Ami Bangladeshi

Ami Bangladeshi

Ami Bangladeshi

এদের চালাকি ধরা পড়ে যায়।

হাসিনা এবং তার সরকার পিলখানা ঘটনাকে নোংরা রাজনিতীর দাবার ঘুটি বানাছ্ছে|বিডিয়ার নামক নীরিহ দরিদ্র লোকেরা অলরেডী বুঝে গেছে তারা ব্যবহ্রত হয়েছে|হয়তো সামরিক আইনে এদের বিচার হবে,ফাঁসি হবে কিন্তু তাদের মদদ দানকারীরা, কুচক্রী মহল সবার ধরা ছোয়ার বাইরে থেকে যাবে। অন্যের উপর দোষ চাপানো এটা তাদের পুরোন অভ্যাস। এটাই সরকারের ব্যর্থতা।সরকার উতকাত নয় চিতকাত করার জন্য করিয়েছে! এত বুদ্ধি মাথায় নিয়ে ঘুমান কেমনে?বিডিআর বিদ্রোহের সাথে বিএনপি, জামাত এবং JMB (Jamuna Multipurpose Bridge) জড়িত ছিল তা বুঝা গেল হত্যাকান্ড শেষ করার পর। হত্যাকান্ড চলার সময় আমরা তাদের সহযোগিতা হিসাবে তাদেরকে সাধারন খমা করলাম। হত্যাকান্ড চলাকালে গুলির শব্দকে ভেবেছিলাম ওরা এয়ার গান দিয়ে বেলুনে নিশানা পাক্কা করছে। এখন বিএনপি, জামাত-JMBর পোদার গন্ধ পাওয়া যাছ্ছে। যতসব নাবালকের দল। শত্রু যেই হোক তাকে দমন করার দ্বায়ীত্ব সরকারের। এটাই সরকারের ব্যর্থতা। নিহত সেনা সদস্যদের পরিবারবর্গের অভিমত এই প্রসংগে পত্রিকা মারফৎ তুলেধরলে বিষয়টি পরিষ্কার হবে।
সাংবাদ প্রত্রিকা রিপোটে জানা যায় য়ে সকাল প্রায় ১১টায় কিলিং শুরু হয়, শুরুতে নাকি গোলাবারুদও ছিলোনা। সুতরাং বলা যায়, যদি সেনাবাহিনী ১-২ ঘন্টার মধ্যে আভিযান শুরু করতো তাহলে আনেক আফিসারকে বাচানো যেতো।না।নিহতদের পোড়ানো এবং গণকবরের কাজ বিদ্রোহীরা কখন করলো? প্রথম-দ্বিতীয় দিন সরকারের প্রতিনিধিদল বিডিআর সদর দফতরে যাওয়া আসা করেছে। বিশেষ করে দুই রাতেই স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী তার সহযোগীসহ বিডিআর সদর দফতরে ছিলেন। নিশ্চয়ই তাদের উপস্থিতিতেই লাশ পোড়ানো ও গণকবরের কাজ|ঘটনার দিন্ নানক কি করে বললেন যে-এই চক্রান্তে লাখ লাখ টাকা খরচ করা হয়েছে? তিনি কোন কিছুয় না যেনে কোন তদন্ত না করেই না বুঝেই ঘটনার শেষ না দেখেই কি করে এই মন্তব্য করলেন-সেইটাও বিচারে আনতে হবে।চোরেরে কয় চুরি করো আর জনতা রে কয় ধর ধর?এটাই কি আওয়ামি লিগের পুরনো চাল নয়?এরা নিজেদের খুব চালাক মনে করে কিন্তু আসলে আদতে এরা খুব ই বোকা! এদের চালাকি ধরা পড়ে যায়। ঘটনা-দূর্ঘটনা থেকে নিয়ন্ত্রন না নিয়েই না দেখেই ব্যবস্থা না নিয়েই -যখন নাকি সমানে ভিতরে অফিসার হত্যা চলছে আর তখন বাইরে দাঁড়িয়ে নানক বলে কিনা এটার পিছনে লাক্ষ লক্ষ তাকা খরচ হয়েছহে? এই ভাবে কোন দেশে বিদ্রহ দমন হয় নাই কারন কোন দেশেই এই ভাবে বিদ্রোহিদের সব দাবি মেনে নিয়ে জিম্মিদের হত্যা করার সুযোগ করে দেওয়া হয় নাই |কি হতে পারত এই সব কাল্পনিক চিন্তা করে সেদিন দেশের একদল মেধাবী অফিসারদের মৃত্যুর দিকে ঠেলে দেয়া হয়েছে,২/৩ ঘন্টা ধরে সাহায্যের আশা করে তারা মৃত্যু বরন করলেন।'কি হতে পারত'ভেবে তাদের কি বলি দিলেন?নেত্রীর ভুল স্বীকার করুন মি. ফারুক খান,সবার উপর দল নয়,দেশ।কারা দেশ ধংস করছে তা জনগনের বুঝতে বাকী নেই।সত্য কথা যারা আদান প্রদান করছে তারা দেশের শত্রু নাকি যারা সরাসরি অংশ নিয়ে হত্যাকান্ড চালিয়েছেন তারা শত্রু নাকি যারা ক্ষমতায় থেকে ও না দেখার ভান করে শত শত আর্মি অফিসারের প্রান হরনে সহায়তা করেছেন তারা শত্রু?
টিভিতে দেখলাম স্বজনরা বলেছে রাত 9টা পর্যন্ত তারা সেনা অফিসারদের সাথে কথা বলেছেন সেনারা বাঁচতে চেয়েছেন, এমনকি মেজর শাকিল কে 11টার পরে হত্যা করা হয় যার সাক্ষী বেঁচে যাওয়া সেনারা|অথচ বানিজ্যমন্ত্রী ফারুক খান বল্লেন 25 তারিখ ঘটনার 1 ঘন্টার মধ্যে সকল অফিসারকে হত্যা করা হয় ! বিদ্রোহ শুরু হয় সকাল 9টায় প্রধানমন্ত্রী সকাল 8টার সময় মেজর শাকিলের সাথে যোগাযোগ হয়েছে বলে স্বীকার করেছেন !
সিআইডি বলেছে তারা কোন জংগীগোষ্টীর সংশিষ্টতার প্রমান পায়নি।তদনতকারীরা জংগী কানেকশন না পেলেও হাসিনা,তার চাচাতো ভাই ফারুক এবং বাকশালি সাংবাদিক/লেখকরা জোর করে কানেকশন বানাবেই।ফারুক খান শেখ হাসিনার যোগ্য উত্তরসূরী । কথায় মাশা'ল্লাহ শেখ হাসিনাও ফেল করিয়েছেন । বাচাল এই মন্ত্রী যখন যা ইচ্ছা তাই বলছেন । একবার বলছেন জঙ্গি সম্পৃক্ততা, আরেকবার বলছেন অন্যান্য পক্ষ, এখন আবার বলছেন বিদেশী রাষ্ট্র । যদি বিদেশী রাষ্ট্রই হয়, তবে আরেক বিদেশী রাষ্ট্রের সাহায্য চাওয়া হচ্ছে কেন? তদন্ত শেষ হবার আগেই জড়িতদের সম্পর্কে আগাম বলা কি ঠিক হচ্ছে? আবার কিছুই পরিষ্কাভাবে বলছেন না । এইসব আধো আধো কথা বলে জনমনে বিভ্রান্তি ও আতংক ছড়ানো মোটেই ভাল নয় । এইসব প্রচারনার মাধ্যমে যেন প্রকৃত দোষী ও মূল পরকল্পনকারিদের আড়াল করা না হয় । সরকারই ইচছা করে প্রকৃত ঘটনা ধামাচাপা দিতে একের পর এক অগ্রীম কথা এবং নাটকের জনম দিছছে।হঠাৎ মাঝপথে ফারুককে সমননয় কাররি বানানো এবং তার মাধ্যমে জংগী কানেকশন আবিষকার|
আওয়ামী লীগের ওয়ার্ড কমিশনার রেবের হাতে গ্রেফতারকৃত প্রমান নিয়েই বলছি যে আওয়ামীলীগের স্পষ্ট সনত্রাসী নেতা তোরাব আলী ও তার ছেলে লেদার লিটন-সহ লীগের আনেক নেতাই এই হত্যার মদত দাতা| হাসিনাও তার আত্বীয় ফারুক বলে জংগীরা ঘটনা ঘটাইছে।সে এটা পাইলো কই? তদনত করে?তার দলের লোক তোরাব পুলিশ ধরছে মিছিলে এবং কিলিংএ জড়িত থাকার অভিযোগে।সেও কি জংগী?তওহিদ যাকে হাসিনা মহাপরিচালক বানাইছিলো সেও কি জংগী?সবাই জানে তোরাব আলি আওয়ামিলিগ নেতা তার ছেলে লেদার লিটন ও আওয়ামিলিগ নেতা |তোরাব আলি এখন জেলে বনদি।সে বি ডি আর হত্যা ঘটনায় জড়িত নিজেই পুলিসকে জানিয়েছে।রাজনিতিকরা তাদের হীন স্বার্থ উদ্ধারে এই সব অবান্তর কথা বলে থাকে। এর ফলে বিদেশে আমাদের দেশের সুনাম খুন্ন হয়।

Comments

Post new comment

  • Allowed HTML tags: <a> <em> <strong> <cite> <code><b><p><h1><h2><h3><ul> <ol> <li> <dl> <dt> <dd><img><object><param><embed>
  • Web page addresses and e-mail addresses turn into links automatically.
  • Lines and paragraphs break automatically.

More information about formatting options

Image CAPTCHA
Enter the characters shown in the image.
Write in Bangla