Ami Bangladeshi

Ami Bangladeshi

Ami Bangladeshi

sheikh hasina

বঙ্গবন্ধুর পিত্তথলি অস্ত্রোপচার বনাম বিল কাপালিয়ার বিষের শিশি - চাই কিছু নির্ভাজাল তৈলমর্দন

Sheikh Hasina - Bangladesh
- নিশ্চয় অনেকদিন বাজারমুখী হননি আমাদের প্রধানমন্ত্রী। ঠাকুরগাঁওয়ে দলীয় নেতা কর্মীদের সমাবেশে তিনি এমন সব সাফল্যের দাবি করলেন যার সারমর্ম বিশ্লেষণ করলে এমনটাই প্রতীয়মান হবে। বিএনপি আমলে চালের দর ছিল কেজি প্রতি ৪০ টাকা এবং বর্তমান আওয়ামী সরকারের আমলে একই চাল পাওয়া যাচ্ছে ২৪ হতে ২৬ টাকায়, এমনটাই দাবি করলেন তিনি। এমন সব অলীক ও অবাস্তব দাবির পেছনে অনেক গুলো কারণ থাকতে পারে; প্রথমত, মিথ্যা বলা। রাজনীতিতে মিথ্যা বলা এখন অনেকটাই বৈধ বাস্তবতায় পরিণত হয়েছে। কমবেশি সবাই আশ্রয় নিচ্ছে এই নান্দনিক শিল্পের। তবে এ প্রতিযোগিতায় শীর্ষ স্থান নির্ধারণের জন্যে কাউকে যদি ব্যালট বাক্সে ঠেলে দেয়া হয় প্রধানমন্ত্রী বিজয়ীর বেশ বেরিয়ে আসবেন এ বিষয়ে দ্বিমত করার অবকাশ নেই...

আয়নায় নিজের চেহারা দেখুন জনাবা প্রধানমন্ত্রী

Bangladeshi PM Sheikh Hasina
পাবলিক ফোরামে রুচিহীন কথাবার্তার জন্যে যাকে আদর্শ হিসাবে নেয়া যায় তিনি আমাদের প্রধানমন্ত্রী। খেতাবের আগে পিছে যারা মাননীয়া বলতে অজ্ঞান তাদের যথাযত সন্মান দেখিয়েই বলছি, মেধা, জ্ঞান, প্রজ্ঞা আর যোগ্যতাহীন কাউকে যদি গোয়ালঘর পরিষ্কারের স্থলে কর্পোরেট ব্যবসার চীফ পদে বসানো হয় সে ব্যবসা পথে বসতে বাধ্য। রাজনৈতিক ক্ষমতাও তেমনি একটা পদ। সরকারের প্রধান নির্বাহী হয়ে গত ৩টা বছর যা বলে গেছেন তা প্রধানমন্ত্রী দুরে থাক কোন সূস্থ মানুষের ভাষা হতে পারেনা। দেশের ১৫ কোটি মানুষের সবাইকে যদি তিনি মানসিক রুগী ভেবে থাকেন তাহলে হয়ত অন্য কথা। হীরক রাজ্যে প্রজাদের মত রাজাকেও হতে হয় মগজহীন গরু। এমন রাজ্যে মূর্খ রাজা যা বলেন তা কেবল ইউনিভার্সাল ট্রুথই নয়, বরং লিখিত আইন...

প্রধানমন্ত্রীর মুখের ভাষা ও টাকি মাছের গু ভক্ষণ!

কাঁচা হাতের বাঁকা লেখা যাই লিখি না কেন ইদানিং বেশ কটা ব্লগ আমার লেখা ছাপাতে অনীহা প্রকাশ করছে। আভিযোগ, শব্দের ব্যবহার। প্রথম আলো ব্লগের মত ব্লগ গুলো হয়ত তীর্যক শব্দ সম্বলিত রাজনৈতিক লেখা ছাপিয়ে সরকারী রোষানলে পরতে চাচ্ছে না। তাদের আসরে আমাকে ঢুকতে দিতে এ জন্যেই হয়ত অনীহা। অন্যের ব্লগ আমার পৈত্রিক সম্পত্তি নয়, কার লেখা ছাপবে আর কার লেখা এড়িয়ে চলবে তা একান্তই ব্লগ মালিকদের ব্যাপার। এ নিয়ে অভিযোগ করার মত তেমন কিছু নেই। ইদানিং কারও দিকে সরাসরি আঙুল না তুলে ছ্যারছ্যার আলী নামের কাল্পনিক একটা চরিত্রের জন্ম দিয়ে তাকে সামনে আনার চেষ্টা করছি...

প্রধানমন্ত্রী কি ভয় পেলেন?

Sheikh Hasina - Awami League
মুক্তিযুদ্ধের সপক্ষের শক্তি, জনগণের দল, একমাত্র দল যারা দেশকে পাকিস্তান বানাতে চায়না, দল যারা ধন ধান্যে পুষ্পে ভরিয়ে দেশকে স্বর্গলোকের খুব কাছে নিয়ে যেতে যায় এবং যে দলের নেত্রীত্বে আছেন দেশের ১নং দেশপ্রেমিক তারা কি স্বাধীনতা হাটে ঘাটে বিক্রি করতে চায়, যুদ্ধাপরাধীদের বিচারে বাধা দিতে চায়, দেশকে পাকিস্তান বানাতে চায় ও নির্বাচনে ব্যাপক ভাবে পরাজিত একটা দলের ভয়ে ভীত? ১২ই মার্চ নিয়ে দলটির অসংলগ্ন কথাবার্তা কি তাই প্রমান করেনা? খবরে প্রকাশ সরকারের শীর্ষ পর্যায়ে সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে ঢাকায় ২০ জনের বেশি লোক একত্রিত হলে রাষ্ট্রীয় স্পন্সরে ধাওয়ার করা হবে! এবং এ কাজের নেত্রীত্বে থাকবেন দেশের নির্বাচিত জনপ্রতিনিধিরা। রাজধানীর হোটেল গুলোতে দফায় দফায় পুলিশ হানা দিচ্ছে এবং খুজে...

প্রধানন্ত্রীর ডক্টর মোহাম্মদ ইউনুস প্রকল্প

Bangladeshi Prime Minister
‘এতই যদি মায়া মিনসারে আপনেগো ব্যাংকের প্রধান বানান না কেনে?’
এমন একটা বাংলা বাক্যের উপযুক্ত ইংরেজী অনুবাদ আছে কিনা তা ভাষাবিদরা ভাল বলতে পারবেন। থাকলেও আমাদের অর্ধ শিক্ষিতা প্রধানমন্ত্রীর তা জানা থাকার কথা নয়। জনবহুল একটা দেশের প্রধানমন্ত্রী তিনি, তাই সাক্ষাৎ পেতে দুর দুরান্ত হতে মেহমানরা ছুটে আসেন। স্বভাবতই কথা বলতে হয়, এবং তা করতে হয় ইংরেজীতে। প্রতিপক্ষকে অশালীন ভাষায় ঘায়েল করতে গিয়ে প্রধানমন্ত্রী হয়ত ভুলেই গেছেন সরকার পরিচালনায় মাঝে মধ্যে সুস্থতার প্রয়োজন হয়, ভাল ভাল কথা বলতে হয়। জিন ল্যামবার্ট অন্য একটা মহাদেশের পার্লামেন্টারিয়ান নেতা হিসাবে প্রধানমন্ত্রীর সাথে দেখা করতে এসেছিলেন, বাংলাদেশের মত অসুস্থ রাজনীতির রোগাক্রান্ত পার্লামেন্টের প্রতিনিধি হিসাবে নন...

প্রধানমন্ত্রী, মেঘকে আকাশেই থাকতে দিন

Sheikh Hasina - Bangladesh
বন্যেরা বনে সুন্দরের মত আকাশের মেঘ বোধহয় আকাশেই মানায়। একে মাটিতে নামিয়ে অপবিত্র করার কোন প্রয়োজন আছে বলে মনে হয়না। আকাশ এমনিতেই বড়, উদার ও পবিত্র। খন্ড খন্ড মেঘ রাশির নিথর অথবা অবাধ বিচরণে সে কখনোই বাধা হয়ে দাড়ায় না, বরং বাহু বাড়িয়ে আগলে রাখে। বাষ্পের নিষ্পাপ জরায়ুতে জন্ম নেয়া আকাশের মেঘকে মাটিতে নামিয়ে রাজনীতির দারুচিনি দ্বীপে লালন করলে তা আর মেঘ থাকে না, রূপান্তরিত হয় বিষবাষ্পে। এসব বিষবাষ্পের শেষ যাত্রা কোন গলিতে তা আবিস্কার করতে বেশিদূর না গিয়ে এককালের মেঘ আর চলমান রাজনীতির সাক্ষাৎ যম দূতদের চাঞ্চল্যকর কাহিনী ঘাটলেই যথেষ্ট হবে। এসব নাটক আমরা অনেক দেখেছি। দেখেছি, শিখেছি এবং বীতশ্রদ্ধ হয়েছি। এক সময় দূরের দেশ মার্কিন মুলুকে ইতালিয়ান কোচানষ্ট্রারাও উপহার দিয়েছিল এসব নাটক...

দ্যা ডে আফটার

Sheikh Hasina and her family
বাংলায় একটা কথা আছে, ’অভাবে স্বভাব নষ্ট’। ৫৪ হাজার বর্গমাইল এলাকার ১৫ কোটি (নাকি ১৭?) মানুষ আমরা। অভাবটা এখানে ন্যাচারাল। স্বভাবের নিয়ামক শক্তি যদি অভাব হয় তাহলে আমাদের স্বভাব বৈধ ভাবেই নষ্ট। নষ্টের মুখায়ব দেখতে আজকাল আমাদের আর বাইরে যেতে হয়না, নষ্টই কড়া নাড়ে আমাদের দরজায়। ইচ্ছায় হোক আর অনিচ্ছায় হোক নষ্টকে আমরা বরণ করি এবং মেনে নেই জীবনের অবিচ্ছেদ্য অংশ হিসাবে। নষ্টের বলি হয়ে আমরা প্রাণ হারাচ্ছি। প্রাণ হারাচ্ছি মাঠে, ঘাটে, হাটে, রাস্তায়, বিশ্ববিদ্যালয়ে, সংসদ ভবনে, সীমান্তে। এক কথায় মৃত্যু আমাদের ডাল ভাত। আসল ডাল ভাতের নিশ্চয়তা জটিল হয়ে...

নোবেলের সন্ধানে হীরক রাজ্য ও শেখ হাসিনার শান্তির মডেল

sheikh hasinaআগের টার্মেও চেষ্টা হয়েছিল। রীতিমত জোড়ালো চেষ্টা। নীরবে, নিভৃতে ও রাষ্ট্রের স্পনসরে দেশে বিদেশে ধর্ণা দিয়েছিল সরকারের থিংকট্যাংক প্রতিনিধি দল। শোনা যায় কাজটার সফল সমাপ্তির প্রত্যাশায় উচ্চ পর্যায়ে লবিস্ট পর্যন্ত নিয়োগ দেয়া হয়েছিল। জাতির কপালে তখন দুর্নীতির হ্যাটট্রিক শিরোপা। চারদিকে রাষ্ট্রীয় কোষাগার লুটপাটের মহোৎসব। পকেটে অনন্ত ক্ষুধা আর হায়েনার হিংস্রতা নিয়ে শকুনের মত ঝাপিয়ে রাষ্ট্রকে ভাগার বানিয়ে আহার করছে ক্ষমতাসীন রাজনৈতিক দল। এ কাজে সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে এগিয়ে আসে দেশের আমলা বাহিনী। ব্যক্তিকেন্দ্রিক শাসন ব্যবস্থায় ব্যক্তির সন্তুষ্টিই পৌঁছে দেয় অভীষ্ট রাজনৈতিক লক্ষ্যে এবং পাশাপাশি নিশ্চিত করে রাষ্ট্রীয় কোষাগার হরিলুটের অবাধ স্বাধীনতা। দেশীয় রাজনীতির স্বরলিপি...