিরে ইউনূস প্রসঙ্গ আসবেই। এ নিয়ে কারও চুলকানি দেখা দিলে করার কিছু নেই। শুরুতে অন্যান্য ব্যাংকের প্রসঙ্গ টেনেছিলাম। যারা দেশিয় রাজনীতিকে খুব কাছ হতে পর্যবেক্ষণ করেন তারা হয়ত খেয়াল করে থাকবেন ক্ষমতা ভিত্তিক রাজনীতিতে বেশকিছু ’গুনগত’ পরিবর্তন হয়ে গেছে গেল ক'বছরে । একটা সময় ছিল যখন ক্ষমতার স্বাদ হতে রাজনীতিবিদগণ বাড়ি, গাড়ি, কিছু নগদ আর আয়েশি কটা বিদেশ ভ্রমণ নিয়েই সন্তুষ্ট থাকতেন। অবস্থা বদলে গেছে অর্থনীতির সাথে পাল্লা দিয়ে, শুধু বাড়ি গাড়ি এখন আর যথেষ্ট নয়, একটা টিভি ষ্টেশন, একটা পত্রিকা এবং একটা ব্যাংক এখন ক্ষমতার বাধ্যতামূলক পুরস্কার। এই প্রক্রিয়ায় প্রতিষ্ঠিত হয়েছে আবদুল জলিল ব্যাংক, মেসার্স ফালু ব্যাংক, সর্বজনাব আখতারুজ্জামান ব্যাংক এবং এরকম আরও গন্ডা কয়েক ব্যাংক। গ্রামীনের বিরুদ্ধে অভিযোগ ব্যাংকটি দেশ হতে দারিদ্র বিমোচনে কোন ভূমিকা রাখতে পারছেনা। এবার আসুন একটু তলিয়ে দেখা যাক রাজনৈতিক ব্যাংক গুলোর দারিদ্র বিমোচন কর্মসূচীর কিছু আলোকিত অধ্যায়।

মেসার্স আবদুল জলিল ব্যাংক কোন ঔরসে জন্মায় পাঠকদের আশাকরি তা ব্যাখ্যা করতে হবেনা। রাজনৈতিক ছত্রছায়ায় নেত্রী ও দলীয় কর্মসূচীর সফল অর্থায়নের জন্যে ক্ষমতার শীর্ষ হতে জন্ম দেয়া হয় এসব দুধালো গাইকে। প্রয়োজনে ওরা দুধ দেয় এবং দুধের নহবতে মসৃন হয় ক্ষমতার সিঁড়ি, আর সিঁড়ির শীর্ষে উঠে অনেকের সন্তান বনে যায় বিশিষ্ট বৈজ্ঞানিক। এসব ব্যাংক দারিদ্র বিমোচনে সহযোগীতা করে বৈকি, তবে তা বিমোচন করে রাজনীতিবিদ ও তাদের সহযোগী আমলাদের দারিদ্র। এ ধরণের ব্যাংক না হলে নাজমুল হুদার দুই মেয়ে মাসে ২০ লাখ আর বাকের ভাই খ্যাত আসাদুজ্জামান নুরের সন্তান কি করে বিলাতে লেখাপড়া করবে? দেশে লেখাপড়া করার দারিদ্র আর যাই হোক রাজনীতিবিদদের জন্যে শোভা পায়না। জনাব আখতারুজ্জামানকে বলা হয় আওয়ামী লীগ ও শেখ পরিবারের অন্যতম যোগানদাতা। ইউনাইটেড কমার্শিয়াল ব্যাংক শুধু আখতারুজ্জামানের ’দারিদ্র’ নয় বরং দূর করে থাকে অনেক মহিয়সীরও ব্যক্তিগত ও পারিবারিক দারিদ্র। মেসার্স ফালু ব্যাংকের কথা না হয় না-ই উল্লেখ করলাম। কথায় বলে বৃক্ষ নাম তার ফলে পরিচয়।

প্রশ্ন করা যায়, গ্রামীন জনগণের দারিদ্র বিমোচনের সংজ্ঞা আসলে কি? গ্রামীন ব্যাংক হাজার, দুই হাজার, পাঁচ হাজার, এ ধরণের ছোট অংকের লোন দিয়ে কর্মসূচীর সাফল্য দাবি করছে। নাইমুল ইসলাম খানের মত বিজ্ঞ সাংবাদিক এবং ব্লগ দুনিয়ার বিরাট একটা অংশের দৃষ্টিতে এ ধরণের ঋণ গ্রামীন জীবনে পরিবর্তন আনায় ভূমিকা রাখতে ব্যর্থ হয়েছে। পরির্তন বলতে এসব বিজ্ঞ জনেরা কি বুঝাতে চাইছেন আরা একটা ব্যাখ্যার প্রয়োজন আছে। রাস্তার একজন ভিক্ষুককে ১০০০ টাকা লোন দিয়ে নিশ্চয় আশা করা ঠিক হবেনা সে আসাদুজ্জামান নুরের মত সহসাই সন্তানকে বিলাত পাঠিয়ে মানুষ করে ফেলবে? সে ভিক্ষাবৃত্তি চালিয়ে যেতে বাধ্য থাকবে এবং পাশাপাশি চেষ্টা করবে কিছু একটা করার। এই কিছু একটা করার নামই বোধহয় দারিদ্র বিমোচন কর্মসূচী, অন্তত গ্রামীনের চোখে। সবাই কি সফল হয় এ পথে? নিশ্চয় না। সে সফলতায় এমন অনেক বাধা আসে যার জন্যে দায়ি করা যায় মেসার্স জলিল ব্যাংকের ভোক্তাদেরই। ধরা যাক একজন ফকিরকে ১০০০ টাকা ধার দেয়া হল। এই টাকায় বড়জোর সে খোলা আকাশের নীচে ছোট মত একটা পানের অথবা চিতই পিঠার দোকান খুলবে। ব্যবসা কতটা হবে তার কোন নিশ্চয়তা নেই, কিন্তু যার নিশ্চয়তা থাকে তা হল এই টোকাই দোকানদার হতেও সরকারী পুলিশ চাঁদা উঠাবে, ক্ষমতাসীন দলের অংগ সংগঠন ছিনতাই করবে। এসবের ফাঁকেও গ্রামীন ব্যাংক তার কর্মসূচী নিয়ে প্রায় ৪০ বছর ধরে টিকে আছে এবং তাদের ব্যাংকিং খাতায় দেশের ৮৩ লাখ মহিলা নাম লিখিয়েছে। একটা ব্যর্থ কর্মসূচী কিভাবে এত বছর টিকে থাকে এবং কোন মন্ত্রবলে ৮৩ লাখ গ্রাহক আকর্ষন করে আশাকরি নাইমুল ইসলাম খান তার ব্যাখ্যা দিবেন।

ইউসুন স্যার পরাজিত হয়েছেন রাজনীতির মারপ্যাঁচে। বাবার নাম অমর করার ৫০,০০০ কোটি টাকার প্রকল্প আর ডক্টর মোহম্মদ ইউনুস নাম পাশাপাশি চলতে পারেনা, এটা আমাদের রাজনৈতিক বাস্তবতা। গ্রামীন ব্যাংক নয়, আমাদের প্রয়োজন আরও আবদুল জলিল ব্যাংক, ফালু ব্যাংক ও আখতারুজ্জামান ব্যাংক। যতদিন রাজনীতির দারিদ্র দূর করা যাচ্ছে না ততদিন গ্রামের গরীব, সহায়সম্বলহীন মহিলাদের দারিদ্র নিয়ে কথা বলা হবে অপরাধ। আর এ অপরাধের যথাযত শাস্তি নিশ্চিত করার জন্যে এক পায়ে দাঁড়িয়ে আছে আমাদের উচ্চ আদালত। গ্রামীন ব্যাংক সাগা এরই অবিচ্ছেদ্য অংশ।

Comments

বঙ্গবন্ধু দেশকে স্বাধীন করে..

বঙ্গবন্ধু দেশকে স্বাধীন করে বহির্বিশ্বে বাঙালিকে বীরের জাতি হিসেবে পরিচিত করেছেন। আর ইউনূস বিদেশ থেকে সাহায্য এনে ভিক্ষুকের জাতি হিসেবে পরিচিত করেছেন

http://www.prothom-alo.com/detail/date/2011-03-25/news/141421

চাই রাষ্ট্রনায়কোচিত প্রজ্ঞা - by Rehman.Sobhan

সরকারি পদক্ষেপের বোধ ও বিবেচনা
গ্রামীণ ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক পদ থেকে অধ্যাপক মুহাম্মদ ইউনূসের অপসারণে বাংলাদেশ ব্যাংকের প্রজ্ঞাপন জাতিকে যেমন আহত করেছে, তেমনি বিপর্যস্ত করেছে ব্যাংকটির লাখ লাখ গ্রাহককে। ঘটনাটি আন্তর্জাতিক সংবাদ শিরোনাম হয়েছে এবং বাংলাদেশ সরকার দুনিয়াজোড়া যে বিরূপ মন্তব্যের মুখে পড়েছে, তা আমাদের ভাবমূর্তিকে এগিয়ে নিতে কতটা সহায়ক, তা বলা কঠিন। বিভিন্ন দেশের প্রেসিডেন্ট থেকে শুরু করে ট্যাক্সিচালক পর্যন্ত সবার মুখে একটাই প্রশ্ন, এটা কেমন সরকার, যারা অর্থনৈতিক ক্ষেত্রে উন্নতি করেছে, যাদের শাসন ধর্মনিরপেক্ষ, তারা কেন এমন কাজ করল? গত ৩ মার্চ দেশে ফেরার পথে দিল্লি বিমানবন্দরে এক বাঙালি অভিবাসন কর্মকর্তার প্রশ্নের মাধ্যমে ঘটনাটির বৈশ্বিক অভিঘাত আমার ওপরও এসে পড়ল। তাঁকে আমার পাসপোর্টটি দেওয়ামাত্রই তিনি বিষণ্নবদনে জানতে চাইলেন, ‘কেন তোমাদের সরকার তোমাদের নোবেল বিজয়ীকে সরিয়ে দিতে চায়?’ হতে পারে তা অন্যায্য কিন্তু বৈশ্বিক সম্প্রদায় নিরন্তরভাবে আমাদের সরকার সম্পর্কে যে ধারণা পোষণ করতে শুরু করেছে, সরকারের তরফে ঢাকায় সংবাদ সম্মেলন কিংবা বিচার-প্রক্রিয়ার ফল দিয়ে কোনোভাবেই তা মোচন করা যাবে না। মেয়াদের বাকি বছরগুলোতেও এই নিন্দা সরকারকে তাড়া করে ফিরবে। এই ক্ষতিকর সংঘাতের ফলে সরকার কী পেল আর কী হারাল, তার কোনো খতিয়ানের চেষ্টাও তাদের পক্ষ থেকে করা হয়েছে বলে মনে হয় না।
তাহলে সরকার কেন অর্থমন্ত্রীর মাধ্যমে গঠিত গ্রামীণ ব্যাংক পর্যালোচনা কমিটির প্রতিবেদনের অপেক্ষা না করেই এমন চরম সিদ্ধান্ত নিল? ১৯৮৩ সালে গ্রামীণ ব্যাংক অধ্যাদেশ কার্যকর করা এবং ১ দশমিক ৮ কোটি টাকার প্রাথমিক মূলধন দেওয়া ছাড়া গত ৩০ বছরে ব্যাংকটির বিকাশে সরকারি ভূমিকা অতি নগণ্য। বিপরীতে, দরিদ্র গ্রাহকেরা, যাঁদের বেশির ভাগই নারী, তাঁদের অংশীদারির অনুপাত হলো মোট শেয়ারের ৭৫ শতাংশ এবং একটানা তাঁরা ব্যাংকটির মূলধনি ভিত্তি বাড়িয়ে চলেছেন। তাঁদের সামান্য সঞ্চয় দিয়েই তাঁরা এটা করেছেন এবং এখন তা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৫৩ কোটি টাকা। পরিণামে, এই নারীরা এখন ব্যাংকের পরিশোধিত স্টক শেয়ারের ৯৬ দশমিক ৫ শতাংশেরই মালিক।

গ্রামীণ ব্যাংক এখন ব্যাংকঋণের মাধ্যমে অথবা সময়ে সময়ে বাণিজ্যিক ব্যাংক থেকে সুদের বিনিময়ে ঋণপত্রের মাধ্যমেও পুঁজি গঠন করছে। তহবিল জোগানদাতাদের মধ্যে এমনকি রাষ্ট্রীয় ব্যাংকও রয়েছে। প্রতিটি ক্ষেত্রেই মেয়াদের মধ্যেই সম্পূর্ণ ঋণ পরিশোধ করা হয়েছে। অন্যদিকে সরকার করদাতাদের দেওয়া হাজার হাজার কোটি টাকা দিয়ে রাষ্ট্রীয় ব্যাংকগুলোর মূলধনি ভিত্তি গঠন করতে বাধ্য হয়েছে কিন্তু এসব ব্যাংকের অভিজাত গ্রহীতারা এই বিপুল পরিমাণ অর্থ লোপাট করে দিয়েছেন।

এই দীর্ঘ সময়ে গ্রামীণ ব্যাংককে কোনো সরকারি বেইল আউট নিতে হয়নি কিংবা বাইরে থেকে তহবিল আহরণে সরকারি হস্তক্ষেপেরও দ্বারস্থ হতে হয়নি। তহবিলদাতারা নিজেরাই সেধে এসে গ্রামীণকে তহবিল দেওয়ার প্রস্তাব করেছে। বাংলাদেশ ব্যাংকের বার্ষিক নিরীক্ষণে দেখা গেছে, ব্যাংকটি সুন্দরভাবে পরিচালিত হয়েছে এবং এর আর্থিক কাজকারবার সুচারু ও মানসম্মতভাবে সম্পন্ন হচ্ছে। এমনকি ব্যাংকের সংখ্যাগরিষ্ঠ শেয়ারমালিকদের দিক থেকে অথবা এর গ্রাহকদের পক্ষ থেকে কখনো সরকারের কাছে অনিয়মের বা সম্পদের অপব্যবহারের অভিযোগও আসেনি। এ রকম যখন অবস্থা, তখন এটা বোধগম্য নয়, ৩০ বছর যাবত গ্রামীণের নিষ্ক্রিয় ও দুর্বল অংশীদারির ভূমিকায় থাকার পর সরকার কেন হঠাৎ জেগে উঠে প্রতিষ্ঠানটির সঙ্গে মালিকসুলভ আচরণ শুরু করল? সাধারণভাবে এ ধরনের আচরণ অনিয়মের কারণে আর্থিক বিপত্তির মুখে পড়া প্রতিষ্ঠানের জন্য সংরক্ষিত থাকে। যে সরকার শেয়ারবাজার কেলেঙ্কারি, জ্বালানিসংকট, দ্রব্যমূল্য বৃদ্ধি, লিবিয়া থেকে প্রবাসী কর্মীদের ফেরত আসাসহ সরকারি প্রতিষ্ঠানে মহামারি আকারের অব্যবস্থাপনার মতো গুরুতর সমস্যায় হিমশিম খাচ্ছে, সেই সরকার কেন আর্থিকভাবে গতিশীল ও সক্ষম একটি প্রতিষ্ঠানের পরিচালনা নিয়ে বিবাদে জড়াল, যেখানে আবার তাদের অংশীদারি নগণ্য, সেটা এক রহস্য বটে।

এজমালি সম্পত্তির তছনছ
একটি আইনি খুঁটিনাটির ছুতো ধরে অধ্যাপক ইউনূসকে গ্রামীণ ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালকের পদ থেকে অপসারণ করার সময় সরকার প্রতিষ্ঠানটির সফলতার ইতিহাস এবং এর ব্যাপক বিস্তৃত খ্যাতিকে গুরুত্বই দেয়নি। প্রতিষ্ঠানটির সংখ্যাগরিষ্ঠ অংশের মালিক সেই ৮০ লাখ দরিদ্র নারীর আর্থিক স্বার্থও তাদের কাছে পাত্তা পায়নি। এমনকি তারা অনুসন্ধানও করে দেখেনি যে, ১৯৯৯ সালে কেন গ্রামীণ ব্যাংকের পরিচালনা পর্ষদ যত দিন না দায়িত্ব হস্তান্তরে সক্ষম হন, তত দিন পর্যন্ত অধ্যাপক ইউনূসকে ব্যবস্থাপনা পরিচালকের দায়িত্ব পালনের অনুরোধ জানানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছিল। দেখা যাক, কেন সে সময় পর্ষদ সিদ্ধান্তটি নিয়েছিল।

সে সময়, পর্ষদের সব সদস্যের কাছে পরিষ্কার হয়ে গিয়েছিল যে গ্রামীণ ব্যাংক কোনো সাধারণ প্রতিষ্ঠান নয় এবং এর পরিচালক অধ্যাপক ইউনূসও অন্য কোনো রাষ্ট্রীয় ব্যাংকের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা গোছের কেউ নন। ১৯৭৬ সালে ফিরে গিয়ে দেখি, গ্রামীণ ব্যাংক এক অনন্য চিন্তার ফসল। চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থনীতির অধ্যাপক সহায়হীনদের মঙ্গলার্থে কোনো রকম অতিরিক্ত জামানত ছাড়াই ঋণ দেওয়ার নীতির ভিত্তিতে একটি প্রতিষ্ঠান গড়ে তোলেন। তাঁর উদ্যোগেই এটি দিনে দিনে একটি সামাজিক পরীক্ষা-নিরীক্ষা থেকে আইনবলে প্রতিষ্ঠিত আর্থিক প্রতিষ্ঠানে পরিণত হয়। দরিদ্রদের জন্য এনজিও বানানোর বদলে একটি বাণিজ্যিক ব্যাংক গঠনের প্রক্রিয়ায় ইউনূস সরকারকেও জড়িত করেছিলেন। তাঁর আশা ছিল যে সরকারও দরিদ্রদের সহায়তা করায় অংশীদার হয়ে উঠবে। এই কাজে তিনি তখনকার অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিতের উদার ও সক্রিয় সহযোগিতা পান। তৎকালীন অর্থমন্ত্রী এমন এক বিরল অর্ডিন্যান্স কার্যকর করেছিলেন, যাতে এমন একটি বাণিজ্যিক ব্যাংক গঠিত হবে, যার আংশিক মালিকানা থাকবে এর দরিদ্র গ্রহীতাদের হাতে, যাতে তাঁরা বিনা জামানতে এ ধরনের প্রতিষ্ঠানের কাছ থেকে ঋণ নিতে পারেন।

এই পরীক্ষামূলক সূত্রপাত থেকে পরের ২৫ বছর ধরে ইউনূস দিনরাত পরিশ্রম করে, একদল নিবেদিতপ্রাণ সহযোগীর সমর্থনে গ্রামীণ ব্যাংককে রূপান্তর করেন বিশ্বের মধ্যে এ ধরনের সংস্থাগুলোর মধ্যে সর্বশ্রেষ্ঠ ও সর্ববৃহৎ সংস্থা হিসেবে। তাঁর ও তাঁর ব্যাংকের নামে নোবেল পুরস্কারপ্রাপ্তি এরই ফল। তখন থেকেই গ্রামীণ মডেলের আদলে বিশ্বে অজস্র প্রতিষ্ঠান গড়ে উঠছে, এমনকি যুক্তরাষ্ট্রেও তা ঘটেছে। এই প্রক্রিয়ায়, বিশেষত প্রতিষ্ঠান নির্মাণের প্রথম দুই দশকে ইউনূস বাংলাদেশের আনাচকানাচে সফর করেছেন। এটা তিনি করেছেন যাঁরা ঋণ নিচ্ছেন এবং গ্রামীণের মালিক হচ্ছেন তাঁদের ভালো করে জানতে এবং তাঁদের সমস্যার পাহাড়ের সঙ্গে পরিচিত হতে। এই প্রক্রিয়ায় তিনি গ্রামীণের নারী মালিকদের সঙ্গে এমন এক ব্যক্তিগত আস্থার সম্পর্ক সৃষ্টি করেছেন, যার পরিণতিতে তাঁরা গ্রামীণের সঙ্গে কারবারে ভরসা পান। ৩০ বছর ধরে কোটি কোটি নারীকে বুঝিয়ে বারবার গ্রামীণের কাছে নিয়ে আসা, ৫১ হাজার কোটি টাকা ঋণ গ্রহণ করানো ও পরিশোধ করানো এক পর্বতপ্রমাণ সাফল্য। বিশেষত এমন এক দেশে এটা সম্ভব হয়েছে যেখানে কার্যত এসব নারীর শতভাগই জীবনে কখনো ব্যাংকে যাননি। এই লাখ লাখ ঋণগ্রহীতার কাছে ব্যক্তি ইউনূস হলেন প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগের অচেনা জগতে এক আস্থার প্রতীক, নিরাপত্তার চাদর।

যে মানুষটির ভরসায় লাখো নারী তাঁদের আশা, ভয় ও সঞ্চয় বিনিয়োগ করেছেন, কেবল বয়স ৬০ হয়ে যাওয়ার জন্য তিনি আর তাঁদের প্রতিষ্ঠান পরিচালনা করতে পারবেন না, এটা জানাকে তাঁরা মেনে নিতে পারবেন না। যাঁরা এর মালিক এবং এখানে যাঁদের বিনিয়োগ রয়েছে, গ্রামীণের সেই সব গ্রহীতা/মালিকের এই মনোভাবই সুস্পষ্টভাবে প্রতিফলিত হয়েছে গ্রামীণের পরিচালনা পর্ষদের নয় নারী প্রতিনিধির সিদ্ধান্তে। ১২ বছর পরে সম্প্রতি এ ধরনের অন্য নয়জন নারীই ব্যাংকটির সংখ্যাগরিষ্ঠ মালিকদের পক্ষ থেকে ব্যবস্থাপনা পরিচালকের পদ থেকে ইউনূসের অপসারণের বিরুদ্ধে আদালতের দ্বারস্থ হয়েছেন। ইউনূস যখন আদালতে হাজির হয়েছেন, তখন টেলিভিশনের পর্দায় এঁদেরই দেখা গেছে তাঁর প্রতি সংহতি প্রকাশ করতে। সরকার রাষ্ট্রীয় ক্ষমতাকে সর্বশক্তিমান জ্ঞান করে ব্যাংকের ৯৬ শতাংশ স্টক-শেয়ারের মালিক এই লাখো কোটি নারীর উদ্বেগ ও মতামত তুচ্ছ করলে কোনোভাবেই সেই আচরণকে বিবেচক, গণতান্ত্রিক ও দায়িত্বশীল বলা যায় না। এই মানুষদের গণতান্ত্রিক ও করপোরেট অধিকার রদ করাকে ন্যায্য বলে প্রতিপন্ন করাও কঠিন। এই নারীরাই হলেন ব্যাংকের সংখ্যাগরিষ্ঠ মালিক এবং তাঁরা যে ভোটার, সেটা প্রধান বিরোধী দলেরও নজর এড়ায়নি।

পরিচালনা পর্ষদের কাছে অধ্যাপক ইউনূসের আন্তর্জাতিক ভাবমূর্তি এবং ব্যাংকের কাছে তাঁর মূল্য মোটেই ঠুনকো ব্যাপার নয়। এমনকি ১৯৯৯ সালেও ইউনূস দেশের মধ্যে যেমন, আন্তর্জাতিক স্তরেও ছিলেন তেমন খ্যাতিমান। ইউনূসের এই মানমর্যাদা গ্রামীণের অগণিত বিনিয়োগকারীর মধ্যে কেবল ভরসার অনুভূতিই জাগায় না, তা ব্যাংকের জন্য একটি বড় পুঁজিও বটে। এমনকি এক দশক আগেও অধ্যাপক ইউনূস যেকোনো বিনিয়োগকারী প্রতিষ্ঠান এবং করপোরেট বিনিয়োগকারীদের থেকে মিলিয়ন ডলার সংগ্রহ করার মতো অবস্থানে ছিলেন। অধ্যাপক ইউনূস তাই হয়ে উঠেছিলেন গ্রামীণ ব্যাংকের সম্পদ। দরিদ্র নারীদের কাছে তাঁর নামের এই মূল্য মিলিয়ন মিলিয়ন ডলারের থেকেও বেশি। গ্রামীণের পরিচালনা পর্ষদ অন্য যেকোনো পদ অলংকৃত করে থাকা ব্যাংকারের মতো করে ইউনূসকেও স্বেচ্ছায় অবসর নিতে দিলে সেটা হতো ব্যাংকের পরম একটি সম্পদ নষ্ট করার মতো বিরাট করপোরেট অপরিণামদর্শিতা ও দায়িত্বহীনতা।

এক দশক পরে, ইউনূস এবং তাঁর গ্রামীণ ব্যাংক নোবেল পুরস্কারে ভূষিত। গ্রামীণের মডেল এখন দুনিয়ার সর্বত্র অনুসরিত হচ্ছে। এখন তাঁর জন্য দুনিয়ার সব উন্নত দেশ এবং তাবৎ উন্নয়নশীল দেশ যথা—চীন, ভারত, দক্ষিণ আফ্রিকা, ব্রাজিল, ভিয়েতনাম; এমনকি ভেনেজুয়েলার মতো দেশের প্রেসিডেন্ট ও প্রধানমন্ত্রীর দরজা খোলা। এখন তিনি ফোন তুলেই বিশ্বের প্রধান প্রধান ৫০০ কোম্পানির (ফরচুন ৫০০ তালিকাভুক্ত) যেকোনো সিইওর সঙ্গে কথা বলতে পারেন। এই ৫০০ কোম্পানির যে কেউই তাঁকে তাঁদের পরিচালনা বোর্ডের সভায় উপস্থিত থাকার জন্য মিলিয়ন মিলিয়ন ডলার দিতে রাজি। অথচ এসব না করে তিনি বাংলাদেশে থাকাই সাব্যস্ত করেছেন এবং গ্রামীণ ব্যাংকের মালিক লাখ লাখ দরিদ্র নারীকে তাঁর নাম মূলধনের মতো ব্যবহার করতে দিচ্ছেন। কী পরিমাণ বোধ-বিবেচনাহীন হয়ে পড়লে এবং বাণিজ্যিক বিচারবুদ্ধি হারিয়ে ফেললে নিছক মামুলি আইনি বিধির অজুহাতে এই লাখ লাখ নারীকে তাঁদের সবচেয়ে মূল্যবান সম্পদ হাতছাড়া করতে বাধ্য করা যায়?

সংঘাত থেকে রাষ্ট্রনায়কতার দিকে

সাম্প্রতিক এক বক্তব্যে সরকারের মুখপাত্র জানিয়েছেন, ইউনূসের সঙ্গে সরকারের কোনো রাজনৈতিক বিবাদ নেই। তাঁরা কেবল আইনের শাসনের সুরক্ষা চান। আমি সরকারের তরফে এই বক্তব্যকে তাঁদের অবস্থান হিসেবে ধরে নিতে চাই। যদি আইনের শাসনই মূল বিষয় হয়ে থাকে, তাহলে বাংলাদেশ ব্যাংকের আদেশে যেমন বলা হয়েছে, গ্রামীণ ব্যাংকের প্রধান আইনি বিচ্যুতি হলো ১৯৯৯ সালে ইউনূসকে গ্রামীণ ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক পদে পুনর্নিয়োগের বেলায় আগেভাগেই বাংলাদেশ ব্যাংকের অনুমোদন না নেওয়া। বাংলাদেশ ব্যাংক ইস্যুটি তোলে গ্রামীণ ব্যাংকের বার্ষিক অডিট প্রতিবেদনে এবং সে সময় গ্রামীণ ব্যাংক প্রতিবেদনের যাবতীয় প্রশ্নের সম্পূর্ণ উত্তর দেয়। গ্রামীণ ব্যাংকের সেই উত্তর যদি বাংলাদেশ ব্যাংক বা বাংলাদেশ সরকারের মনঃপূত না হয়, তাহলে তারা গ্রামীণ ব্যাংককে আবারও নোটিশ দিয়ে তাদের এই অনিয়মকে সংশোধন করতে বলতে পারত। কিন্তু তিনটি গণতান্ত্রিক সরকার, দুটি তত্ত্বাবধায়ক সরকার এবং ১৯৯৯ থেকে ২০১১ সাল পর্যন্ত বাংলাদেশ ব্যাংকের চারজন গভর্নরের সময়েও তাঁদের দিক থেকে গ্রামীণ ব্যাংককে আর কোনো নোটিশ পাঠানো হয়নি। বাংলাদেশ ব্যাংকের এই একটানা নীরবতাকে খুবই যুক্তিসংগত কারণেই গ্রামীণ ব্যাংক বিষয়ে বাংলাদেশ ব্যাংকের অডিট প্রতিবেদনের প্রতি অনুমোদন এবং ব্যবস্থাপনা পরিচালক হিসেবে ইউনূসের পুনর্নিয়োগকে গ্রাহ্য করা বলে ধরে নেওয়া যায়।
এমনকি আজও ইউনূসকে গ্রামীণ ব্যাংক থেকে অপসারণের আগে বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নরের সে রকম কোনো চিঠি পাঠাতে কোনো বাধা ছিল না। তাহলে গ্রামীণ ব্যাংক তাদের কাজের একটা ব্যাখ্যা দিতে পারত এবং/অথবা হয়তো ইউনূসের দায়িত্ব পালন করে যাওয়ার অনুমোদনও চাইতে পারত। তখন বাংলাদেশ ব্যাংকও গত ১২ বছরে বাংলাদেশ ব্যাংকের করা গ্রামীণ ব্যাংকের ওপর করা ইতিবাচক অডিট প্রতিবেদনের ভিত্তিতে ভাবতে পারত যে অধ্যাপক ইউনূস যেহেতু দক্ষতার সঙ্গে গ্রামীণ ব্যাংক পরিচালনা করছেন, সেহেতু তাঁর অনুমোদন প্রাপ্য। কেন এ রকম একটি যৌক্তিক পদক্ষেপ নেওয়া হলো না, তার ব্যাখ্যা প্রয়োজন। আমরা ক্রমাগত এ ধরনের আইনি সংঘাত ঘটতে দেখছি, যা কার্যত আমাদের শাসন পরিচালনাকারী প্রতিষ্ঠানগুলোর বিশ্বাসযোগ্যতা বাড়ায়ও না, এই অপ্রয়োজনীয় সমস্যার সমাধানও এ থেকে হওয়ার নয়।

তাহলে আমরা এখান থেকে কোথায় যাব? গ্রামীণ ব্যাংকের বিকাশে অধ্যাপক ইউনূসের ঐতিহাসিক ভূমিকা, বিনিয়োগকারীদের মধ্যে তিনি যে আস্থার সঞ্চার করেন, তা এবং তাঁর নামের যে করপোরেট সম্পদমূল্য, যা আবার অর্থমন্ত্রী এবং স্থানীয় সরকারমন্ত্রীও স্বীকার করেছেন। এ অবস্থায় তাঁর জন্য ‘সম্মানজনক প্রস্থানের’ পথ খোঁজা তো আসল সমস্যা থেকে চোখ সরানো। সেই আসল হলো গ্রামীণ ব্যাংকের কল্যাণ এবং এর লাখ লাখ গ্রাহকের জীবনযাত্রা। গ্রামীণ ব্যাংকের ভালো চাইলে কিংবা এর ৮০ লাখ সদস্যের কথা মাথায় রাখলে কেউ গ্রামীণ ব্যাংক থেকে ইউনূসের প্রস্থান, তা সম্মানজনক বা অন্য যেকোনো রকমই হোক, চাইতে পারে না। গ্রামীণ ব্যাংকের প্রতিষ্ঠাতাকে বের করে দেওয়ার যেকোনো হঠকারী পদক্ষেপ কেবল এর গ্রাহকদের আস্থাকেই নাড়িয়ে দেবে না, ব্যাংক থেকে তাঁদের সঞ্চয় উঠিয়ে নেওয়ার এবং তাঁদের ঋণখেলাপি হয়ে যাওয়ার আশঙ্কাও সৃষ্টি করবে। গ্রামীণ ব্যাংকের সঙ্গে এমন আচরণের সংক্রামক প্রতিক্রিয়া দেশজোড়া অন্যান্য ক্ষুদ্রঋণ প্রতিষ্ঠানের আর্থিক স্থিতিশীলতাকেও বিপর্যস্ত করতে পারে। তাই প্রাসঙ্গিক হলো, ইউনূসের প্রস্থান নয়, বরং গ্রামীণ ব্যাংকের সঙ্গে প্রাতিষ্ঠানিক সম্পর্ক নিজে থেকে গুটিয়ে নেওয়ার আগ পর্যন্ত কী কী শর্তে তিনি দায়িত্ব পালন করে যেতে পারেন, তার ব্যবস্থা করা।

বর্তমান অবস্থায় তাহলে এগিয়ে যাওয়ার যুক্তিসংগত পথ কী? অধ্যাপক ইউনূস ইতিমধ্যে তেমন এক পথের প্রস্তাব করেছেন। ৭০ বছর বয়সেও তাঁর রয়েছে তরুণের শক্তি ও সৃষ্টিশীলতা। এমনকি তিনি যদি নিজেকে গ্রামীণ ব্যাংক থেকে সম্পূর্ণ প্রত্যাহারও করে নেন, তবু তিনি দরিদ্রদের সেবায় নিয়োজিত বেশ কয়েকটি গ্রামীণ ব্র্যান্ডের প্রতিষ্ঠানের সভাপতি হিসেবে থাকছেন। আন্তর্জাতিক উন্নয়ন সংস্থা কিংবা ফরচুন ৫০০-ভুক্ত কোম্পানিগুলোর কাছ থেকে তিনি মিলিয়ন মিলিয়ন ডলার এনে এসব প্রতিষ্ঠান অথবা ভবিষ্যতে তাঁর তৈরি প্রতিষ্ঠানের অংশীদার করতে পারবেন। এ ধরনের কর্মোদ্যম, সুখ্যাতি এবং তহবিল সংগ্রহের ক্ষমতা যাঁর, তাঁকে অবশ্যই গ্রামীণ ব্যাংকের সঙ্গে যুক্ত থাকতে হবে। বয়সের বাধা এখানে বিবেচ্য হওয়ার কথা নয়।
বাংলাদেশসহ বিশ্বের অনেক দেশেই দায়িত্ব থেকে অপসারণে বয়স কোনো প্রশ্ন নয়। বাংলাদেশের অর্থমন্ত্রীর বয়স ৭৭ বছর। আমাদের পরিকল্পনামন্ত্রীর বয়স ৮০ বছরের কাছাকাছি। মন্ত্রীদের মধ্যে অথবা প্রধানমন্ত্রীর উপদেষ্টা হিসেবে নিয়োজিত মন্ত্রী পর্যায়ের ব্যক্তিদের মধ্যেও কয়েকজন আছেন, যাঁদের বয়স হয় ৭০ পেরিয়েছে বা পেরোবে। প্রধানমন্ত্রী স্বয়ং এবং বিরোধীদলীয় নেত্রীও ইউনূসের গ্রামীণ ব্যাংকের নির্বাহী দায়িত্ব পালনের সময়সীমার থেকেও বেশি দিন ধরে—গত তিন দশক ধরে—নিজ নিজ দলের নেতৃত্ব দিয়ে যাচ্ছেন। যদি অ্যাটর্নি জেনারেলের কথামতো মানি যে ৬০ বছরই হলো অবসর গ্রহণের সর্বজনীন বয়স, তাহলে এসব জাতীয় ব্যক্তিত্বের সবারই অনেক আগেই অবসরে যাওয়ার কথা ছিল। সৌভাগ্যবশত ওপরে বর্ণিত সব ব্যক্তিই জীবনের শিখরে পৌঁছেছেন, নিজ নিজ দল ও সরকারের আস্থা তাঁরা উপভোগ করেন এবং দেখা যাচ্ছে, যত দিন তাঁরা ইচ্ছা করেন, তত দিন দায়িত্ব পালনে তাঁরা সক্ষম। তাহলে যে ব্যক্তিটি শূন্য থেকে একটি প্রতিষ্ঠান গড়ে তুলেছেন এবং যার সঙ্গে তিনি অঙ্গাঙ্গিভাবে জড়িত; সেই প্রতিষ্ঠান থেকে বয়সের দোহাই দিয়ে তাঁকে অপসারণ করা ন্যায্যও নয়, সঠিক কর্মকৌশলও নয়।

গ্রামীণ ব্যাংকের সঙ্গে ইউনূসের সম্পর্ক টিকিয়ে রাখার গুরুত্বের কথা বিবেচনা করে বর্তমান সংকটের একটি মানানসই সমাধানের প্রস্তাব ইতিমধ্যে ইউনূসের তরফ থেকেই এসেছে। নিদেনপক্ষে এক বছর আগে ইউনূস অর্থমন্ত্রীর কাছে ইঙ্গিত করেছিলেন যে তিনি গ্রামীণ ব্যাংকের দায়িত্ব পেশাদারির দিক থেকে যোগ্য একজন ব্যক্তির হাতে ছেড়ে দিতে চান। সেই ব্যক্তিকে হতে হবে সুষ্ঠু অনুসন্ধান-প্রক্রিয়ার মধ্য দিয়ে মনোনীত, যিনি গ্রামীণ ব্যাংকের মালিক সেই লাখ লাখ গ্রাহকের আস্থা অর্জনেও সক্ষম হবেন। এ ধরনের এক রদবদল সম্পন্ন করায় খুবই গুরুত্বপূর্ণ হলো গ্রামীণ ব্যাংকের ধারাবাহিকতায় ছেদ না ঘটানো, যাতে ব্যাংকের সদস্যদের আস্থা অটুট থাকে। এ রকম অবস্থায় আদর্শ সমাধান হলো, অধ্যাপক ইউনূসকে গ্রামীণ ব্যাংক পর্ষদের সভাপতির পদে আমন্ত্রণ জানানো। তাঁর এই মাত্রার উপস্থিতি ব্যাংকটির বৈশ্বিক বিস্তারকে যেমন অব্যাহত রাখবে, তেমনি তাঁর মাধ্যমে বাংলাদেশসহ বিশ্বের নীতিনির্ধারক মহল থেকে শুরু করে আর্থিক পরিমণ্ডলে ব্যাংকটির গ্রহণযোগ্যতাও টিকে থাকবে। এটা করা হলে তা ব্যাংকের ৮০ লাখ গ্রাহকের সবচেয়ে পুরস্কৃত যে সম্পদ, তা নিয়োজিত থাকবে তাঁদের প্রতিষ্ঠানে, যে প্রতিষ্ঠান তাঁদের সংসার ও জীবনের সঞ্চয়ের প্রতীক। চলমান অর্থহীন রকম ধ্বংসাত্মক সংঘাতের এ রকম একটি যৌক্তিক ও গঠনমূলক সমাধানের প্রতি অবজ্ঞা দেখানো হলে গোটা দুনিয়া বুঝে নেবে যে গ্রামীণ ব্যাংকের স্বার্থের বাইরের অন্য কোনো বিষয়ই কাজ করছে সরকারের মনে।

আমাদের ইতিহাসের এই দুঃখজনক অধ্যায়ের গঠনমূলক সমাপ্তি টানার উদ্যোগ নিতে পারেন যিনি, তিনি আমাদের প্রধানমন্ত্রী এবং যাঁর পক্ষে গ্রামীণ ব্যাংকের মালিক কোটি কোটি নারীর উদ্বেগের প্রতি অসহিষ্ণু হওয়া কিংবা তাঁদের থেকে বিচ্ছিন্ন হওয়ার রাজনৈতিক পরিণতি বহন করা কঠিন। তাঁর পক্ষে ভুলে যাওয়াও কঠিন, যে কষ্টকর পথে তিনি অভ্যন্তরীণভাবে রাজনৈতিক ও আন্তর্জাতিক স্তরে কূটনৈতিক সাফল্য অর্জন করেছেন; সেই অর্জনকে এমন একটি ইস্যুতে খুইয়ে ফেলা উচিত হবে না, যে ইস্যুটি তাঁর আশু রাজনৈতিক কার্যসূচির দিক থেকে প্রান্তিক। যাঁরাই তাঁকে এমন পরামর্শ দিন না কেন, প্রধানমন্ত্রীর জন্য সময় এসেছে এ ঘটনার রাজনৈতিক মূল্যটি আবারও খতিয়ে দেখার। আড়িয়ল বিলে বিমানবন্দর করার ভুল সিদ্ধান্ত থেকে সরে আসার বেলায় তো তিনি রাষ্ট্রনায়কোচিত প্রজ্ঞা ও পরিপক্বতার নিদর্শন রেখেছিলেন। তাঁর এখন উচিত গ্রামীণ ব্যাংক নিয়ে এই ন্যক্কারজনক ও ধ্বংসাত্মক অধ্যায় থেকে বেরিয়ে আসা। এটা করা যেতে পারে তাঁর এবং অর্থমন্ত্রীর সঙ্গে ইউনূসের বৈঠকের দাওয়াত দেওয়ার মাধ্যমে; সেখানে গ্রামীণ ব্যাংক সম্পর্কে যেসব নেতিবাচক ধারণা তাঁর মনে জন্মেছে, সেসব নিয়ে গঠনমূলক আলোচনাও হতে পারে। তারপর প্রধানমন্ত্রীর নিজেরই উচিত অধ্যাপক ইউনূসকে গ্রামীণ ব্যাংকের পর্ষদের সভাপতির পদ গ্রহণে আমন্ত্রণ জানানো। এর মাধ্যমেই হতে পারে গ্রামীণ ব্যাংক এবং রাষ্ট্রের মধ্যকার সম্পর্কের নতুন এক অধ্যায়ের সূচনা। এ ধরনের এক বন্দোবস্তের মাধ্যমেই গ্রামীণ ব্যাংকের জন্য আন্তর্জাতিক মানের একজন ব্যবস্থাপনা পরিচালকের খোঁজ শুরু করা যেতে পারে। পাশাপাশি গ্রামীণ ব্যাংকের সেবার মান বাড়ানোসহ যেকোনো রকম সংস্কারের সুযোগ উন্মোচন করা এবং তা এগিয়ে নেওয়াও যেতে পারে।

এ ধরনের এক সমঝোতার মানসিকতা থেকে প্রধানমন্ত্রীর উচিত অধ্যাপক ইউনূসকে তাঁর প্রতিপক্ষ মনে না করা। ইউনূস সেটা হতেও পারেন না। কারণ শেখ হাসিনা হলেন দেশের গণতান্ত্রিকভাবে নির্বাচিত প্রধানমন্ত্রী। ইউনূস বরং হতে পারেন এমন এক দিনবদলের সম্পদ, যেখানে দারিদ্র্য ও অবিচার বাংলাদেশ থেকে বিলুপ্ত হবে। প্রতিপক্ষকে বন্ধুতে পরিণত করাই নেতার যোগ্যতার মাপকাঠি। আর রাষ্ট্রনায়কের পরিমাপ সেখানেই, যেখানে তিনি আগামী প্রজন্মের উন্নত ভবিষ্যৎ নির্মাণের স্বার্থে তাঁর প্রতিপক্ষের সঙ্গেও হাত মেলাতে পারেন।

গ্রামীণ ব্যাংকের ‘টাকা আটকাও’ সিলেটে রটানো হচ্ছে গুজব

শুক্রবার, ১১ মার্চ ২০১১
ওয়েছ খছরু, সিলেট থেকে: গ্রামীণ ব্যাংকের টাকা আটকাও- এরকম গুজব ছড়াচ্ছে সিলেটের গ্রাম-গঞ্জে। আর এ গুজবে দেখা দিয়েছে বিভ্রান্তি। ড. ইউনূসকে গ্রামীণ ব্যাংক থেকে অপসারণ করার পর থেকে এ গুজব ছড়িয়েছে সিলেটের গ্রামীণ জনপদে। খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, সিলেট জেলার একেবারে গ্রামীণ ও পিছিয়ে পড়া জনপদগুলোর বেশির ভাগ এলাকায় রয়েছে গ্রামীণ ব্যাংকের ক্ষুদ্র ঋণ কার্যক্রম। ড. ইউনূসকে তার পদ থেকে সরিয়ে দেয়ার পরপরই সিলেটের মাঠ পর্যায়ে ক্ষুদ্র উদ্যোক্তাদের মধ্যে নানা গুজব ছড়িয়ে দেয়া হয়েছে। বালাগঞ্জের সংবাদকর্মী জয়নাল আবেদীন গতকাল গোয়ালাবাজারের বিভিন্ন গ্রাম ঘুরে জানিয়েছেন, এসব এলাকায় ‘টাকা আটকাও’ বলে একটি গুজব ছড়ানো হয়েছে। সাধারণ উদ্যেক্তাদের মধ্যে এ রকম গুজব ছড়িয়ে বিভ্রান্ত করা হচ্ছে। টাকা আটকাও গুজবে সাধারণ উদ্যোক্তাদের মধ্যে কোন পরিবর্তন নেই। এছাড়া ঋণের টাকা তুলতে ব্যাংকের কর্মকর্তাদের কোন অসুবিধা হচ্ছে না। তবে কারা গুজব রটিয়েছে এ ব্যাপারে কোন সুনির্দিষ্ট তথ্য মিলেনি। সিলেটে গোলাবাজারে গ্রামীণ ব্যাংকের যাত্রা শুরু প্রায় ২২ বছর আগে। ১৯৮৮ সালে। প্রথম পর্যায়ে হাজার গ্রাহক নিয়ে যাত্রা শুরু করেছিল এই শাখাটি। এখন এ শাখার গ্রাহক সংখ্যা ৪৫০০। ৬৮টি কেন্দ্রের মাধ্যমে ৫২টি গ্রামের মানুষের মধ্যে এই ঋণ বিতরণ করা হয়। ২২ বছর ধরে কাজ করায় বালাগঞ্জ উপজেলা ওসমানীনগর থানার গোয়ালাবাজার, সাদিপুর, তাজপুর ও বুরুঙ্গা ইউনিয়নের মানুষের সামাজিক উন্নয়নের অন্যতম বাহক হয়েছে গ্রামীণ ব্যাংক। গতকাল গোয়লাবাজাবার এলাকার পার্শ্ববর্তী কয়েকটি গ্রামের ঋণগ্রহীতাদের সঙ্গে আলাপ করে জানা গেছে, তারা ঋণ নিচ্ছেন আবার টাকা ফেরত দিচ্ছেন। সুবিধা পাচ্ছেন বিধায় টাকা ফেরত দিচ্ছেন। এদিকে, গোয়ালাবাজারের শাখা ব্যাংকের ব্যবস্থাপক গোলাম মোস্তফা মানবজমিনকে জানিয়েছেন, গোয়ালাবাজারের চারটি ইউনিয়নে তারা ৪ কোটি টাকা বিনিয়োগ করেছেন। সর্বনিম্ন ৫ হাজার টাকা থেকে শুরু করে সর্বোচ্ছ ৩ লাখ টাকা পর্যন্ত টাকা বিনিয়োগ করেছেন। এখনও তাদের টাকা কালেকশন হচ্ছে ৯৮ ভাগ। তিনি মনে করেন, ক্ষুদ্র উদ্যোক্তারা লাভ পাচ্ছেন বলে তারা ঋণ নিচ্ছেন আবার টাকা ফেরত দিচ্ছেন। তিনি জানান, গত ডিসেম্বর মাসে তারা মাঠে বিনিয়োগ করেছেন ৩৩ লাখ ১৩ হাজার ৮০০ টাকা, রিটার্ন পেয়েছেন ৩১ লাখ ৬৮ হাজার ৯৪০ টাকা, জানুয়ারি মাসে তারা বিনিয়োগ করেছেন ৩৪ লাখ ৪৫ হাজার ১০০ টাকা রিটার্ন পেয়েছেন ৩১ লাখ ৭৪ হাজার ৪০০ টাকা, ফেব্রুয়ারি মাসে বিনিয়োগ করেছেন ৩১ লাখ ৬৭ হাজার ৩০০ টাকা, রিটার্ন এসেছে ২৭ লাখ ৬৯ হাজার ৭৬৫ টাকা। এতে দেখা যায়, গ্রামীণ ব্যাংকের ওই শাখাতে ঋণ বিতরণ ও আদায়ে তেমন কোন হেরফের হয়নি। এখনও আরও নতুন নতুন গ্রাহক আবেদন আছে। গোয়লাবাজারের জায়ফরপুর গ্রামের সমতেরা বিবি, আম্বিয়া বেগম ও লিলু বেগম খুবই দরিদ্র। তারা গ্রামীণ ব্যাংক থেকে গৃহঋণ নিয়েছেন। কিন্তু অভাবের তাড়নায় তারা টাকা দিতে পারেননি। তারা জানিয়েছেন, নিঃস্ব অবস্থায় গ্রামীণ ব্যাংক আমাদের পাশে দাঁড়িয়েছে। পরবর্তী সময়ে টাকা দিতে বিলম্ব হলেও কর্মকর্তারা আমাদের চাপ দেননি। সব দিক বিবেচনা করে তারা আমাদের আবার ঘুরে দাঁড়ানোর তাগিদ দিচ্ছেন। তারা জানান, অসহায় মানুষের কাছে ড. ইউনূস আলোকবর্তিতা। তাজপুরের গ্রামীণ ব্যাংকের শাখা ব্যবস্থাপক গোলাম মোর্শেদ মোরাদ ভাই গতকাল জানিয়েছেন, গ্রামীণ ব্যাংকের কার্যক্রমে এখনও ঋণগ্রহীতাদের কোনও বাধা আসেনি। আমরা স্বাভাবিকভাবে কার্যক্রম চালাচ্ছি। তিনি জানান, তার ৪৬টি সেন্টারের অধীনে ২৮টি গ্রামে কার্যক্রম চলছে। ১৭৬০ জন গ্রাহক রয়েছে তাদের। ১ কোটি ২০ লাখ টাকা বিনিয়োগ করেছেন তারা। প্রতি মাসেই ১২ থেকে ১৫ লাখ টাকা রিটার্ন আসছে মাঠ থেকে।
http://www.mzamin.com/index.php?option=com_content&view=article&id=4709:...

আরো নাম বাদ গেছে

ইকবাল ব্যাংক

Post new comment

  • Allowed HTML tags: <a> <em> <strong> <cite> <code><b><p><h1><h2><h3><ul> <ol> <li> <dl> <dt> <dd><img><object><param><embed>
  • Web page addresses and e-mail addresses turn into links automatically.
  • Lines and paragraphs break automatically.

More information about formatting options

Image CAPTCHA
Enter the characters shown in the image.
Write in Bangla