Ami Bangladeshi

Ami Bangladeshi

Ami Bangladeshi

বিডিআর হত্যাকান্ডের মূল ঘটনার মোড় ঘুরানোর।

খালেদার বাড়ি কোন ইস্যু ছিলো না, হাসিনা হিংসা ছড়ালো এবং একটি ইস্যু খাড়া করে বিএনপিকে রাস্তা নামিয়ে আনলো।এখন এই সব বিএনপিদের গনহত্যায় হাসিনা নেমে পড়বে।
গনতনত্র অনুযায়ী জনসাধারনই নেবে সব সিদ্ধান্ত, কিংতু মুশকিল হলো চুতিয়া দেশের মানুষও এমন চুতিয়া যে নেতা নেত্রীদের পুজা করা ছাড়া কোন আর কিছুই পারেনা।খালেদার সংসদে দেয়া ভাষনে হাসিনা ও বাকশালিদের মাথা খারাপ হয়ে গেছে।ওরা যে চাতুরী ও ষড়যনত্র করে সরকারা আইছে এখন ঐ ষড়যনত্র করেই থাকতে চায়।কিনতু মানুষ জেগে উটলে বাচার পথ নেই।সেনাবাহিনী জানে কারা তাদের অফিসারদের মারছে।এখন গোলা পানি করে মাছ শিকারের মত খালেদার বাড়ি নিয়ে নোংরা রাজনিতি করে অফিসারদের হত্যাকানডকে ধামাচাপা দিতে পরবেনা।আওয়ামি বাকশালীদের পতন কিভাবে হয় মানুষ জানে। ডাইনি হাসিনা তার হীংস্র থাবা যেখানে সেখানে মাইরা ওরাজকতা করতাছে |দলিয় লোক দেরকে দিয়া সারা বাংলাদেশের আনাচে কানাচে দখল কইরা শখ মেটেনা|সংসদে বইসা রাজনৈতিক খেলা শুরু করছে ডাইনি হাসিনা-তবে মনে রাইখেন সবাই,এ খেলা কে আগে শুরু করছে? এ খেলার শুরু আছে,শেস নাই|এক মাঘে শিত যায় না ,সময় বেশি নাই-দোড়াইয়া কুল পাইতোনাগো-খুব সাবধান !
জনগনই সিদ্ধান্ত নিবে তারা কি করবে। ধোকা দিয়ে বেশীদুর এগানো যায় না।
এদের দিয়ে কিসের দিন বদল-টদল?আসলে (আ.লীগ) নেত্রী যে লাউ সেই কদুতেই আছে ।BAL(আ.লীগের) এর নেত্রী আমাদের বাচাল প্রধানমন্ত্রী BCL(তার বাছুরদের) এর দোষ ঢাকতে কাল সংসদে যে উস্কানিমূলক বেফাঁস মন্তব্য করলো এটাকি বিশ্বাসযোগ্য?আসলে এদের গালই এদের বড় শত্রু ।প্রধানমন্ত্রীর উস্কানিমূলক বেফাঁস গলাবাজি নিয়ন্ত্রন করা না গেলে অচিরেই এই দেশ আবার যে কোন বিপদে পড়ে!তা আল্লাহ মালুম!এখন শুনতাছি এই লোভি নির্লজ্জ বেহায়া গেঁয়ো ধনোনেত্রী 2001 এর গণভবন ছাড়ার বদলা নিতে খালেদা জিয়ার বাসভবন নিয়ে লাগছে। যা তারে যে আরো ধিকৃত করবে এটা বুঝারও তার জ্ঞান নাই ।হাচিনা নির্লজ্জ বেহায়া,তার কথা বার্তার এক্সপ্রেসান দেখলে মনে গাও গেরামের,অস্তি বস্তির মাগিরা যেমন হিংসুক হয়, ঠিক একিরকম,আল্লাহ এরে হেদায়েত করুক।শেখ হাসিনা যে আসলেই একজন খুব ছোট মনের সেটা আরো একবার প্রমাণ করে দিলেন।খালেদা জিয়াকে নিয়ে এই ধরনের নোংরামি করে শেখ হাসিনা নিজেকে অনেক নিচে নামিয়ে নিলেন ।অন্যায় সিদ্দ্ধান্তে কাছে মাথা নত করা উচিত নয়, বাণিজ্যমন্ত্রী ফারুক খান সাহেব কি করে বলতে পারলেন যে তিনি (খালেদা)বাড়ি দখল করেছেন? বাড়ি দুটো তাকে(খালেদা)কে দেয়া হয়েছে, তিনি নিজে দখল করেননি।শেখ হাসিনার সরকারের মনত্রী বর্গ কে যে কি বলছেন তারা নিজেরাই জানেনা।একজন বলেছেন নিয়ম অনুযায়ী কারো ঢাকায় ২টা বাড়ী থাকতে পারবে না!মতিয়া বলছেন অবৈধ ভাবে খালেদা জিয়া ক্যান্টন মেন্টে থাকছেন।তার মত বাম বুড়ী বলেই বসলেন যে জিয়া হত্যার পর খালেদা জিয়া চট্রগ্রাম জিয়ার লাশ দেখতে যাননি।তার মত গোবর মস্তিষ্ক নেতা কি করে মনত্রী হলেন বোঝা গেলনা!সে সময় খালেদা জিয়া চট্রগ্রাম গেলে তার নিরাপত্তা কে দিত।
3 মার্চ 1973তে পল্টন ময়দানে ডাকসু'র ভিপি'র রেজিস্টারের পাতা ছিড়ে ফেলা যেখানে মুজিবের আজীবন সদস্যপদের অন্তর্ভুক্ত ছিলো ও মতিয়া সেই সমাবেশে বলেছিলো যে আওয়ামী লীগ 22 পরিবারের বদলে 2200 পরিবার সৃষ্টি করেছে |1974-এ বাসন্তি'র জাল পরা ছবি হাতে নিয়া মতিয়া বলছেন, দুর্ভিক্ষে যখন না খেতে পেয়ে মানুষ মারা যাচ্ছে তখন মুজিবের পরিবার 55 পাউন্ড কেক কেটে জন্মদিন পালন করেছে |
হাসিনা বলছেন স্পর্শকাতর এলাকায় থেকে রাজনীতি করা হছ্ছে এতে করে নিরাপত্তা হুমকির সম্মুখিন!ভাবতেও লজ্জা লাগে প্রতিশোধ পরায়নতার হিংস্র মানসিকতা,এদের স্বৈরাচারী রুপ দেখে জাতি স্তম্ভিত!স্বাধীনতার পর বাংলাদেশের ইতিহাসে এমন জঘন্যতম কাজ করার দুঃসাহস কেউ দেখায়নি।জিয়ার আত্নত্যাগ,বহুদলীয় গণতানত্রিক ব্যাবস্হার প্রবর্তন,উন্নয়ন,বাক স্বাধীনতা ফিরিয়ে দিয়ে দেশকে “তলা বিহীন ঝুড়ি”র অপবাদ থেকে বিশ্ব দরবারে আমাদের উওরন করিয়েছিলেন সমৃদ্ব এক স্বাধীন জাতি হিসেবে।জিয়াউর রাহমান বহুদলীয় গনতন্ত্রের পথ উন্মুক্ত না করলে আওয়ামীলিগ এদেশে রাজনীতি করার অধিকারইতো পেতনা।প্রেসিডেন্ট জিয়ার কারনেই আজ হাসিনা রাস্ট্র ক্ষমতায়,কারণ জিয়া আওয়ামি লিক হাসিনা কে পুনর্বাসন করেছে, একটা ফ্যাসিবাদি দল কে পুনর্বাসন করা যে ঠিক হয়নি স্বাধিনতার ঘোষকের, তা আজ বাংলাদেশ টের পাচ্ছে| জিয়াউর রহমান কি দেশের জন্য কিছুই করেনি ,আওয়ামীর আবাল নেতা নেত্রী যতই ঘৃন্য অপচেশ্টা করুক না কেন ইতিহাসের আস্তাকূড়ে তারা নিক্ষিপ্ত হবেই।
আওয়ামী বাকশালীদের 3 মাসের শাসনামলে দেশের মানুষ অস্থির,মানুষ ভুল করলে তা সুধরাতে ছায় ,কিন্তু আওয়ামিলীগ এত ভুল করার পরেও তারা অন্য দলের উপর দোষ ছাপাতে ছায়,জনগন স্বয়ং ছোখে সব দেখতেছে,সাংবাদিকরা সব ফোকাস করতেছে,জাতি আজ আওয়ামী বাকসালীদের অত্যাচার থেকে মুক্তি চায়|
আমরা মানছি বঙ্গবন্ধু কন্যাদের গোটা বাংলাদেশ লিখেদিলেও ঋণ শোধ হবেনা। সেদিক থেকে হাসিনাকে গণভবন আর রেহেনাকে ধানমণ্ডির বাসা বরাদ্দ দিয়ে কেড়ে নেয়া শুধু বড় অপরাধই নয়, মহাপাপও!তবে হাসিনা বলুন আর খালেদা বলুন লোভের উর্ধ্বে কেউ নয়। হাসিনা তার সরকারের আমলেই তড়িঘড়ি করে গণভবন লিখে নিয়েছিল, তা কেউ ভুলেনি।খালেদা কিন্তু নিজে লিখে নেয়নি তাকে নিঃশর্তে দান করা হয়েছিল শহীদ জিয়ার স্ত্রী হিসেবে। তখন তার দু'সন্তান নাবালক ছিল। যেমন হাসিনা এখন সেখানে শহীদ সেনা পরিবারের জন্য দু'টো করে ফ্লাট বানিয়ে দান করবেন ঘোষণা দিয়েছেন। এখন পরবর্তী কোন সময় কোন উছিলা করে অথবা আইনের ধোয়া তুলে তাদেরও বের করে দেয়া হবেনা যে তার নিশ্চয়তা কি?দেশে কি আর কোন সমস্যা নাই? নাকি দিন বদলের নামে দিনদিন যে সমস্যা সৃষ্টি হচ্ছে তা সমাধানে ব্যর্থ হয়ে জনগণের দৃষ্টি অন্য দিকে সরাতে চাচ্ছে আওয়ামী লীগ? স্পষ্টতই খালেদা জিয়া বাড়ি ছাড়তে চাইবেনা, বিএনপি প্রতিবাদে পথে নামবে।হাসিনা তখন দেশবাসির উদ্দেশ্যে আঙ্গুল উচিয়ে বলবে দেখ খালেদা জিয়া কত লোভী, দেখ বিএনপি আমাদের দিন বদলের কাজে বাগড়া দিচ্ছে - ওরা জাতীয় শত্রু,ওরা স্বাধিনতা বিরোধী,যত নষ্টের মুল, ওরা ষড়যন্ত্রকারী রোখ ওদের।হাসিনা যে প্রতিহংসার রাজনীতিতে বিশ্বাসী তা আর চাপা থাকছেনা।তারপর বলবে,আমার বাপের দেশ এবার দেশ ছার।খমতার ওপবাবোহার কাকে বোলে?৭৩ এর মতো বাকশাল আবার আসছে ধেয়ে। আমাদের এই প্রাণপ্রিয় দেশের জন্মেই কি কোথাও কোন কলঙ্ক রয়েছে? নইলে এত নোংরা কেন হবে আমাদের রাজনীতি ? অন্যান্য অনেক দেশের রাজনীতিতেও নোংরামি থাকে, কিন্তূ আমাদের দেশের মত উদাহরণ খুব কমই দেখা যায়।
আওয়ামিদের কাজ ষড়যন্ত্র করার মে কে বে করার,এবার সমম্ভব হল|বিডিআর হত্যাকান্ডের মূল ঘটনার মোড় ঘুরানোর। "মন্ত্রিপরিষদের সিদ্ধান্তে সেনানিবাসের বাড়ি খালেদা জিয়া থেকে কেড়ে নেওয়ার মাধ্যমে| ইতিমধ্যে সরকার বিডিআর বিদ্রোহের তদন্তকে ভিন্ন খাতে অথবা প্রকাশিতব্য আশু তদন্ত রিপোর্টকে আমাদের মনের সাথে অভিযোজিত করার কৌশল হিসেবে, অত্যন্ত সংকীর্ণ মানসিকতা থেকেই কেবলমাত্র এধরনের সিদ্ধান্ত নেয়া | শান্তি' চুকতি করার আগে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজে খালেদাকে আওয়ামী-ছাত্রলীগের সন্ত্রাসীরা আকরামন করে ।বি,এন,পি তখন আসল ঘটনা ভুলে আনদোলনে নামে| আওয়ামী সেই সুজুগ কাজে লাগায়, শান্তি' চুকতি করে| এবারো রাজাকার ইসু ,১০ট্যক মামলা , জঙ্গি ইসু নিয়ে মাঠ গরম করে পাবলিকে খেলনা, ভুলল না বিডিআর হত্যাকান্ডের ঘটনা | বরং নিজেদের ঘাড়েই দিন দিন চেপে বসছে,হয়ত এবার নামানো জাবে|কমপককে বি,এন,পি এখন আসল ঘটনা ভুলে খালেদা জিয়ার সেনানিবাসের বাড়ির আনদোলনে মাঠ গরম করিবে |

Comments

Post new comment

  • Allowed HTML tags: <a> <em> <strong> <cite> <code><b><p><h1><h2><h3><ul> <ol> <li> <dl> <dt> <dd><img><object><param><embed>
  • Web page addresses and e-mail addresses turn into links automatically.
  • Lines and paragraphs break automatically.

More information about formatting options

Image CAPTCHA
Enter the characters shown in the image.
Write in Bangla