Ami Bangladeshi

Ami Bangladeshi

Ami Bangladeshi

উনি আসছেন...

member of parliament
আট মাস আগে পদত্যাগ করা প্রতিমন্ত্রী সোহেল তাজ দেশে ফিরছেন শেষ পর্য্যন্ত। মন্ত্রী এমপিদের কে দেশের বাইরে গেল আর কে ফিরে এল এ নিয়ে জাতীয় রাজনীতিতে হৈ চৈ হওয়ার কথা নয়। কিন্তূ সোহেল তাজের ব্যাপারটা একটু অন্যরকম। বনিবনা না হওয়ার কারণে সোহেল তাজ যথাক্রমে গত বছরের ৩১শে মে ও ১লা জুন দু’দফায় কেবিনেট হতে পদত্যাগ করেন। পদত্যাগের পর সংবিধান অনুযায়ী তাঁর পদ শূন্য বিবেচিত হয়ে থাকলে একই ব্যক্তি কোন অধিকারে ৮ই জুনের মন্ত্রীসভার বৈঠকে যোগ দিয়েছিলেন তা এক বিরাট রহস্য। সবচেয়ে অবাক কান্ড পদত্যাগের পর প্রধানমন্ত্রীর দপ্তর হতে ব্যাপারটা যেমন খোলাসা করে হয়নি, একই ভাবে প্রেসিডেন্টের নির্দেষে মন্ত্রী পরিষদ বিভাগ হতেও জারি হয়নি কোন নোটিফিকেশন। এক কথায় মন্ত্রী সোহেল তাজ আদৌ পদত্যাগ করেছেন কিনা ব্যাপারটা পরিস্কার নয়। এ অবস্থায় দেশে ফিরে সোহেল তাজ মন্ত্রীত্ব দাবি করলে কি ধরনের পরিস্থিতি উদ্ভদ হতে পারে এ নিয়ে শুরু হয়েছে কথা চালাচালি।

কে এই সোহেল তাজ? ঢাকা জেলার কাপাসিয়া হতে আওয়ামী লীগের টিকেটে নির্বাচিত সাংসদের চাইতেও আমাদের কাছে তার পরিচয় গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের প্রথম প্রধানমন্ত্রী তাজউদ্দিন আহমেদের সন্তান হিসাবে। মরহুম তাজউদ্দিন আহমেদের কাছে আওয়ামী লীগ তথা জাতির অনেক দায়বদ্বতা। মুক্তিযুদ্বের অন্যতম সংগঠক এই নেতাকে জীবদ্দশায় আওয়ামী লীগ যথাযত মূল্যায়ন করেনি বলে অভিযোগ রয়েগেছে। যোগ্যতা হোক আর দায়বদ্বতা অবমুক্তির তাগাদা হতে হোক, প্রধানমন্ত্রী সোহেল তাজকে মন্ত্রী সভায় ঠাঁই দিয়েছিলেন একজন নির্বাচিত সাংসদ হিসাবে, যা নিয়ে অতিরিক্ত বিতর্কের কোন অবকাশ নেই। কিন্তূ সোহেল তাজকে নিয়ে বিতর্ক অন্য জায়গায়। তিনি প্রবাসী এবং বিদেশী স্ত্রী সহ পরিবারের সবাইকে নিয়ে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে বাস করছেন অনেকদিন ধরে। সাংবিধানিক সীমাবদ্বতা দূর করতে উনি কি যুক্তরাষ্ট্রের স্থায়ী বাসিন্দা না নাগরিক এটাও জাতির সামনে পরিস্কার করা হয়নি।

কাকে মন্ত্রী পরিষদে ঠাঁই দেবেন ব্যাপারটা একান্তই প্রধানমন্ত্রীর এখতিয়ার। একটা বাস্তবতা হয়ত আমাদের নেতা-নেত্রীরা ভুলে যান, মন্ত্রী পরিষদ দায়বদ্বতা অবমুক্তির প্লাটফর্ম নয়, এ হচ্ছে সরকারের আর্থ-সামাজিক কার্য্যক্রম বাস্তবায়নের অন্যতম হাতিয়ার। সোহেল তাজের মন্ত্রিত্ব নিয়ে ব্যক্তিগত এবং পরিবারিক মান অভিমানের যে সার্কাস জাতিকে উপহার দেয়া হয়েছে তা আবারও প্রমান করে আমাদের রাজনীতি কতটা নেত্রী ও পরিবার মূখী।

Comments

দৈনিক প্রথম আলো হতে...

সাবেক স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী তানজিম আহমদ সোহেল তাজ দীর্ঘ নয় মাস পর আজ বুধবার সকালে দেশে ফিরেছেন। তিনি সকাল ১০টা ১৫ মিনিটে কাতার এয়ারওয়েজের একটি ফ্লাইটে ঢাকায় এসে পৌঁছান। তিনি বিমানবন্দরের আনুষ্ঠানিকতা শেষে বেলা ১১টার দিকে বিমানবন্দর ত্যাগ করেন।সরকারের একজন দপ্তরবিহীন প্রতিমন্ত্রী হিসেবে বিমানবন্দরে তাঁর জন্য সরকারি পরিবহনপুলের একটি গাড়ি পাঠানো হয়েছিল। তাঁকে স্বাগত জানাতে বিমানবন্দরে উপস্থিত ছিলেন স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের দুজন কর্মকর্তা। কিন্তু সোহেল তাজ সরকারি পরিবহনপুলের গাড়িতে না চড়ে ব্যক্তিগত গাড়িতে বিমানবন্দর ত্যাগ করেন

সোহেল তাজ গত বছরের জুনে ব্যক্তিগত কারণ দেখিয়ে স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রীর পদ থেকে পদত্যাগ করেন। এরপর তিনি যুক্তরাষ্ট্রে চলে যান। আজ সোহেল তাজ প্রায় নয় মাস পর দেশে ফেরেন।
২৭শে জানুয়ারী, ২০১০

সোহেল তাজ এখনো স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী!

নিজস্ব প্রতিবেদক | তারিখ: ২৫-০১-২০১০

সরকারি ওয়েবসাইটের মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের তালিকা অনুযায়ী, তানজিম আহমদ সোহেল তাজ এখনো স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী। এই তালিকায় প্রতিমন্ত্রী হিসেবে শামসুল হকের নামও উল্লেখ আছে। তবে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের ওয়েবসাইটে প্রতিমন্ত্রী হিসেবে কারও নাম নেই। আবার মন্ত্রিপরিষদের আরেকটি তালিকায় স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী হিসেবে শামসুল হকের নাম আছে।
http://www.cabinet.gov.bd/view_present_portfolios.php?page=mini_portfolioes —এই ঠিকানার সরকারি ওয়েবসাইটে গতকাল রোববার রাত ১২টা পর্যন্ত স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী হিসেবে ২৮ নম্বরে তানজিম আহমদ সোহেল তাজের নাম দেখা গেছে। তাঁর শপথ গ্রহণের তারিখ উল্লেখ আছে ৬ জানুয়ারি ২০০৯। একই ওয়েবসাইটে স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী হিসেবে শামসুল হকের নাম আছে ৩৭ নম্বরে। এই পদে তাঁর শপথের তারিখ উল্লেখ আছে ৩১ জুলাই ২০০৯।

২০০৮ সালের ২৯ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত নির্বাচনে জয়লাভের পর ২০০৯ সালের ৬ জানুয়ারি আওয়ামী লীগ সরকার গঠন করে। শেখ হাসিনার নেতৃত্বে নতুন মন্ত্রিসভা শপথ নেয়। ওই দিন বাংলাদেশের প্রথম প্রধানমন্ত্রী তাজউদ্দীন আহমদের ছেলে সোহেল তাজ স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী হিসেবে শপথ নেন। মে মাসে তিনি পদত্যাগ করেন। এ নিয়ে সে সময় নানা নাটকও হয়। এরপর নতুন স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী হিসেবে নিয়োগ পান শামসুল হক। এ বিষয়ে জানতে চাইলে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের সচিব আবদুল আজিজ বলেন, সোহেল তাজ পদত্যাগ করেছেন। তাই তিনি আর প্রতিমন্ত্রী নেই।

সোহেল তাজ দেশে ফিরছেন বুধবার: আমাদের নিউইয়র্ক প্রতিনিধি জানান, সরকারদলীয় সাংসদ সোহেল তাজ আগামী বুধবার সকালে যুক্তরাষ্ট্র থেকে ঢাকা পৌঁছাবেন। আজ সোমবার ওয়াশিংটনের ডুলাস বিমানবন্দর থেকে দেশের পথে তাঁর রওনা হওয়ার কথা। তিনি স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রীর পদ থেকে পদত্যাগপত্র জমা দিয়ে জুন মাসে যুক্তরাষ্ট্রে আসেন। প্রায় সাত মাস তিনি ম্যারিল্যান্ডে বসবাসরত স্ত্রী ও সন্তানদের সঙ্গে কাটান।

শেখ হাসিনা এর মধ্যে যুক্তরাষ্ট্র সফরে এলেও তাঁর সঙ্গে দেখা করেননি সোহেল তাজ। তাঁর পদত্যাগপত্র নিয়ে সরকারের কোনো প্রকাশ্য ঘোষণা না থাকায় এ নিয়ে সর্বত্র রহস্য বিরাজ করছে। যুক্তরাষ্ট্রে অবস্থানকালে ১৯ জুলাই সোহেল তাজ বলেছেন, প্রধানমন্ত্রীর মাধ্যমে রাষ্ট্রপতির কাছে তিনি পদত্যাগপত্র পাঠিয়েছেন। সংবিধান অনুযায়ী পদত্যাগপত্র দেওয়ার সময় থেকেই তিনি আর মন্ত্রী নন।

http://www.prothom-alo.com/detail/date/2010-01-25/news/37540

Post new comment

  • Allowed HTML tags: <a> <em> <strong> <cite> <code><b><p><h1><h2><h3><ul> <ol> <li> <dl> <dt> <dd><img><object><param><embed>
  • Web page addresses and e-mail addresses turn into links automatically.
  • Lines and paragraphs break automatically.

More information about formatting options

Image CAPTCHA
Enter the characters shown in the image.
Write in Bangla