Ami Bangladeshi

Ami Bangladeshi

Ami Bangladeshi

Columbia

কলোম্বিয়ার পথে পথে। পর্ব-২

Columbia
রুটিন বিহীন জীবন জানতাম মন্থর হয়। ঘড়ির কাটার সাথে পাল্লা দিয়ে সময় কাটানোর অভ্যাস করতে হয়। কিন্তু সান্তা মার্তার অলস সাতটা দিন কিভাবে চলে গেল বুঝাতে পারলাম না। বিশেষ কোন পরিকল্পনা নিয়ে এখানে আসিনি। শহরে দেখার মতও তেমন কিছু ছিলনা। তাই কোন কিছুতে তাড়া অনুভব করিনি। তাড়া ছিলনা ঘড়ির এলার্মের সাথে বিছানা ছাড়ার, না ছিল রুটিন করে বিছানায় যাওয়ার তাগাদা...

কলোম্বিয়ার পথে পথে। পর্ব-১

Columbia

ইচ্ছে ছিল খুব ভোরে রওয়ানা হয়ে যাব। কিন্তু ঘুম ভাঙ্গতে দেরি হওয়ায় তা আর সম্ভব হলনা। দ্বিতীয় বারের মত ঘটল এমন ঘটনা। আমার মত কর্পোরেট দাসদের জন্য ব্যাপারটা খুব অস্বাভাবিক। কিছুটা অবাক হলেও এ নিয়ে আক্ষেপ করলাম না। বরং মূল উদ্দেশ্য কাজ করছে জেনে ভাল লাগল। জগৎ সংসার হতে কটা দিন নির্বাসনে কাটাবো বলে এদিকে আসা। সাথে মুঠোফোনটা পর্যন্ত আনিনি। কম দামের হাতঘড়িটাও ফেলে এসেছি মিরাফ্লরেস হতে দুই মাইল উত্তরে প্রশান্ত মহাসাগরের বুকে। যদিও গিন্নীর ভাষায় এ ছিল অপ্রয়োজনীয় বিলাসিতা....

ড্রাগ, সুন্দরী আর সাগর পারের দেশ কলোম্বিয়ায়, ৩য় পর্ব

Columbia - South America
এই একটা বাস্তবতা চোখে পরলে ভীষন হিংসে হয়; লাতিনোদের লাইফষ্টাইল! ক্ষুধা, দারিদ্র, রোগ, অনাচার, অবিচার, ড্রাগ, সবই আছে পৃথিবীর এ প্রান্তে, কিন্তু পাশাপাশি জীবনকে উপভোগ করার আছে অন্তহীন ইচ্ছা, আছে প্রতিশ্রুতি। এ ধরনের ইচ্ছার বিরুদ্বে বাধা হয়ে দাঁড়ায় না নিজ নিজ রাষ্ট্র, ধর্ম অথবা যুগ যুগ ধরে বেড়ে উঠা সাংস্কৃতি। রাষ্ট্র ও ধর্মের সাথে বিবর্তনশীল সাংস্কৃতির শান্তিপূর্ণ সহাবস্থানের কারণেই হয়ত লাতিনোদের সামাজিক জীবন পৃথিবীর অন্য যে কোন জীবনের চাইতে বেশী জীবন্ত এবং উপভোগ্য...

ড্রাগ, সুন্দরী আর সাগর পারের দেশ কলোম্বিয়ায়, ২য় পর্ব

লিমা হতে বগোটা ৩ঘন্টার ফ্লাইট। এভিয়েন্‌কা এয়ার লাইন্‌সের লক্কর ঝক্কর মার্কা বিমানটা ঘুড্ডির মত গোত্তা খেতে খেতে উড়ে গেল এন্ডিসের উপর দিয়ে। বগোটার এল ডোরাডো এয়ারপোর্টে ল্যান্ড করার সময় মাথার উপর লাগেজ কেবিন হতে দু’একটা লাগেজ ছিটকে পরল। ভয়বহ আতংকের সৃষ্টি হল কেবিনে। এ সবের সাথে আমার পরিচিতি বহু দিনের, তাই খুব একটা বিচলিত হলামনা অপ্রত্যাশিত টার্বুলেন্সে...

ড্রাগ, সুন্দরী আর সাগর পারের দেশ কলম্বিয়ায় -১ম পর্ব

কথা ছিল এ যাত্রায় ক্যরাবিয়ান দ্বীপপুঞ্জের দেশ ডমিনিকান রিপাবলিক যাব। আমার ঘনিষ্ঠ বন্ধুদের একজন ডমিনিকান, একসাথে নিউ ইয়র্কে অনেকদিন কাজ করেছি। তার মুখে দ্বীপটার বর্ণনা শুনেতে শুনতে কান ঝালাপালা হওয়ার অবস্থা। দূর সস্পর্কের আত্মীয়ের হলিডে রিসোর্টে ডিসকাউন্ট রেটে থাকার ব্যবস্থা করতে পারবে এমন একটা নিশ্চয়তা দিয়ে অনেকদিন ধরেই অনুরোধ করছিল ঘুরে আসার জন্যে। প্ল্যান মাফিক রাজধানী সান্তা ডমিনংগোতে দুটো দিন কাটিয়ে বাকি সময়টা কাটাব পুন্তা কানায় বন্ধুর আত্মীয়ের রিসোর্টে, এভাবেই পরিকল্পনা...