History of Bangladesh

History of Bangladesh We're showing our undivided and comprehensive love for our motherland and going back to its trail of history over and again. 37 years have vanished from our lives as an independent nation, unfortunately, we yet to agree on one version of our history. Every election with new party in power gives us a history which not necessarily same as its predecessor introduced. Please contribute your thoughts about the history of Bangladesh in this online diary.

 

1971 Documentation

Rare video.....

 

7th of March: Sheikh Mujib

A link to valuable documents

http://www.mediafire.com/?ldfdlnr0ztk

Bangladesh: Out of War, a Nation Is Born - Time

by TIME Magazine

Monday, Dec. 20, 1971

JAI Bangla! Jai Bangla!" From the banks of the great Ganges and the broad Brahmaputra, from the emerald rice fields and mustard-colored hills of the countryside, from the countless squares of countless villages came the cry. "Victory to Bengal! Victory to Bengal!" They danced on the roofs of buses and marched down city streets singing their anthem Golden Bengal. They brought the green, red and gold banner of Bengal out of secret hiding places to flutter freely from buildings, while huge pictures of their imprisoned leader, Sheik Mujibur Rahman, sprang up overnight on trucks, houses and signposts. As Indian troops advanced first to Jessore, then to Comilla, then to the outskirts of the capital of Dacca, small children clambered over their trucks and Bengalis everywhere cheered and greeted the soldiers as liberators.

Bangladesh: Out of War, a Nation Is BornThus last week, amid a war that still raged on, the new nation of Bangladesh was born. So far only India and Bhutan have formally recognized it, but it ranks eighth among the world's 148 nations in terms of population (78 million), behind China, India, the Soviet Union, the U.S., Indonesia, Japan and Brazil. Its birth, moreover, may be followed by grave complications. In West Pakistan, a political upheaval is a foregone conclusion in the wake of defeat and dismemberment. In India, the creation of a Bengali state next door to its own impoverished West Bengal state could very well strengthen the centrifugal forces that have tugged at the country since independence in 1947.

The breakaway of Pakistan's eastern wing became a virtual certainty when the Islamabad government launched air strikes against at least eight Indian airfields two weeks ago. Responding in force, the Indian air force managed to wipe out the Pakistani air force in the East within two days, giving India control of the skies. In the Bay of Bengal and the Ganges delta region as well, the Indian navy was in unchallenged command. Its blockade of Chittagong and Chalna harbors cut off all reinforcements, supplies and chances of evacuation for the Pakistani forces, who found themselves far outnumbered (80,000 v. India's 200,000) and trapped in an enclave more than 1,000 miles from their home bases in the West.

There were even heavier and bloodier battles, including tank clashes on the Punjabi plain and in the deserts to the south, along the 1,400-mile border between India and the western wing of Pakistan, where the two armies have deployed about 250,000 men. Civilians were fleeing from the border areas, and residents of Karachi, Rawalpindi and Islamabad were in a virtual state of siege and panic over day and night harassment raids by buzzing Indian planes.

The U.N. did its best to stop the war, but its best was not nearly good enough. After three days of procedural wrangles and futile resolutions, the Security Council gave up; stymied by the Soviet nyets, the council passed the buck to the even wordier and less effectual General Assembly. There, a resolution calling for a cease-fire and withdrawal of Indian and Pakistan forces behind their own borders swiftly passed by an overwhelming vote of 104 to 11.

The Pakistanis, with their armies in retreat, said they would honor the ceasefire provided India did. The Indians, with victory in view, said they "were considering" the ceasefire, which meant they would stall until they had achieved their objective of dismembering Pakistan. There was nothing the assembly could do to enforce its will. There was considerable irony in India's reluctance to obey the U.N. resolution in view of New Delhi's irritating penchant in the past for lecturing other nations on their moral duty to do the bidding of the world organization. Similarly the Soviet Union, which is encouraging India in its defiance, has never hesitated to lecture Israel on its obligation to heed U.N. resolutions calling for withdrawal from Arab territories.

Hopeless Task

In any case, a cease-fire is not now likely to alter the military situation in the East. As Indian infantrymen advanced to within 25 miles of Dacca late last week and as reports circulated that 5,000 Indian paratroopers were landing on the edges of the beleaguered eastern capital, thousands fled for fear that the Pakistani army might decide to make a pitched stand. Daily, and often hourly, Indian planes strafed airports in Dacca, Karachi and Islamabad. Some 300 children were said to have died in a Dacca orphanage when a piston-engine plane dropped three 750-lb. bombs on the Rahmat-e-Alam Islamic Mission near the airport while 400 children slept inside. Earlier in the week, two large bombs fell on workers' shanties near a jute mill in nearby Narayan-ganj, killing 275 people.

Forty workers died and more than 100 others were injured when they were caught by air strikes as they attempted to repair huge bomb craters in the Dacca airport runway. India declared a temporary moratorium on air strikes late last week so that the runway could be repaired and 400 U.N. relief personnel and other foreigners could be flown out. It was repaired, but the Pakistanis changed their mind and refused to allow the U.N.'s evacuation aircraft to land at Dacca, leaving U.N. personnel trapped as potential hostages. The International Red Cross declared Dacca's Intercontinental Hotel and nearby Holy Family Hospital "neutral zones" to receive wounded and provide a haven for foreigners.

For its part, the Pakistani army was said to have killed some Bengalis who they believed informed or aided the Indian forces. But the reprisals apparently were not on a wide scale. Both civilian and military casualties were considered relatively light in East Bengal, largely because the Indian army skirted big cities and populated areas in an effort to avoid standoff battles with the retreating Pakistani troops.

The first major city to fall was Jessore. TIME'S William Stewart, who rode into the key railroad junction with the Indian troops, cabled: "Jessore, India's first strategic prize, fell as easily as a mango ripened by a long Bengal summer. It shows no damage from fighting. In fact, the Pakistani 9th Division headquarters had quit Jessore days before the Indian advance, and only four battalions were left to face the onslaught.

"Nevertheless, two Pakistani battalions slipped away, while the other two were badly cut up. The Indian army was everywhere wildly cheered by the Bengalis, who shouted: 'Jai Bangla!' and 'Indira Gandhi Zindabad! [Long Live Indira Gandhi!].' In Jhingergacha, a half-deserted city of about 5,000 nearby, people gather to tell of their ordeal. The Pakistanis shot us when we didn't understand,' said one old man. 'But they spoke Urdu and we speak Bengali.' "

Death Awaits

By no means all of East Bengal was freed of Pakistani rule last week. Pakistani troops were said to be retreating to two river ports, Narayanganj and Barisal, where it was speculated they might make a stand or alternatively seek some route of escape. They were also putting up a strong defense in battalion-plus strength in three garrison towns where Indian forces reportedly had encircled them. The Indians have yet to capture the major cities of Chittagong and Dinajpur. Neither army permitted newsmen unreserved access to the contested areas, but on several occasions the Indian military command did allow reporters to accompany its forces. The three pronged Indian pincer movement, however, moved much more rapidly than was earlier believed possible. Its success was largely attributed to decisive air and naval support.

Demoralized and in disarray, the Pakistani troops were urged to obey the "soldier to soldier" radio call to surrender, repeatedly broadcast by Indian Army Chief of Staff General Sam Manekshaw. "Should you not heed my advice to surrender to my army and endeavour to escape," he warned, "I assure you certain death awaits you." He also assured the Pakistanis that if they surrendered they would be treated as prisoners of war according to the Geneva convention. To insure that the Mukti Bahini would also adhere to the Geneva code, India officially put the liberation forces under its military command.

Pakistani prisoners were reported surrendering in fair numbers. But many others seemed to be fleeing into the countryside, perhaps in hopes of finding escape routes disguised as civilians. "In some garrison towns stout resistance is being offered," said an Indian spokesman, "and though the troops themselves wish to surrender, they are being instructed by the generals: 'Gain time. Something big may happen. Hold on.' " He added sarcastically that the only big thing that could happen was that the commanders of the military regime in East Pakistan might pull a vanishing act.

All week long, meanwhile, the Pakistani regime kept up a running drumfire about Pakistan's jihad, or holy war, with India. An army colonel insisted there were no Pakistani losses whatsoever on the battlefield. His reasoning: "In the pursuit of jihad, nobody dies. He lives forever." Pakistan radio and television blared forth patriotic songs such as All of Pakistan Is Wide Awake and The Martyr's Blood Will Not Go Wasted. The propaganda was accompanied by a totally unrealistic picture of the war. At one point, government spokesmen claimed that Pakistan had knocked out 123 Indian aircraft to a loss of seven of their own, a most unlikely kill ratio of nearly 18 to l. Islamabad insisted that Pakistani forces were still holding on to the city of Jessore even though newsmen rode into the city only hours after its liberation.

Late last week, however. President Agha Mohammed Yahya Khan's gov ernment appeared to be getting ready to prepare its people for the truth: the East is lost. An official spokesman admitted for the first time that the Pakistani air force was no longer operating in the East. Pakistani forces were "handicapped in the face of a superior enemy war machine," he said, and were outnumbered six to one by the Indians in terms of men and materiel—a superiority that seemed slightly exaggerated.

Sikhs and Gurkhas

As the fate of Bangladesh, and of Pakistan itself, was being decided in the East, Indian and Pakistani forces were making painful stabs at one another along the 1,400-mile border that reaches from the icy heights of Kashmir through the flat plains of the Punjab down to the desert of western India. There the battle was being waged by bearded Sikhs wearing khaki turbans, tough, flat-faced Gurkhas, who carry a curved knife known as a kukri in their belts, and many other ethnic strains. Mostly, the action was confined to border thrusts by both sides to straighten out salients that are difficult to defend.

The battles have pitted planes, tanks, artillery against each other, and in fact both materiel losses and casualties appear to have run far higher than in the east. Most of the sites were the very places where the two armies slugged it out in their last war in 1965. Yet there were no all-out offensives. The Indian army's tactic was to maintain a defensive posture, launching no attacks except where they assisted its defenses.

Old Boy Attitude

The bloodiest action was at Chhamb, a flat plateau about six miles from the cease-fire line that since 1949 has divided the disputed Kashmir region almost equally between Pakistan and India. The Pakistanis were putting up "a most determined attack," according to an Indian spokesman, who admitted that Indian casualties had been heavy. But he added that Pakistani casualties were heavier. The Pakistanis' aim was to strike for the Indian city of Jammu and the 200-mile-long Jammu-Srinagar highway, which links India with the Vale of Kashmir. The Indians were forced to retreat from the west bank of the Munnawar Tawi River, where they had tried desperately to hold on.

Except for Chhamb and other isolated battles, both sides seemed to be going about the war with an "old boy" attitude: "If you don't really hit my important bases, I won't bomb yours." Behind all this, of course, is the fact that many Indian and Pakistani officers, including the two countries' commanding generals, went to school with one another at Sandhurst or Dehra Dun. India's commanding general in the east, Lieut. General Jagjit Singh Aurora, was a classmate of Pakistan's President Yahya. "We went to school together to learn how best to kill each other," said one Indian officer.

"To an outsider," TIME'S Marsh Clark cabled after a tour of the western front, "the Indian army seemed precise, old-fashioned and sane. The closer you get to the front, the more tea and cookies you get,' one American correspondent complained. But things get done. Convoys move up rapidly, artillery officers direct their fire with dispatch. Morale is extremely high, and Indian officers always refer to the Pakistanis, though rather condescendingly, as 'those chaps.' "

Abandoned Britches

On a visit to Sehjra, a key town in a Pakistani salient that pokes into Indian territory east of Lahore where Indian troops have been advancing, Clark found turbaned men working in the fields while jets flew overhead and artillery sounded in the distance. "There are free tea stalls along the road," he reported, "and teenagers throw bags of nuts, plus oranges and bananas, into the Jeeps carrying troops to the front, and shout encouragement. When our Jeep stops, kids surround it and yell at us, demanding that we write a story saying their village is still free and not captured, as claimed by Pakistani radio.

"As we come up on the border, the Indian commander receives us. He recounts how his Gurkha soldiers kicked off the operation at 9 o'clock at night and hit the well-entrenched Pakistanis at midnight. I think we took them by surprise,' he says, and an inspection of the hooch of the Pakistani area commanding officer confirms it. On his bed is a suitcase, its confusion indicating it was hastily packed. There are several shirts, some socks. And his trousers. Nice trousers of gray flannel made, according to the label, by Mr. Abass, a tailor in Rawalpindi. The colonel, it is clear, has departed town and left his britches behind."

South of Sehjra, Indian armored units have been plowing through sand across the West Pakistan border, taking hundreds of square miles of desert and announcing the advance of their troops to places that apparently consist of two palm trees and a shallow pool of brackish water. Among the enemy equipment reported captured: several camels. The reason behind this rather ridiculous adventure is the fear that Pakistan will try to seize large tracts of Indian territory to hold as ransom for the return of East Bengal. That now seems an impossibility with Bangladesh an independent nation, but India wants to have land in the west to bargain with.

The western part of India is on full wartime alert. All cities are completely blacked out at night, fulfilling, as it were, Prime Minister Indira Gandhi's warning that it would be a "long, dark

December." Air raid sirens wail almost continuously. During one 15-hour period in the Punjab, there were eleven airraid alerts. One all-clear was sounded by the jittery control room before the warning blast was given. The nervousness, though, was justified: two towns in the area had been bombed with a large loss of life as Pakistani air force planes zipped repeatedly across the border. Included in their attacks was the city of Amritsar, whose Golden Temple is the holiest of holies to all Sikhs. At Agra, which was bombed in the Pakistanis' first blitz, the Taj Mahal was camouflaged with a forest of twigs and leaves and draped with burlap because its marble glowed like a white beacon in the moonlight.

The fact that India is not launching any major offensives in the western sector suggests that New Delhi wants to keep the war there as uncomplicated as possible. Though the two nations have tangled twice before in what is officially called the state of Jammu and Kashmir, neither country has gained any territory since the original cease fire line was drawn in 1949. There are several reasons why New Delhi is not likely to try to press now for control of the disputed area.

The first is a doubt that the people of Azad Kashmir, as the Pakistani portion is called, would welcome control by India; in that case, India could be confronted with an embarrassing uprising.

The second reason is that in 1963, shortly after India's brief but bloody war with China, Pakistan worked out a provisional border agreement with Peking ceding some 1,300 sq. mi. of Kashmir to China. Peking has since linked up the old "silk route" highway from Sinkiang province to the city of Gilgit in Pakistani Kashmir with an all-weather macadam motor highway running down to the northern region of Ladakh near the cease-fire line. Should Indian troops get anywhere near China's highway or try to grasp its portion of Kashmir, New Delhi could expect to have a has sle with Peking on its hands.

Constant Harassment Pakistan, on the other hand, has much to gain if it can wrest the disputed province, particularly the lush and fabled Vale, from Indian control. Strategically, the region is extremely important, bor dering on both China and Afghanistan as well as India and Pakistan. More over, Kashmir's population is predominantly Moslem.

Still, the war was also beginning to take its toll on the people of West Pakistan. " The almost constant air raids over Islamabad, Karachi and other cities have brought deep apprehension, even panic," TIME'S Louis Kraar cabled from Rawalpindi. "It is not massive bombing, just constant harassment — though there have been several hundred civilian casualties. Thus when the planes roar overhead, life completely halts in the capital and people scurry into trenches or stand in doorways with woolen shawls over their heads, ostrichlike. Be cause of the Kashmir mountains, the radar in the area does not pick up Indian planes until they are about 15 miles away.

"Pakistanis have taken to caking mud all over their autos in the belief that it camouflages them from Indian planes. In nightly blackouts, the road traffic moves along with absolutely no lights, and fear has prevailed so com pletely over common sense that there has probably been more bloodshed in traffic accidents than in the air raids. The government has begun urging motorists only to shield their lights, but peasants throw stones at any car that keeps them on. In this uneasy atmosphere, Pakistani antiaircraft gunners opened up on their own high-flying Sabre jets one evening last week. At one point, the military stationed an antiaircraft ma chine gun atop the Rawalpindi Inter continental Hotel, but guests convinced them it was dangerous."

Soviet Airlift In New Delhi, the mood was not so much jingoism as jubilation that India's main goal — the establishment of a government in East Bengal that would en sure the return of the refugees — was ac complished so quickly. There was little surprise when Prime Minister Gandhi announced to both houses of Parliament early last week that India would become the first government to recognize Bangladesh. Still, members thumped their desks, cheered loudly and jumped in the aisles to express their delight. "The valiant struggle of the people of Bangladesh in the face of tremendous odds has opened a new chapter of heroism in the history of freedom movements," Mrs. Gandhi said. "The whole world is now aware that [Bangladesh] reflects the will of an overwhelming majority of the people, which not many governments can claim to represent."

There was little joy in New Delhi, however, over the Nixon Administration's hasty declaration blaming India for the war in the subcontinent, or over U.N. Ambassador George Bush's remark that India was guilty of "aggression" (see box). Indian officials were also reported shocked by the General Assembly's unusually swift and one-sided vote calling for a cease-fire and withdrawal of troops.

Call for Armaments

Meanwhile, there was still the danger that other nations could get involved. Pakistan was reported putting pressure on Turkey, itself afflicted with internal problems, to provide ships, tanks, bazookas, and small arms and ammunition. Since Turkey obtains heavy arms from the U.S., it would be necessary to have American approval to give them to Pakistan. There was also a report that the Soviet Union was using Cairo's military airbase Almaza as a refueling stop in flying reinforcements to India. Some 30 giant Antonov-12 transports, each capable of carrying two dismantled MIGs or two SAM batteries, reportedly touched down last week. The airlift was said to have displeased the Egyptians, who are disturbed over India's role in the war. For its part, Washington stressed that its SEATO and CENTO treaties with Pakistan in no way bind it to come to its aid.

If the Bangladesh government was not yet ensconced in the capital of Dacca by week's end, it did appear that its foundations had been firmly laid. As Mrs. Gandhi said in her speech to Parliament, the leaders of the People's Republic of Bangladesh—as the new nation will be officially known —"have proclaimed their basic principles of state policy to be democracy, socialism, secularism and establishment of an egalitarian society in which there would be no discrimination on the basis of race, religion, sex or creed. In regard to foreign relations, the Bangladesh government have expressed their determination to follow a policy of nonalignment, peaceful coexistence and opposition to colonialism, racialism and imperialism."

Bangladesh was born of a dream twice deferred. Twenty-four years ago, Bengalis voted to join the new nation of Pakistan, which had been carved out of British India as a Moslem homeland. Before long, religious unity disintegrated into racial and regional bigotry as the autocratic Moslems of West Pakistan systematically exploited their Bengali brethren in the East. One year ago last week, the Bengalis thronged the polls in Pakistan's first free nationwide election, only to see their overwhelming mandate to Mujib brutally reversed by West Pakistani soldiers. That crackdown took a terrible toll: perhaps 1,000,000 dead, 10 million refugees, untold thousands homeless, hungry and sick.

The memories are still fresh of those who died of cholera on the muddy paths to India, or suffered unspeakable atrocities at the hands of the Pakistani military. And there are children, blind and brain-damaged, who will carry the scars of malnutrition for the rest of their lives. As a Bangladesh official put it at the opening of the new nation's first diplomatic mission in New Delhi last week: "It is a dream come true, but you must also remember that we went through a nightmare."

Economic Prospects

How stable is the new nation? Economically, Bangladesh has nowhere to go but up. As Pakistan's eastern wing, it contributed between 50% and 70% of that country's foreign exchange earnings but received only a small percentage in return. The danger to East Bengal's economy lies mainly in the fact that it is heavily based on jute and burlap, and synthetic substitutes are gradually replacing both. But if it can keep all of its own foreign exchange, as it now will, it should be able to develop other industries. It will also open up trade with India's West Bengal, and instead of competing with India, may frame joint marketing policies with New Delhi. India also intends to help with Bangladesh's food problems in the next year.

One of the main conditions of India's support is that Bangladesh organize the expeditious return of the refugees and restore their lands and belongings to them. The Bangladesh government is also intent on seeking war reparations from Pakistan if possible.

What of West Pakistan? The loss of East Pakistan will no doubt be a tremendous blow to its spirit and a destabilizing factor in its politics. But the Islamabad regime, shorn of a region that was politically, logistically and militarily difficult to manage and stripped down to a population of 58 million, may prove a much more homogeneous unit. In that sense, the breakup could prove to be a blessing in disguise. Both nations, moreover, might be expected to get considerable foreign aid to help them back onto their feet.

Leadership Vacuum

Last week Yahya announced the appointment of a 77-year-old Bengali named Nurul Amin as the Prime Minister-designate for a future civilian government, to which he has promised to turn over some of his military regime's power. Amin figured in last December's elections, which precipitated the whole tragedy. In those elections Mujib's Awami League won 167 of the 169 Assembly seats at stake; Amin, an independent who enjoyed prestige as an elder statesman, won one of the two others. But he is essentially a figurehead, and former Foreign Minister Zulfikar All Bhutto was appointed his deputy, which means that he will probably have the lion's share of the power. That may come sooner than expected. There were reports last week that Yahya's fall from power may be imminent. Bhutto is a contentious, pro-Chinese politician who was instrumental in persuading Yahya in effect to set aside the results of the election and to keep Mujib from becoming Prime Minister of Pakistan.

Bangladesh's main difficulty is apt to come from a leadership vacuum should Yahya refuse to release Mujib, the spellbinding leader who has led the fight for Bengali civil liberties since partition. All of the Awami Leaguers who formed the provisional government of Bangladesh in exile last April are old colleagues of Mujib's and have grown accustomed to handling responsibilities since he went to prison. But running a volatile war-weakened new nation is considerably more difficult than managing a political party. The trouble is that none of them have the tremendous charisma that attracted million-strong throngs to hear Mujib. The top leaders, all of whom won seats in the aborted National Assembly last December by overwhelming margins, are: — Syed Nazrul Islam, 46, acting President in the absence of Mujib, a lawyer who frequently served as the Sheik's deputy in the past. He was active in the struggle against former President Ayub Khan, and when Mujib was thrown in jail, he led the party through the crisis.

Tajuddin Ahmed, 46. Prime Minister, a lawyer who has been a chief organizer in the Awami League since its founding in 1949. He is an expert in economics and is considered one of the party's leading intellectuals. — Khandakar Moshtaque Ahmed, 53, Foreign Minister, a lawyer who was active in the Indian independence movement and helped found the Awami League.

The most immediate problem is to prevent a bloodbath in Bangladesh against non-Bengalis accused of collaborating with the Pakistani military. Toward this end. East Bengal government officials who chose to remain in Bangladesh through the fighting are being inducted into the new administration and taking over as soon as areas are liberated. Actually, India's recognition came earlier than planned. One reason was to circumvent a charge reportedly budding in the U.N. that India had joined the battle to annex the province to India. Another was to enable the Bangladesh government to assume charge as soon as large chunks of territory were liberated by the army. Since New Delhi does not want to be accused of having exchanged West Pakistani colonialism for Indian colonialism, it is expected to lean over backward to let the Bangladesh government do things its way.

The Walk Back

Is there any chance that the Pakistanis may yet engineer a startling turn of the tide, rout the Indians from the East and destroy the new nation in its infancy? Virtually none. As Correspondent Clark cabled: "Touts who are betting on the outcome between India and Pakistan might ponder the fact that two of the TIME correspondents who were visiting Pakistan this week [Clark in the West, Stewart deep in the East] were there with Indian forces."

And so at week's end the streams of refugees who walked so long and so far to get to India began making the long journey back home to pick up the threads of their lives. For some, there were happy reunions with relatives and friends, for others tears and the bitter sense of loss for those who will never return. But there were new homes to be raised, new shrines to be built, and a new nation to be formed. The land was there too, lush and green.

"Man's history is waiting in patience for the triumph of the insulted man," Rabindranath Tagore, the Nobel-prizewinning Bengali poet, once wrote. Triumph he had, but at a terrible price. With the subcontinent at war, and the newborn land still wracked by bone-shattering poverty, the joy in Bangladesh was necessarily tempered by sorrow.

*Pakistan claimed the plane was India's. Some Bengalis and foreign observers believed it was Pakistani, but other observers pointed out that the only forces known to be flying piston-engined aircraft were the Mukti Bahini, the Bengali liberation forces.

 

http://www.time.com/time/printout/0,8816,878969,00.html

 

Document

History speaks itself

In Crime Zone

Justice for Bangladesh

Roots

The Bangali Genocide, 1971 The Bangali Holocaust

Genocide

London, 6/13/71). The Sunday Times....."The Government's policy for East Bengal was spelled out to me in the Eastern Command headquarters at Dacca. It has three elements:

1. The Bengalis have proved themselves unreliable and must be ruled by West Pakistanis;
2. The Bengalis will have to be re-educated along proper Islamic lines. The - Islamization of the masses - this is the official jargon - is intended to eliminate secessionist tendencies and provide a strong religious bond with West Pakistan;
3. When the Hindus have been eliminated by death and fight, their property will be used as a golden carrot to win over the under privileged Muslim middle-class. This will provide the base for erecting administrative and political structures in the fu ture."

According to New York Times (3/28/71) 10,000 people were killed; New York Times (3/29/71) 5,000-7,000 people were killed in Dhaka; The Sydney Morning Herald (3/29/71) 10,000 - 100,000 were killed; New York Times (4/1/71) 35,000 were killed in Dhaka. There is only one word for this: genocide.

These figures tell you the seriousness of the situation created by the Pakistani army. Although the actual figure may be never known. Number of Bengalis slaughtered by the Pakistani army during different periods of 1971. The list is as follows:
Who reported When reported Number in millions
The Baltimore Sun 5/14/71 0.5
The Momento, Caracas 6/13/71 0.5 - 1.0
Washington Daily News 6/30/71 0.2
World Bank Report June, 71 0.2
Die Zeit, Bonn 7/9/71 0.5
New York Times 7/14/71 0.20 - 0.25
Wall Street Journal 7/23/71 0.2 - 1.0
The Christian Sci. Mon. 7/31/71 0.25 - 1.00
Newsweek 8/2/71 0.25
Time 9/2/71 0.2 - 1.0
Newsweek 3/27/72 1.5
National Geographic Sept. 1972 3.0
The Refugee Situation

[Refugees]

According to National Geographic (Sept. 1972), the estimated number of Bangladeshi refugees was 10.0 million. According to the Indian government the number of refugees was 8.3 million (8/31/71). Other sources:
Who reported When reported Number in millions
Washington Daily News 6/30/71 6.0
Die Zeit 7/9/71 6.0
New York Times 7/14/71 6.0
St. Louis Post-Dispatch 8/1/71 6.5
Newsweek 8/2/71 7.5
Time 9/2/71 7.5
Sen. Kennedy 8/15/71 12.0
The UN in Bangladesh 1972 10.0
Newsweek 3/27/72 10.0

I hope you do understand the difficulties involved in estimating the total number of refugees. It is clear that by end of Aug., 1971, the number of refugees was around 6-7 million. By the middle of Dec., the number reached 10 million. Also, a large number of people were displaced within the country, estimated number was around 20 million (The UN in Bangladesh).[The United Nations in Bangladesh -- Thomas W. Oliver, Reports Officer at UNROD/UNROB headquarters in 1973.UNROD.United Nations Relief Operations in Dhaka. UNROB. United Nations Relief Office in Bangladesh.]
http://www.virtualbangladesh.com/history/holocaust.html

The Concert for Bangladesh, forgotten chapter of our history

The Concert for Bangladesh was the first benefit concert of its kind in that it brought together an extraordinary assemblage of major artists collaborating for a common humanitarian cause - setting the precedent that music could be used to serve a higher cause.

“Hailing from Bengal, my heart went out to the Bengali speaking people of Bangladesh and it was natural for me to reach out and want to help the refugees and the hundreds of thousands of little children. I expressed my concern to George Harrison. He knew about the turmoil of my mind and a concert to raise funds was initiated. An enormous amount of money was collected and this could never have been achieved without the help of dear George. What happened is now history: it was one of the most moving and intense musical experiences of the century.

Again and again I am asked which concerts stand out in my memory, and it is very difficult to remember all the prominent ones as my career spans over seventy-five years of performances; but the Concert for Bangladesh was very significant to me as the conception of the idea came from me and the people needing aid were very close to my heart; some of them, of course, being distantly related to me. Ali Akbar Khan and Alla Rakha joined me on stage for the first half and George Harrison played the second half, joined by other eminent musicians including Bob Dylan and Eric Clapton. George closed the concert with "Bangla Desh," the special song he wrote for the occasion. As a result, overnight the name of the country Bangladesh came to be known all over the world. Millions of dollars were raised and given to UNICEF who distributed milk, blankets and clothes to refugees. It touches my heart very deeply to know that this event is not to be forgotten, and that with the re-release of the film and the album people in Bangladesh will continue to be helped. I am sure that the music of this electrifying concert of 1971 will move the listeners even today”. - Ravi Shankar June 05

After being made aware of the gravity of the situation in what was then known as East Pakistan by friend and musician Ravi Shankar, Harrison quickly organised two performances in their aid, in addition to composing and releasing a single called "Bangladesh" just preceding the event. With Harrison, highly popular following the success of All Things Must Pass, leading the shows, he wanted to surround himself with his closest musician friends, including Eric Clapton and Bob Dylan (both of whom were in reclusive states at that time), in addition to Billy Preston, Badfinger, Leon Russell, Shankar, and Ringo Starr, among others. Both John Lennon and Paul McCartney had been asked by Harrison to join, but McCartney felt it was too soon for a Beatles reunion and declined. Lennon was keen to take part, but recanted his acceptance after Harrison stated that he did not want Lennon's wife, Yoko Ono, to take part in the concert.

The two concerts on 1 August 1971 were highly successful, with a cheque for US$243,418.50 being immediately sent to UNICEF for relief. All involved were pleased with a job well done.[1] As much as $15 million was made by the album and film, but the money was held in an Internal Revenue Service escrow account for years because the concert organisers hadn't applied for tax-exempt status. It's uncertain how much money actually went to relieve the initial refugee crisis and Harrison himself was said to have been "disgusted" over the matter.[2][3] - Wikipedia

The Concert For Bangladesh, Released: 1972 The Concert for Bangladesh is rock reaching for its manhood. Under the leadership of George Harrison, a group of rock musicians recognized, in a deliberate, self-conscious, and professional way, that they have responsibilities and went about dealing with them seriously:

My friend came to me, With sadness in his eyes, He told me that he wanted help, Before his country died, Although I couldn't feel the pain, I knew I'd have to try, Now I'm asking all of you, To help us save some lies...

Heard at the end of the album, during the concert's single greatest performance by all concerned, the simplicity of the lyrics takes on a new and powerful force. For by then they are no longer an expression of intent but of an accomplished mission help has been given, people have been reached, an effort has been made and results will be felt. With such names as Eric Clapton, Ringo Starr, Billy Preston, Leon Russell, and finally, Bob Dylan, involved, the concert would have been an enormous success no matter how it was planned or run. But part of the record's beauty is that Harrison staged a concert worthy of his purpose in every respect. With such an array of talent on hand, he created a program that miraculously avoided comparisons with any previous super-shows by staging it not as a collection of individual performances or fixed sets, but as a revue. His presence throughout undermined from the beginning the superstar quality of the evening and put the emphasis on the concert as a fraternal gathering of musicians devoted to a single charitable purpose. Seen in that light, his introduction of Ravi Shankar at the beginning of the concert is particularly moving, as is the inclusion of a full side of Ravi's music. George's personal intentions resonate when he begins his own performance with "Wah-Wah," a simple statement by a musician who knows who he is and what he wants to play. "My Sweet Lord" and "Awaiting on You All" have a rough quality to them characteristic of most of George's performances on the albums. His efforts, with the exception of "Here Comes the Sun," are production numbers that required the articipation of all the musicians. It is no wonder that on one number the chorus is noticeably off-key, or that on another the guitars occasionally clash with each other. More important than any technical imperfections that remain in the performance was George's decision not to tamper with the original tapes. By the end of the performances on side two we feel fully in the middle of a true musical experience. George's songs had already been heard once in perfect productions either on Beatle albums or on All Things Must Pass. I don't mind it all being a little rough around the edges when the quality of the music runs this deep. On "Awaiting On You All" it is exhilarating to hear his voice clearly singing the song for the first time, likewise the excellent guitar. And it is great to have a version of "My Sweet Lord" in which the emphasis is on the voice, words, and guitar, instead of on the sound as a whole.

Acutely aware of the need for pacing, if he was to remain on stage for the entire rock program, George introduces two individual performers. Billy Preston's turn on "That's The Way God Planned It" is sheer delight. The song is beautiful and while some of its musical force is lost at the end, when Preston was too busy playing with the song visually to sustain his vocal, it nonetheless remains one of the true highpoints of the album. Ringo's "It Don't Come Easy," on the other hand, is great just because it is Ringo being totally real. It is thoroughly to his credit that he did not overdub a new vocal on this track. He sings the song off-key, awkwardly, but with tremendous good-nature and humor and his performance contributes immeasurably to creating the mood of the evening. It is, like almost everything on the album, honest. "Beware of Darkness" and "While My Guitar Gently Weeps" features George with two other talents, Leon Russell and Eric Clapton respectively. The vocal duet on the former comes as a terrific surprise, one of the concert's best-balanced moments musically, a performance of almost stately proportions. Eric Clapton receives the largest applause the line-up and he then duets on guitar with George on a driving version of "While My Guitar Gently Weeps." The song remains possible the best that George has written. Eric's performance on guitar only reminds us how inactive he has been lately and how much so many of his admirers would like to see him contributing again. His last album, Layla, was surely his best and one can only hope that he will pick up where he left off soon.

To me, Leon Russell's performance represents the one incongruous note in the program. Part of the brilliance of the concert is, first, hearing so many people who we are not used to hearing live at all, and, secondly, hearing musicians we have always admired playing with each other on stage for the first time. With the exception of Russell, nobody did a piece from their live sets in most instances because the artist doesn't do regular live performances. It was all something fresh, original, and unexpected. While Leon's music here is as dazzling as ever, during his set the concert suddenly became a Leon Russell show and I have heard that before. Good as his actual performance is, his conception of the role was too commonplace for an event as special as this.

George's capacity for pacing and timing is nowhere better illustrated than in his next move. Following the high's of Russell's rock performance, he had the stage completely cleared so that when he introduced the next guest there would be no need for further delay. He then went into an acoustic performance of an enormous Beatle hit, thereby accomplishing two things: he brought the level of the music down from full-scale rock to a quiet, acoustic sound and he did it without losing his audience for a second due to his brilliant choice of song, "Here Comes the Sun," to which he gives a superb performance, with the assistance of that excellent Apple band, Badfinger. All of which led perfectly into Bob Dylan's performance. The 17 minutes of music he offers us here is certainly the best he has released in recent years. While conceived of as a special sort of greatest hits performance, the selection of tunes was merely a vehicle for Dylan to exhibit another new vocal style a style so rich and perfectly suited to him I can't help wondering why he immediately changed it again when he recorded the new material for Bob Dylan's Greatest Hits, Vol. 2. The performances are all great but "Just Like a Woman" sung with a sort of fierce, personal, but musical, determination is surely the best of it, one of the two or three great moments on the set as a whole. And of course, how does one come back out after a set by Dylan that literally takes the roof off of the Garden, but with another enormous Beatle hit: And so George offers up a superb version of "Something" and then he is gone and back with what is again, for me, the album's most meaningful moment, the group performance of "Bangladesh."

Besides everything else, Bangladesh was a great show, brilliantly put together by an artist who not only knew how to assemble a lot of great musicians but had an instinctive feeling for how best to present them and their music with honesty, dignity, and maturity. The total effect was that the event did justice to everyone connected with it. The idea of an enjoyable rock show as a vehicle for aiding starving refugees never becomes incongruous precisely because both musicians and audience conduct themselves with such self-respect. In particular, George Harrison emerges, from the introductory remarks to Ravi Shankar's set to the closing of "Bangladesh," as a man with a sense of his own worth, his own role in the place of things, and as a man prepared to face reality openly and with a judgement and maturity with few parallels among his peers. As much as the music contained within the package, the spirit he creates through his own demeanor is inspirational. From the personal point of view, Concert for Bangladesh was George's moment. He put it together; and he pulled it off, and for that he deserves the admiration of all of us. - Jon Landau, Rolling Stone, 2/3/72.

He knew what he should do and he went out and did it. The result was the first, and perhaps the greatest, concert-for-a-cause ever staged.

===================================================

By Bill McKibben Dec. 1, 2001 | In Dhaka, the sprawling capital of Bangladesh, a small museum on a quiet side road commemorates the country's war of liberation -- a war that, though now dimly remembered, stands among the greatest genocides of the 20th century. The museum houses a numbing collection of tragic artifacts from that 1971 conflict -- shirts and sandals of some of the nearly 3 million Bengalis the Pakistani government managed to kill in their convulsive yearlong campaign to retain control over the eastern portion of their country. Maps of mass graves were left behind by the Pakistanis, who then as now enjoyed the patronage of America, in this case because Henry Kissinger thought they were geopolitically significant. Oh, and hanging on the wall of the museum is an LP jacket, and inside it the record of a fundraising concert in Madison Square Garden.

George Harrison organized the Concert for Bangladesh -- the first, and perhaps the greatest, concert-for-a-cause that rock 'n' rollers ever staged. "Rock reaching its manhood," Rolling Stone said in its review. "Under the leadership of George Harrison, a group of rock musicians recognized, in a deliberate, self-conscious, and professional way, that they have responsibilities -- and went about dealing with them seriously."

In a sense, the concert for Bangladesh begins with "Norwegian Wood," where Harrison first experimented with the sounds of the sitar. He went on to India to see Ravi Shankar, the master of the instrument (currently on his own farewell tour). "I felt that his enthusiasm was so real, and I wanted to give as much as I could express," said Shankar in a 1997 interview on VH1. Beatlemania intervened -- people recognized Harrison in Bombay and eventually he had to flee.

But the men stayed friends, and in 1971 Shankar, who had relatives in East Bengal, told Harrison he was trying to put together a benefit show "and maybe raise $20,000, $25,000, $30,000, and send it," Shankar told VH1. "George saw how unhappy I was, and he said, 'That's nothing, let's do something big.' And immediately he, like magic, phoned up, fixed Madison Square Garden and all his friends, Eric Clapton, Bob Dylan, and it was magic really. And he wrote that song also,' Bangladesh.' So overnight that name became known all over the world, you know."

It's hard now, 30 years later, to imagine rock stars as real honest-to-God consciences of anything. We're used to a certain smug self-satisfaction behind almost every gesture -- and used to the mediocre music that usually accompanies feed-the-world extravaganzas. But George Harrison clearly didn't need to buff his image by raising money for Bangladesh. And this was not precisely a safe cause: America was sending both money and arms to the Pakistanis. Harrison told VH1 that he'd been inspired by John Lennon -- "I think one of the things that I developed, just by being in the Beatles, was being bold. And I think John had a lot to do with that, you know, cause John Lennon, if he felt something strongly, he just did it. I picked up a lot of that by being a friend of John's."

The concert, Harrison added, ran on "pure adrenaline," without a full rehearsal. Who needs to rehearse, however, when you have George to sing "Here Comes the Sun," "My Sweet Lord" and "Something"; Ringo to sing "It Don't Come Easy;" and Dylan to add "Just Like a Woman." And everyone, all together, on the title track:

My friend came to me With sadness in his eyes, He told me that he wanted help Before his country died. Although I couldn't feel the pain I knew I'd have to try Now I'm asking all of you To help us save some lives...

Here we remember the Concert for Bangladesh as the birth of a new kind of political-artistic-philanthropic circus, one of those cases where the first example was also probably the best. There are moments now when one wishes that it had never occurred to singers that they should also preach.

But 1971 was not one of those moments. Not here, where in the midst of a dozen other crises the atrocities in Bangladesh were passing largely unnoticed. And certainly not in Bangladesh, where desperate people screwed by the imperatives of Cold War politics suddenly found themselves being heard by the world. "You can't imagine what a ray of light that was when we found out," said the museum's director.

That small museum in Dhaka is one of the most moving places I know on earth. It is haunted by the usual ghosts -- the millions of Muslims raped and killed by rampaging Pakistani troops, armed and funded by the grotesqueries of Cold War politics. And haunted now too by a shaggy-haired British musician who knew what he should do and went out and did it.

 

The Concert for Bangladesh: Images

 A forgotten chapter of our history....respect is over due to the organizer of the concert.

 

Concert for Bangladesh

The Concert for Bangladesh - George Harrison and Friends

This exhibit was open through June 24, 2007

The Concert for Bangladesh was the first major benefit concert of its kind and paved the way for Live Aid, Farm Aid, Live 8 and the other rock benefit events that came later.  The Concert for Bangladesh brought together an extraordinary group of major artists collaborating for a common humanitarian cause. Organized by George Harrison, the event sold out Madison Square Garden in New York City, generated millions of dollars for UNICEF and raised awareness for the organization and the humanitarian crisis in Bangladesh around the world. The concert also resulted in a Grammy-winning triple-album box set and feature film.

To celebrate this groundbreaking concert, the Museum created a special exhibit with artifacts that include George Harrison’s original lyrics to the song “Bangla Desh,” Ravi Shankar’s sitar, a vest worn by Ringo Starr and more. The concert film is being shown in a theater adjacent to the exhibit.

.

বাংলাদেশ ভারত ২৫ বছরের মৈত্রী চুক্তি

১৯৭২ সালের ১৯শে মার্চ তারিখে স্বাক্ষরিত গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ ও প্রজতন্ত্রী ভারতের মধ্যে(পারস্পরিক) মৈত্রী, সহযোগীতা ও শান্তি চুক্তির পূর্ণ বিবরণ।

Theaty of friendship, Co-operation and peace between the People's Republic of Bangladesh and the Republic of India signed on 19 March, 1972.

INSPIRED by common ideals of peace, secularism, democracy, socialism and nationalism;

HAVING STRUGGLED together for the realization of those ideals and cemented ties of friendship through blood and sacrifices which led to the triumphant emergence of a free, sovereign and independent Bangladesh.

DETERMIND to maintain fraternal and good-neighborly relations and transform their border into a border of eternal peace and friendship.

ADHERING firmly to the basic tenets of non-alignment, peaceful, co-existence, mutual co-operation, non-interference in internal affairs and respect for territorial integrity and sovereignty;

DETERMIND to safeguard peace, stability and security and to promote progress of their respective countries through all possible avenues of mutual co-operation;

DETERMIND further to expand and strengthen the existing relations of friendship between them;

CONVINCED that the further development of friendship and co-operation meets the national interests of both states as well as the interests of lasting peace in Asia and the world;

RESOLVED to contribute to security and to make efforts to bring about a relaxation of international tension and the final elimination of vestiges of colonialism racialism and imperialism;

CONVINCED that in the present-day world international problems can be solved only through co-operation and not through conflict or confrontation;

RE-AFFIRMING their determination to follow the aims and principles of the United Nations Charter, the Republic of India, on the one hand and the People's Republic of Bangladesh, on the other, have decided to conclude the present Treaty.

Article 1

The High Contracting parties, inspired by the ideals for which their respective people struggled and made sacrifices together, solemnly declare that there shall be lasting peace and friendship between their two countries and their peoples each side shall respect the independence, sovereignty and territorial integrity of the other and refrain from interfering in the internal affairs of the other side.
The High Contracting Parties shall further develop and strengthen the relations of friendship, good-neighborliness and all-round co-operation existing between them, one the basis of the above mentioned principles as well as the principle of equality and mutual benefit.

Article 2

Being guided by their devotion to the principles of equality of all peoples and states, irrespective of race or creed, the High Contracting Parties condemn colonialism and racialism in all forms and manifestations and are determined to strive for their final and complete elimination.
The High Contracting parties shall co-operate with other states in achieving these aims and support the just aspirations of peoples in their struggle against colonialism and racial discrimination and for their national liberation.

Article 3

The High Contracting parties reaffirm their faith in the policy of non-alignment and peaceful co-existence as important factors for easing tension in the world, maintaining international peace and security and strengthening national sovereignty and independence.

Article 4

The High Contracting Parties shall maintain regular contacts with each other on major international problems affecting the interests of both states through meeting and exchanges of views at all levels.

Article 5

The High Contracting Parties shall continue to strengthen and widen their mutually advantageous and all-round co-operation in the economic, scientific and technical fields. The two countries shall develop mutual co-operation in the fields of trade, transport and communications between them on the basis of the principles of equality, mutual benefit and the most favored nation principle.

Article 6

The High Contracting Parties further agree to make joint studies and take joint action in the fields of flood control, river basin development and the development of hydro-electric power and irrigation.

Article 7

The High Contracting Parties shall promote relations in the fields of art, literature, culture, sports and health.

Article 8

In accordance with the ties of friendship existing between the two countries, each of the High Contracting Parties solemnly declares that it shall not enter into or participate in any military alliance directed against the other party.
Each of the High Contracting Parties refrain from any aggression against the other party and shall not allow the use of its territory for committing any act that may cause military damage to or constitute a threat to the security of the other High Contracting party.

Article 9

Each of the High Contracting Parties shall refrain from giving assistance to any third party taking part in an armed conflict the other party. In case either party is attacked or threatened with attack, the High Contracting parties shall immediately enter into mutual consultations in order to take appropriate effective measures to eliminate threat and thus ensure the peace and security of their countries.

Article 10

Each of the High Contracting parties solemnly declares that it shall not undertake any commitment, secret or open, toward one or more States which may be incompatible with the present Treaty.

Article 11

The present Treaty is signed for a term of twenty-five years and shall be subject to renewal by mutual agreement of the High Contracting parties.
The Treaty shall come into force with immediate effect from the date of its signature.

Article 12

Any differences in interpreting any article or articles of the present Treaty that may arise between the High Contracting Parties shall be settled on a bilateral basis by peaceful means in sprit of mutual respect and understanding.

Done in Dacca on the nineteenth day of March, nineteen hundred and seventy-two.

Indira Gandhi Sheikh Mujibur Rahman
Prime Minister Prime Minister
Republic of India People's Republic of Bangladesh

উপরোল্লিখিত মৈত্রী, সহযোগীতা ও শান্তি চুক্তির বঙ্গানুবাদ:

শান্তি, ধর্মনিরপেক্ষতা, গণতন্ত্র, সমাজতন্ত্র ও জাতীয়তাবাদেও একই আদর্শে অনুপ্রাণিত হয়ে এই আদর্শের বাস্তব রূপায়ণের লক্ষ্যে একযোগে সংগ্রাম , রক্তদান এবং আতœত্যাগের মধ্য দিয়ে বন্ধুত্বের বন্ধন সুদৃঢ় করার অঙ্গীকার নিয়ে মুক্ত, স্বাধীন ও সার্বভৌম বাংলাদেশের বিজয় অভ্যূদয় ঘটিয়ে, সৌভ্রাতৃত্বপূর্ণ ও সৎ প্রতিবেশীসুলভ সম্পর্ক রক্ষা করতে এবং উভয় রাষ্ট্রের সীমান্তকে চিরস্থায়ী শান্তি ও বন্ধুত্বেও সীমান্ত হিসেবে রূপান্তরের দৃঢ় সংকল্প নিয়ে; নিরপেক্ষতা, শান্তিপূর্ণ সহাবস্থান, পারস্পারিক সহযোগীতা, অপরের আভ্যান্তরীণ ব্যাপারে হস্তক্ষেপ থেকে বিরত থেকে এবং আঞ্চলিক অখন্ডতা ও সার্বভৌমত্বকে সম্মান প্রদর্শনের মূলনীতিসমূহের প্রতি দৃঢ়ভাবে আস্থাশীল থেকে; শান্তি, স্থিতিশীলতা ও নিরাপত্তা রক্ষার দৃঢ় সংকল্প নিয়ে এবং সম্ভব্য সকল প্রকারের পারস্পারিক সহযোগীতার মাধ্যমে স্ব স্ব দেশের অগ্রগতির জন্য; উভয় দেশের মধ্যকার বর্তমান মৈত্রীপূর্ণ সম্পর্ক আরো স¤প্রসারণ ও জোরদার করার জন্য দৃঢ় সংকল্প নিয়ে; এশিয়া তথা বিশ্বের স্থায়ী শান্তির স্বার্থে এবং উভয় রাষ্ট্রের জাতীয় স্বার্থের প্রয়োজনে পারস্পরিক মৈত্রী ও সহযোগীতা আরো স¤প্রসারিতকরণে বিশ্বাসী হয়ে; বিশ্বের শান্তি ও নিরাপত্তা জোরদার করার উদ্দেশ্যে আন্তর্জাতিক উত্তেজনা প্রশমনে এবং উপনিবেশবাদ, বর্ণবৈষম্যবাদ ও সামন্তবাদের শেষ চিহ্নটুকৃ চৃড়ান্তভাবে নির্মুল করার লক্ষ্যে প্রয়াস চালানোর সিদ্ধান্ত গ্রহণ করে; আজকের বিশ্বের আন্তর্জাতিক সমস্যাগুলোর সমাধান যে শুধুমাত্র সহযোগীতার মাধ্যমে সম্ভব, বৈরিতা ও সংঘাতের মাধ্যমে নয় – এ ব্যাপাওে দৃঢ় প্রত্যয়ী হয়ে; রাষ্ট্রসংঘের সনদের নীতিমালা ও লক্ষ্যসমূহ অনুসরণে দৃঢ় প্রতিজ্ঞা পূনর্ব্যক্ত করে এক পক্ষে গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ ও অন্য পক্ষে প্রজাতন্ত্রী ভারত বর্তমান চুক্তি স্বাক্ষরের সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

অনুচ্ছেদ ১ ঃ চুক্তি সম্পাদনকারী উচ্চ মর্যাদাসম্পন্ন উভয় পক্ষ স্ব স্ব দেশের জনগণ যে আদর্শের জন্য একযোগে সংগ্রাম এবং স্বার্থত্যাগ করেছেন, সেই আদর্শে অনুপ্রাণিত হয়ে দ্ব্যর্থহীনভাবে ঘোষণা করছে যে, উভয় দেশ এবং তথাকার জনগণের মধ্যে দীর্ঘস্থায়ী শান্তি ও মৈত্রী বজায় থাকবে। একে অপরের স্বাধীনতা, সার্বভৌমত্ব ও আঞ্চলিক অখন্ডতার প্রতি সম্মান প্রদর্শন করবে এবং অপরের অভ্যান্তরীণ ব্যাপারে হস্তক্ষেপ না করার নীতিতে অবিচল থাকবে। চুক্তি সম্পাদনকারী উচ্চ মর্যাদাসম্পন্ন উভয়পক্ষ উল্লেখিত নীতিমালা এবং সমতা ও পারস্পরিক উপকারিতার নীতিসমূহের ভিত্তিতে উভয় দেশের মধ্যেকার বর্তমান বন্ধুত্বপূর্ণ সুপ্রতিবেশীসুলভ সার্বিক সহযোগীতা ও সম্পর্কের উন্নয়ন আরও জোরদার করবে।

অনুচ্ছেদ ২ ঃ জাতি ধর্ম নির্বিশেষে সকল রাষ্ট্র ও জনগণের প্রতি সমতার নীতিতে আস্থাশীল থাকার আদর্শে পরিচালিত হয়ে চুক্তি সম্পাদনকারী উচ্চ মর্যাদাসম্পন্ন উভয়পক্ষ সর্ব প্রকারের উপনিবেশবাদ ও বর্ণ বৈষম্যবাদের নিন্দা করছে এবং তাকে চুড়ান্তভাবে ও সম্পূর্ণরূপে নির্মুল করার জন্য প্রচেষ্টা চালানোর ব্যাপারে তাদের দৃঢ় প্রতিজ্ঞার কথা পুনরুল্লেখ করছে। চুক্তি সম্পাদনকারী উচ্চ মর্যাদাসম্পন্ন উভয়পক্ষ উপরোক্ত অভীষ্ট লক্ষ্য অর্জনের জন্য অন্যান্য রাষ্ট্রের সঙ্গে সহযোগীতা করবে এবং উপনিবেশবাদ ও বর্ণ বৈশম্যবিরোধী এবং জাতীয় মুক্তির সংগ্রামে জনগণের ন্যায়সঙ্গত আশা-আকাক্সক্ষার প্রতি অকুণ্ঠ সমর্থন দান করবে।

অনুচ্ছেদ ৩ ঃ চুক্তি সম্পাদনকারী উচ্চ মর্যাদাসম্পন্ন উভয়পক্ষ বিশ্বের উত্তেজনা প্রশমন, আন্তর্জাতিক শান্তি ও নিরাপত্তা রক্ষা এবং জাতীয় সার্বভৌমত্ব ও স্বাধীনতা মজবুত করার ব্যাপারে গুরুত্বপূর্ণ উপাদান হিসেবে জোটনিরপেক্ষতা ও শান্তিপূর্ণ সহাবস্থানের নীতির প্রতি তাদের অবিচল আস্থা পূনরুল্লেখ করছে।

অনুচ্ছেদ ৪ ঃ উভয় দেশের স্বার্থ-সংশ্লিষ্ট প্রধন প্রধান আন্তর্জাতিক সমস্যাবলী নিয়ে চুক্তি সম্পাদনকারী উচ্চ মর্যাদাসম্পন্ন পক্ষদ্বয় সকল স্তরে বৈঠক ও মত বিনিময়ের জন্য নিয়মিত যোগাযোগ করবে।

অনুচ্ছেদ ৫ ঃ চুক্তি সম্পাদনকারী উচ্চ মর্যাদাসম্পন্ন উভয়পক্ষ অর্থনৈতিক, বৈজ্ঞানিক ও কারিগরি ক্ষেত্রে পারস্পরিক সুবিধা এবং সর্বাতœক সহযোগীতা শক্তিশালী ও স¤প্রসারিত করে যাবে। উভয় দেশ সমতা, পারস্পরিক সুবিধা এবং সর্বোচ্চ আনুকুল্যপ্রাপ্ত রাষ্ট্রের বেলায় প্রযোজ্য নীতির ভিত্তিতে বাণিজ্য, পরিবহন ও যোগাযোগের ক্ষেত্রে সহযোগীতা স¤প্রসারিত করবে।

অনুচ্ছেদ ৬ ঃ চুক্তি সম্পাদনকারী উচ্চ মর্যাদাসম্পন্ন উভয়পক্ষ বন্যা নিয়ন্ত্রণ, নদী অববাহিকার উন্নয়ন এবং জল বিদ্যুৎ শক্তি ও সেচ ব্যবস্থা উন্নয়নের ক্ষেত্রে যৌথ সমীক্ষা পরিচলনা ও যৌথ কার্যক্রম গ্রহণে অভিন্ন মত পোষণ করে।

অনুচ্ছেদ ৭ ঃ চুক্তি সম্পাদনকারী উচ্চ মর্যাদাসম্পন্ন উভয়পক্ষ শিল্প, সাহিত্য, শিক্ষা, সংস্কৃতি ও খেলাধুলার ক্ষেত্রে সম্পর্ক উন্নয়নে সচেষ্ট হবে।

অনুচ্ছেদ ৮ ঃ দুই দেশের মধ্যেকার বর্তমান বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক অনুযায়ী চুক্তি সম্পাদনকারী উচ্চ মর্যাদাসম্পন্ন পক্ষদ্বয়ের প্রত্যেকে ন্যায় ও নিষ্টার সাথে ঘোষণা করছে যে, তারা একে অপরের বিরুদ্ধে পরিচলিত কোন সামরিক চুক্তিতে আবদ্ধ হবে না ব অংশ গ্রহণ করবে না। চুক্তি সম্পাদনকারী উচ্চ মর্যাদাসম্পন্ন পক্ষদ্বয় একে অন্যের উপর আক্রমন থেকে ও বিরত থাকবে এবং তাদের ভূখন্ডে এমন কোন কাজ করতে দিবে না যাতে চুক্তি সম্পাদনকারী কোন পক্ষের প্রতিরক্ষার ক্ষেত্রে কোন ক্ষতি হতে পারে অথবা কোন পক্ষেও নিরাপত্তার প্রতি হুমকি হিসেবে বিবেচিত হতে পারে।

অনুচ্ছেদ ৯ ঃ কোন এক পক্ষের বিরুদ্ধে তৃতীয় পক্ষ সশস্ত্র সংঘর্ষে লিপ্ত হলে চুক্তি সম্পাদনকারী উচ্চ মর্যাদাসম্পন্ন পক্ষদ্বয়ের প্রত্যেকে এতদুল্লেখিত তৃতীয় পক্ষকে যে কোন প্রকার সাহায্য দানে বিরত থাকবে। এতদ্ব্যতীত যে কোন পক্ষ আক্রান্ত হলে অথবা আক্রান্ত হওয়ার আশংকা দেখা দিলে সেই আশংকা দুরীভূত এবং নিজের দেশের শান্তি ও নিরাপত্তা সুনিশ্চিত করার উদ্দেশ্যে যথাযথ সক্রিয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য উভয়পক্ষ জরুরী ভিত্তিতে আলাপ-আলোচনায় মিলিত হবে।

অনুচ্ছেদ ১০ ঃ চুক্তি সম্পাদনকারী উচ্চ মর্যাদাসম্পন্ন উভয়পক্ষ নিষ্ঠার সাথে ঘোষণা করছে যে, এই চুক্তির সঙ্গে অসঙ্গতিপূর্ণ ও অহিতকর হতে পারে এমন কোন গোপন বা প্রকাশ্য এক বা একাধিক রাষ্ট্রের সঙ্গে উভয়ের কেউই কোন প্রতিশ্রে“তিতে আবদ্ধ হবে না।

অনুচ্ছেদ ১১ ঃ এই চুক্তি পঁচিশ বছর মেয়াদের জন্য স্বাক্ষরিত হলো। চুক্তি সম্পাদনকারী উভয়পক্ষের পারস্পরিক সম্মতিতে চুক্তির মেয়াদ বাড়ানো যেতে পারে। অত্র চুক্তি স্বক্ষর করার দিন থেকে কার্যকরী হবে।

অনুচ্ছেদ ১২ ঃ এই চুক্তির কোন এক বা একাধিক অনুচ্ছেদের বাস্তব অর্থ নিয়ে চুক্তি সম্পাদনকারী উচ্চ মর্যাদাসম্পন্ন পক্ষদ্বয়ের মধ্যে কোন মত পার্থক্য দেখা দিলে তা পারস্পরিক শ্রদ্ধা ও সমঝোতার মাধ্যমে শান্তিপূর্ণভাবে নিষ্পত্তি করতে হবে।

এই চুক্তি ১৯৭২ সালের ১৯শে মার্চ ঢাকায় সম্পাদিত ও স্বাক্ষরিত হলো।

ইন্দিরা গান্ধী শেখ মুজিবুর রহমান
প্রধানমন্ত্রী প্রধানমন্ত্রী
প্রজাতন্ত্রী ভারতের পক্ষে গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশের পক্ষে

মুক্তিযুদ্ধের শহীদ : মিথ্যা হিসাব যেন ওদের বিশ্বাসের অঙ্গ

সিরাজুর রহমান

লন্ডনের গার্ডিয়ান পত্রিকায় প্রকাশিত আমার একটি চিঠিকে কেন্দ্র করে সৈয়দ বদরুল আহসান ২ জুন তারিখের ডেইলি স্টার পত্রিকায় আমার কিছু অন্যায্য সমালোচনা করেছেন। আমার কোনো সন্দেহ নেই প্রকৃত ইতিহাস সম্পর্কে সম্যক জ্ঞানের অভাব, অন্য কারো উদ্দেশ্যপ্রণোদিত ভুল বিবরণের প্রভাব কিংবা রাজনৈতিক গোঁয়ার্তুমি থেকে তিনি এ প্রবìধটি লিখেছেন। তার বক্তব্যগুলোর জবাব দেয়ার আগে পটভূমি বর্ণনা করা প্রয়োজন।
ইয়ান জ্যাক একজন প্রবীণ এবং সম্মানিত সাংবাদিক। একাত্তরে আমাদের মুক্তিযুদ্ধ সম্পর্কে তিনিও কিছু সংবাদ পরিবেশন করেছেন। এখনো মাঝে মাঝে তিনি দক্ষিণ এশিয়া উপমহাদেশে, বিশেষ করে কলকাতায় সফর করতে যান। বর্তমানে তিনি প্রতি শনিবারের গার্ডিয়ান পত্রিকায় খুবই জনপ্রিয় একটি কলাম লেখেন। বাংলায় অনুবাদ করলে গত ২১ মে তারিখে তার কলামের শিরোনাম হবে : ‘গুরুত্ব গণহত্যার সংখ্যাতত্ত্বের মধ্যে নয়। গুরুত্বপূর্ণ হচ্ছে গণহত্যার ব্যাপারে আমাদের মনোযোগী হওয়া।’
এ প্রবìেধ ইয়ান জ্যাক অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষাব্রতী শর্মিলা বোসের আসন্ন প্রকাশিতব্য একখানি বই নিয়ে আলোচনা করেছেন। বাংলা অনুবাদে সে বইয়ের নাম হচ্ছে ‘মুর্দার হিসাব : বাংলাদেশ যুদ্ধের স্মৃতি’। উল্লেখ্য, শর্মিলা বোস নেতাজী সুভাস বোসের বড় ভাই শরত বোসের বংশধর। ইয়ান জ্যাক তার বই থেকে উদ্ধৃতি দিয়ে লিখেছেন : যে যুদ্ধে বাংলাদেশের জন্ম হয় বিগত ৪০ বছর ধরে সে যুদ্ধ সম্পর্কে বিশ্ববাসীর ধারণাজুড়ে আছে কথা ও সংখ্যার সমন্বয় নিয়ে চরম বিতর্ক। ইয়ান জ্যাক লিখেছেন যে, ২৫ মার্চ রাতে সামরিক হামলার আগে এবং স্বাধীনতার পর বাঙালিরাও অবাঙালিদের ওপর নৃশংসতা চালিয়েছে, বিশেষ করে খুলনার পাটকলগুলোতে যা ঘটেছে সেটাকেও একধরনের গণহত্যা বলা যায়।
শর্মিলা বোস তার গবেষণার ফলাফল সম্পর্কে বলেছেন, সঙ্গত অনুমান এই যে, কয়েক হাজার নর-নারী ও শিশু খুলনায় (বাঙালিদের দ্বারা) নিহত হয়েছে। মিস বোসের গবেষণা অনুযায়ী উভয় পক্ষে মোট ৫০ হাজার থেকে এক লাখ মানুষ ১৯৭১ সালের যুদ্ধে মারা গেছে। আর ইয়ান জ্যাক মন্তব্য করেছেন : বাংলাদেশ যুদ্ধ সম্পর্কে একটা উল্লেখযোগ্য সত্য এই যে, খুব কমসংখ্যক শিক্ষাব্রতী ও ঐতিহাসিক এ বিষয়ে পুঙ্খানুপুঙ্খ গবেষণা করেছেন।
মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস বিকৃত করা হচ্ছে বলে সব পক্ষ থেকেই অভিযোগ উঠেছে এবং উঠছে। এমনকি সৈয়দ বদরুল আহসানও অত্যন্ত অনুদারভাবে আমার বিরুদ্ধে ইতিহাসকে ‘মোচড় দেয়ার’ অভিযোগ করেছেন। কিন্তু এ কথা সত্যি যে, এ ইতিহাস সম্পর্কে অনেকগুলো অসত্য নিয়ে আমরা গত ৪০ বছর কাটিয়ে দিয়েছি। এর মধ্যে একটি প্রজন্ম বিগত হয়েছে, আরেকটি শিগগিরই বিগত হবে। কথা হচ্ছে ভবিষ্যতকেও কি আমরা আমাদের জাতীয় ইতিহাসকে মিথ্যার ওপর দাঁড় করিয়ে রাখব? ঠিক এই বিবেচনা থেকেই ইয়ান জ্যাকের কলাম সম্পর্কে আমি গার্ডিয়ান পত্রিকাকে একখানি চিঠি লিখি এবং সে চিঠি প্রকাশিত হয়েছে গত ২৪ মে। সে চিঠির হুবহু বক্তব্য বর্তমান প্রবìেধর শেষে সংযুক্ত হচ্ছে। কিন্তু একটি সত্যি ঘটনা লিপিবদ্ধ করা হলে আমার বক্তব্য ও তার অন্তর্নিহিত দৃষ্টিভঙ্গি পরিষ্কার হয়ে যাবে।
নেপালের রাজা মহেন্দ্র (বীরেন্দ্রের পিতা) ব্রিটেনে রাষ্ট্রীয় সফরে এসেছিলেন। বিবিসি থেকে তখন নেপালি ভাষায় অনুষ্ঠান প্রচারিত হতো না। কিন্তু রাজার সফরের বিবরণ বিবিসি নেপালের মানুষকে শোনাতে চেয়েছিল। রাজা মহেন্দ্রের সাক্ষাৎকার নেয়ার জন্য খোঁজখবর করে একজন নেপালি ছাত্রকে আনা হলো। ধর্মভীরু হিন্দু নেপালিরা তখন তাদের রাজাকে ‘জীবিত ঈশ্বর’ বলে বিবেচনা করত। এমনকি কোনো প্রজার রাজার মুখের দিকে তাকিয়ে কথা বলা গুরুতর অপরাধ বলে বিবেচিত হতো। বিবিসির সংগৃহীত ছাত্রটি রাজার হোটেলে তার সামনে উপুড় হয়ে কার্পেটের ওপর শুয়ে পড়ল নিচের দিকে তাকিয়ে, আর মাইক্রোফোনটা রাজার দিকে উঁচিয়ে ধরল।
আত্মসমর্পণের সাংবাদিকতা
এ ঘটনার কথা আমি প্রায়ই ভাবি। লোকটি যদি ছাত্র না হয়ে কোনো নেপালি সাংবাদিক হতো তাহলে কি নিজ দেশের সমস্যাদির যথাযথ বিশ্লষণ ও সদুত্তর রাজার কাছ থেকে আদায় করতে পারত? সমাধানের কোনো গঠনমূলক প্রস্তাবও রাজাকে দিতে পারত? বাংলাদেশে একশ্রেণীর রাজনীতিক এবং কিছু সংখ্যক সাংবাদিক এখনো স্বাধীনতা আন্দোলনের নেতা এবং জাতির পিতা শেখ মুজিবুর রহমান সম্পর্কে অন্তত প্রকাশ্যে যে মনোভাব দেখান সেটা রাজা মহেন্দ্রের প্রতি তার হিন্দু প্রজা উপরিউক্ত ছাত্রটির মনোভাবের সাথে তুলনীয়। তবে বিশেষ করে আমি সাংবাদিকদের প্রসঙ্গেই আলোচনা করব।
শেখ মুজিবুর রহমান শুধু জাতির পিতাই ছিলেন না। তিনি আরো ছিলেন আওয়ামী লীগ দলীয় সরকারপ্রধান। দলীয় রাজনীতিতে সব সময়ই বিতর্ক থাকতে বাধ্য। তা ছাড়া একটি যুদ্ধবিধ্বস্ত সমস্যাসঙ্কুল দেশ শাসনের ক্ষেত্রে বিন্দুমাত্র ভুলত্রুটিরও মারাত্মক প্রতিক্রিয়া হতে পারে। বাংলাদেশের বেলায় ঠিক তা-ই হয়েছে। একশ্রেণীর কিছু লোক প্রধানমন্ত্রীকে কবিতা শুনিয়েছে, ‘বঙ্গবìধু বঙ্গবìধু’ বলে তার স্তবস্তুতি করেছে, তাকে ফুলের মালা দিয়ে ভুলিয়ে রেখেছে। সে সুযোগে তারা দুর্নীতি করেছে, দেশের সম্পদ লুটপাট করেছে। ১৯৭২-‘৭৩-এর ভয়াবহ অর্থনৈতিক সঙ্কট আর চুয়াত্তরের মন্বন্তরে ৭০ হাজার মানুষের মৃত্যুর এ ছিল কারণ। অন্য কিছু লোকের পরামর্শ ও প্ররোচনায় রক্ষীবাহিনী গঠিত হয়েছিল। সে বাহিনী আওয়ামী লীগের ৪০ হাজার বিরোধীকে (মূলত জাসদ কর্মী) হত্যা করেছে। কিছু লোকের কুপরামর্শে শেখ মুজিবুর রহমান বিংশ শতাব্দীর দ্বিতীয়ার্ধের আফিন্সকার কোনো কোনো স্বৈরশাসকের মতো একদলীয় পদ্ধতি কায়েম করে আজীবন রাষ্ট্রপতি হতে যাচ্ছিলেন।
বাংলাদেশের সাংবাদিকেরা দেশের বাস্তব পরিস্খিতি শেখ মুজিবকে জানতে দেননি, প্রশাসনের ত্রুটি-বিচ্যুতি তুলে ধরেননি তারা, সমস্যাগুলো সমাধানের কোনো গঠনমূলক প্রস্তাবও তাকে দেননি। নইলে বাংলাদেশের ইতিহাস সম্পূর্ণ ভিন্নভাবে লিখিত হতে পারত। দেশ যখন সর্বনাশের অতল তলে তলিয়ে যাচ্ছিল সাংবাদিকেরা তখনো ‘বঙ্গবìধু’ ‘বঙ্গবìধু’ বলে শেখ মুজিবুর রহমানকে বন্দনা করছিলেন। বর্তমান সরকারের আমলে এই ব্যক্তিপূজা সাংঘাতিক রকম বেড়ে গেছে।
আমি নিজের চোখে দেখেছি এই ‘বঙ্গবìধু বন্দনায়‘ যারা বাড়াবাড়ি করেছেন তারা হয় কোনো ত্রুটি ঢাকতে চেয়েছেন, নয়তো কোনো অনুগ্রহ প্রত্যাশী ছিলেন। একাত্তরে লন্ডনে আমাদের ঘনিষ্ঠ দু’জন আমাদের স্বাধীনতার আন্দোলনে সামান্যতম অংশ নেননি, এক পাউন্ড চাঁদাও দেননি, এমনকি পাকিস্তানিরা দেখে ফেলতে পারে ভয়ে তারা আন্দোলনকারী বìধুবাìধবের ধারেকাছেও আসতেন না। কিন্তু দেশে ফিরে তাদের একজন শেখ মুজিবের সরকারের আমলে ‘বিলেতে মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক’ সেজে অধ্যাপনার চাকরিতে ডবল প্রমোশন সংগ্রহ করেছিলেন, অন্যজন শেখ হাসিনার হাত থেকে একুশে পদক আর স্বাধীনতা পুরস্কার নিয়েছেন।
বেঈমানি আল্লাহর প্রতি না বঙ্গবìধুর প্রতি?
মাত্র বিগত কয়েক দিনে সেক্টর কমান্ডার ফোরামের জেনারেল সফিউল্লাহ বলেছেন, সংবিধানে বিস্মিল্লাহ ও রাষ্ট্রধর্ম ইসলাম রাখা হলে বঙ্গবìধুর সাথে বেঈমানি করা হবে। শেখ মুজিবের জ্যেষ্ঠ কন্যা প্রধানমন্ত্রীর মনোরঞ্জনের জন্য মুজিবের প্রতি অতিভক্তি দেখাতে গিয়ে তিনি ১৫-১৬ কোটি ধর্মভীরু মুসলমানের ধর্মীয় অনুভূতিতে তীব্র আঘাত হেনেছেন। অথচ বাংলাদেশে এখনো এমন বহুলোক বেঁচে আছেন যারা জানেন যে, ১৯৭৫ সালের সে কালরাতে রাষ্ট্রপতি শেখ মুজিবুর রহমান সাহায্য চেয়ে সেনাপ্রধান জেনারেল সফিউল্লাহকে টেলিফোন করেছিলেন। কিন্তু জেনারেল সফিউল্লাহ রাষ্ট্রপতিকে কোনোমতে পালিয়ে যাওয়ার পরামর্শ দিয়ে হাত-পা গুটিয়ে বসেছিলেন।
পাকিস্তানি পররাষ্ট্র দফতরে কূটনৈতিক পদে নিযুক্ত বাংলাদেশীদের পক্ষত্যাগ (ডিফেক্ট) করে স্বাধীনতা আন্দোলনে সম্পৃক্ত করার জন্য ব্যক্তিগতভাবে আমিও অনেক চেষ্টা করেছি। বহু ক্ষেত্রেই আমরা সফল হয়েছি, কিন্তু কোনো কোনো কূটনীতিক বিশ্বাস করতে পারেননি যে বাংলাদেশ স্বাধীন হবে। শেষ মুহূর্তে যখন আমাদের স্বাধীনতা অনিবার্য হয়ে উঠল মাত্র তখনই তারা আমাদের পক্ষে যোগ দিয়েছিলেন। পরবর্তীকালে নিজেদের সংশয় ও বিলম্ব ঢেকে দ্রুত পদোন্নতি পেতে তাদের কেউ কেউ বাড়াবাড়ি চেষ্টা করেছেন। এমন ভাব তারা করেছেন যেন আসলে তারাই ছিলেন সত্যিকারের মুক্তিযোদ্ধা। সেটা সম্ভব হয়েছিল মুক্তিযুদ্ধের সময় শেখ মুজিবুর রহমান দেশে ছিলেন না বলে। কে প্রকৃত মুক্তিযোদ্ধা আর কে নয়, সেটা তিনি জানতে পারেননি। আর বর্তমানে তো একটি দলের রাজনৈতিক স্বার্থে প্রায়ই লাখে লাখে মুক্তিযোদ্ধার সনদ বিলি করা হচ্ছে। শুনেছি একাত্তরে এসব মেকি মুক্তিযোদ্ধার কারো কারো জন্ম হয়েছিল কি না সে নিয়েও সন্দেহ আছে।
এই হচ্ছে পটভূমি। সে পটভূমির পরিপ্রেক্ষিতে ডেইলি স্টার পত্রিকায় প্রকাশিত সৈয়দ বদরুল আহসানের প্রবìধটি নিয়ে আলোচনা করব। শর্মিলা বোসের বই নিয়ে ইতোমধ্যেই মিডিয়ায় ব্যাপক প্রচার হয়েছে। সে গ্রন্থ এবং ইয়ান জ্যাকের জনপ্রিয় কলাম থেকে পরিষ্কার যে, বিদেশে এ কথা কেউ বিশ্বাস করে না একাত্তরে আমাদের ৯ মাসের স্বাধীনতা যুদ্ধে তিন মিলিয়ন অর্থাৎ ৩০ লাখ লোক মারা গেছে। একাত্তরে যেসব ব্রিটিশ ও বিদেশী সাংবাদিক আমাদের মুক্তিযুদ্ধের খবরাদি বিশ্বকে জানিয়েছেন ১৯৭২ সালে তাদের অনেকে আমাকে বলেছেন তিন মিলিয়ন মানুষ নিহত হয়েছে বলে তারা বিশ্বাস করতে পারেন না। বাংলাদেশেও বহু লোক এখনো তিন মিলিয়ন নিহত হওয়ার কথা বিশ্বাস করেন না। অবশ্য ক্ষয়ক্ষতি ও প্রাণহানি যে ব্যাপক হয়েছে সেটাও সত্য। কিন্তু সাধারণ বুদ্ধি বলেও একটা কথা আছে। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ১৯৬৪ সাল থেকে ১৯৭৫ সাল পর্য্যন্ত ১১ বছর ভিয়েতনাম যুদ্ধে সর্বশক্তি আর সর্বপ্রকারের মারণাস্ত্র ব্যবহার করেছে। কিন্তু প্রাপ্ত সব হিসাব অনুযায়ী সে যুদ্ধে উত্তর ও দক্ষিণ ভিয়েতনাম মিলিয়ে সামরিক ও বেসামরিক নিহতদের সংখ্যা তিন মিলিয়নের সামান্য বেশি।
সংখ্যাতাত্ত্বিক বিভ্রাট
গার্ডিয়ান পত্রিকায় প্রকাশিত চিঠিতে আমি এই সংখ্যাতাত্ত্বিক বিভ্রাটের সম্ভাব্য ব্যাখ্যা দিয়েছিলাম। ১৯৭২ সালের ৮ জানুয়ারি শনিবার অতি ভোরে আমি খবর পাই যে, শেখ মুজিব লন্ডনে নেমেছেন এবং ভারতীয় হাইকমিশনার আপাভাই পন্থ তাকে ক্ল্যারিজেস হোটেলে নিয়ে আসছেন। আমি সরাসরি ক্ল্যারিজেস হোটেলে চলে গেলাম। সোফার ওপর ক্লান্ত ও বিষন্ন মুজিব ভাই বসেছিলেন। আমাকে দেখে চিনতে পারলেন, আশ্বস্ত হয়েছিলাম তাতে। আমাকে হাতের ইশারায় পাশে বসতে বললেন। ওখানে তখন ছিলেন আর মাত্র দু’জন। হাইকমিশনার আপাভাই পন্থ হন্যে হয়ে টেলিফোন করছিলেন। আর ছিলেন ভারতীয় হাইকমিশনের ‘এইড’ (সহকারী) শশাঙ্ক শেখর ব্যানার্জি। উল্লেখ্য, এই ব্যানার্জি রাজকীয় বিমান বাহিনীর কমেট বিমানে শেখ মুজিবুর রহমানের ‘এইড’ হয়ে ঢাকা পর্যন্ত গিয়েছিলেন। আরো উল্লেখ্য, ব্রিটেন তখনো বাংলাদেশকে স্বীকৃতি দেয়নি এবং ব্রিটিশ সরকারের সাথে বাংলাদেশের স্বার্থসংশ্লিষ্ট বিষয়াদি নিয়ে প্রতিনিধিত্ব করত ভারতীয় হাইকমিশন।
একপর্যায়ে হাইকমিশনার পন্থ টেলিফোন মুজিব ভাইয়ের হাতে দিতে দিতে বললেন, ‘ইয়োর এক্সেলেন্সি’, ভারতের প্রধানমন্ত্রীকে টেলিফোনে পেয়েছি, তিনি এখন লাখনৌতে আছেন। মুজিব ভাই ওখানেই টেলিফোন নিতে যাচ্ছিলেন। কিন্তু ততক্ষণে সিলেটি বংশোদ্ভূত ব্যবসায়ী মিনহাজ উদ্দিন ও অন্য একজন ওখানে উপস্খিত হয়েছেন। বাংলাদেশের প্রেসিডেন্ট লোকজনের সামনে ভারতের প্রধানমন্ত্রীর সাথে কথা বলবেন সেটা আমার ভালো মনে হয়নি। আমি মুজিব ভাইয়ের হাত ধরে তাকে টেনে তুললাম এবং তাকে স্যুইটের বেডরুমে নিয়ে গেলাম। তাকে চেয়ারে বসিয়ে টেলিফোন রিসিভার তার হাতে দিয়ে আমি বেরিয়ে এসে দরজা বìধ করে দিলাম।
প্রায় ২০ মিনিট পর মুজিব ভাই বেরিয়ে এলেন। আমাকে জিজ্ঞেস করলেন, ‘আমারে এক্সেলেন্সি কইলো ক্যান?’ আমি বললাম, ‘আপনি দেশের প্রেসিডেন্ট, আপনাকে এক্সেলেন্সি কইবো না তো কইবো কী?’ মুজিব ভাইয়ের সাথে আমি বরাবরই এ রকম হালকা সুরে কথা বলতাম। তিনি আবার জিজ্ঞেস করলেন, ‘আমি আবার কিসের প্রেসিডেন্ট হইলাম, আমরা না অটোনোমি পেলাম?’
আমি তাকে বললাম, ‘মুজিব ভাই, আপনি তো দেশে ছিলেন না, আপনার নামে আমরা গোটা জাতিকে ঐক্যবদ্ধ করে ফেলেছি, আমরা দেশ স্বাধীন করে ফেলেছি।’ তিনি আমাকে জড়িয়ে ধরে ফুঁপিয়ে কাঁদতে শুরু করলেন, আমিও ফুঁপিয়ে ফুঁপিয়ে কাঁদছিলাম। বেশ কয়েক মিনিট কেটে গেল। জাকারিয়া খান চৌধুরী এলেন। এলেন অধ্যাপিকা সুরাইয়া খানম, মুজিব ভাইয়ের পা ছুঁয়ে তাকে সালাম করলেন। তিনি তাদের জিজ্ঞেস করলেন, কেমন আছিস? আমি অস্বস্তিতে উসখুস করছিলাম। মাত্র তখনই তিনি আলিঙ্গনমুক্ত করলেন আমাকে। এর পর তিনি গিয়ে সোফায় বসলেন, আমিও বসলাম তার পাশে। হোটেলের রুম সার্ভিস স্যান্ডউইচ আর কফি এনেছিল। তিনি খানিকটা কফি খেলেন। আমি তাকে দেশের ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতির কথা বলছিলাম। তিনি জানতে চাইলেন কত লোক মারা গেছে যুদ্ধে। আমি বললাম যুদ্ধের সরাসরি খবর পাওয়া সম্ভব ছিল না কিন্তু বিভিন্ন সূত্রে পাওয়া খবরাদি থেকে আমরা অনুমান করেছি যে প্রায় তিন লাখ মানুষ মারা গেছে মুক্তিযুদ্ধে। পরে ডেভিড ফন্সস্টকে দেয়া সাক্ষাৎকারে মুজিব ভাই বলেছিলেন যে, পাকিস্তানিরা মুক্তিযুদ্ধে তিন মিলিয়ন বাংলাদেশীকে হত্যা করেছিল। এই হচ্ছে ঘটনা।
বোলতার চাকে ঢিল
গার্ডিয়ান পত্রিকায় লিখিত চিঠিতে আমি এই পটভূমি দিয়ে বলেছিলাম যে, শেখ মুজিবুর রহমান হয়তো বেমওকা লাখকে মিলিয়ন বলে ফেলেছিলেন, নয়তো ক্লান্ত অবস্খায় সে ভুলটা তার হয়েছিল। মনে হচ্ছে তিন মিলিয়ন মানুষ মারা যাওয়া সম্পর্কে সন্দেহ প্রকাশ করে আমি একটা প্রভাবশালী মহলের বিশ্বাসে আঘাত করে ফেলেছি। ডেইলি স্টার পত্রিকায় সৈয়দ বদরুল আহসানের প্রবìেধর উল্লেখ আগেই করেছি। সে প্রবìধ প্রকাশিত হয়েছে ২ জুন। একই তারিখের গার্ডিয়ান পত্রিকা বাংলাদেশ হাইকমিশনের রাশেদ চৌধুরীর একখানি চিঠিও ছেপেছে। লক্ষ করা যাচ্ছে যেন ১৯৭২ সালের ৮ জানুয়ারি হিথরো বিমানবন্দরে আর ক্ল্যারিজেস হোটেলে যা যা ঘটেছিল তার প্রায় অভিন্ন ‘প্রত্যক্ষদর্শীর বিবরণ’ লিখেছেন তারা। সেদিন ভোরে আমি হিথরো বিমানবন্দরে যাইনি তাই তারা সেখানে ছিলেন কি না বলতে পারব না। কিন্তু দিনের একটা বড় অংশ আমি ক্ল্যারিজেস হোটেলে ছিলাম এবং আমি আশ্বাস দিতে পারি যে তাদের কেউ সেদিন সে হোটেলে ছিলেন না।
সৈয়দ বদরুল আহসান ও রাশেদ চৌধুরী লিখেছেন যে, শেখ মুজিব সেদিন ভোরে আপাভাই পন্থের গাড়িতে ক্লারিজেস হোটেলে আসেননি, এসেছিলেন বেসরকারি বাংলাদেশ দূতাবাসের কূটনীতিক রেজাউল করিমের গাড়িতে। সৈয়দ বদরুল আহসানের ভাষায় তিনি ‘লাফ দিয়ে’ রেজাউল করিমের গাড়িতে ওঠেন। রাশেদ চৌধুরীর চিঠি থেকে মনে হতে পারে যে, আপাভাই পন্থ সেদিন ক্ল্যারিজেস হোটেলেই ছিলেন না। তাদের কেউ এমন আভাসও দেননি যে, আমি সেদিন ক্ল্যারিজেস হোটেলে ছিলাম এবং শেখ মুজিবের সাথে আমার বহু কথাবার্তা হয়েছে। তারা বলতে চেয়েছেন যে পূর্ব পাকিস্তানে ও স্বাধীন বাংলাদেশে যা যা হয়েছে সে সম্পর্কে সম্পূর্ণ অবগত হয়েই মুজিব পাকিস্তান থেকে লন্ডনে এসেছিলেন। প্রমাণ হিসেবে তারা লিখেছেন যে, ড. কামাল হোসেন সপরিবারে একই বিমানে এসেছিলেন।
অনেক প্রশ্ন ওঠে এখানে। শেখ মুজিব নিজেই বলেছেন, তার কবর খোঁড়ার দৃশ্য তিনি নিজেই দেখেছেন। তিনি আরো বলেছেন যে, দেশের খবর পাওয়ার কোনো উপায় তার ছিল না, কারাগারে তাকে পত্রিকা কিংবা রেডিও দেয়া হয়নি। ড. কামাল হোসেন মুজিবের সাথে কয়েদ ছিলেন না, শুনেছি তিনি ছিলেন শ্বশুরবাড়িতে। পাকিস্তানের কঠোর সেন্সরশিপ আর পাকিস্তানি অপপ্রচারের ডামাডোলে মুক্তিযুদ্ধ ও পরবর্তী পরিস্খিতির কতটা সত্যি বিবরণ তিনি জানতে পেরেছিলেন সন্দেহ আছে। তা ছাড়া একই বিমানে মুজিবের দেহরক্ষী হয়ে এসেছিলেন পাকিস্তান সামরিক গোয়েন্দা বাহিনীর একজন কর্মকর্তা, শুনেছি তার নাম ছিল লে. কর্নেল রিয়াজুল ইসলাম। সুতরাং বিমানেও মুজিবকে পরিস্খিতি জ্ঞাত করানোর সুযোগ ড. কামাল হোসেন কতটা পেয়েছেন বলা কঠিন।
সেদিন ক্ল্যারিজেস হোটেলের সামনে বহু বাংলাদেশীর সমাগম হয়েছিল এবং সìধ্যায় তিনি হোটেলে বিরাট সংবাদ সম্মেলন দিয়েছেন বলে উল্লেখ করেছেন সৈয়দ বদরুল আহসান আর রাশেদ চৌধুরী। মনে হতে পারে তারা যেন ‘মাকে মামার বাড়ির গল্প শোনাচ্ছেন। এসব কথা আমি সেদিন বিবিসি রেডিওতে প্রচার করেছি, গত ৪০ বছরে বহুবার লিখেছি। ১৯৯২ সালে প্রকাশিত ‘প্রীতি নিন সকলে’ আর ২০১০ সালে প্রকাশিত ‘এক জীবন এক ইতিহাস’ বইতে সেদিনের ঘটনাবলির বিস্তারিত বিবরণ লিখেছি আমি। পড়ে দেখলে তারা উপকৃত হবেন। তা ছাড়া সেদিন মুজিবের সংবাদ সম্মেলনের ফিল্ম কিংবা ভিডিও পরীক্ষা করলে তারা অবশ্যই দেখতে পাবেন যে তার বিবৃতির পুরো সময় আমি মঞ্চের ওপর তার বাম দিকে তার চেয়ার ঘেঁসে হাঁটু গেড়ে বসে মাইক্রোফোন ধরে ছিলাম। বাংলাদেশের কাদা নিয়ে বিদেশে ঘাঁটাঘাঁটি করতে চাইনি বলে রাশেদ চৌধুরীর বক্তব্যের জবাব গার্ডিয়ান পত্রিকায় পাঠাইনি।
মুজিব মানুষ ছিলেন
সমস্যা হচ্ছে শেখ মুজিবুর রহমান যে ফেরেশতা ছিলেন না, মানুষ ছিলেন, তার অìধ ভক্তরা সেটা মানতে রাজি নন। এবং সব ভাষাতেই একটা কথা আছে যে মানুষ মাত্রই ভুল হয়। ১০ মাসের নির্জন কারাবাস, তারপর কারাগার থেকে ছাড়া পেয়ে রাত জেগে পাকিস্তান থেকে লন্ডন পর্যন্ত বিমানভ্রমণ এবং হঠাৎ করে আবেগাপ্লুূত সমর্থকদের সান্নিধ্য ইত্যাদির পরিপ্রেক্ষিতে মুখ ফসকেও ভুল কথা বেরিয়ে যাওয়া স্বাভাবিক। তাই বলে মুজিবকে যারা ভালোবাসতেন তারা ইতিহাসকে সংশোধন করে দিলে মুজিবের প্রতি শ্রদ্ধাবোধই প্রমাণিত হবে। ১৯৭২ সালের ৮ জানুয়ারির যে বিবরণ পড়ে সৈয়দ বদরুল আহসান আর রাশেদ চৌধুরী আমার সমালোচনা করেছেন তথ্য বিকৃতি আছে সে বিবরণে, গার্ডিয়ান পত্রিকায় প্রকাশিত আমার চিঠিতে নয়। সে চিঠির হুবহু বিবরণ ছিল এ রকম :
Mujib's confusion on Bangladeshi deaths Ian Jack (21 May) mentions the controversy about death figures in Bangladesh's liberation war. On 8 January 1972 I was the first Bangladeshi to meet independence leader Sheikh Mujibur Rahman after his release from Pakistan. He was brought from Heathrow to Claridge's by the Indian High Commissioner Apa Bhai Panth, and I arrived there almost immediately. Mujib was puzzled to be addressed as "your excellency" by Mr Panth. He was surprised, almost shocked, when I explained to him that Bangladesh had been liberated and he was elected president in his absence. Apparently he arrived in London under the impression that East Pakistanis had been granted the full regional autonomy for which he had been campaigning. During the day I and others gave him the full picture of the war. I explained that no accurate figure of the casualties was available but our estimate, based on information from various sources, was that upto "three lakh" (300,000) died in the conflict. To my surprise and horror he told David Frost later that "three millions of my people" were killed by the Pakistanis. Whether he mistranslated "lakh" as "million" or his confused state of mind was responsible I don't know, but many Bangladeshis still believe a figure of three million is unrealistic and incredible.
Serajur Rahman
Retired deputy head, BBC Bengali Service
(লন্ডন, ০৮.০৬.১১)
http://www.dailynayadiganta.com/fullnews.asp?News_ID=282461&sec=6

যুক্তরাষ্ট্রের ৬ বিশিষ্ট ব্যক্তিকে বাংলাদেশের নাগরিকত্ব দেয়ার প্রস্তাব

শনিবার, ২৩ জানুয়ারি ২০১০
১৯৭১-এ মুক্তিযুদ্ধের সপক্ষে অসামান্য অবদান রাখায় যুক্তরাষ্ট্রের ৬ বিশিষ্ট ব্যক্তিকে বাংলাদেশের নাগরিকত্ব কিংবা বিশেষ সম্মাননা প্রদানের প্রস্তাব দিয়েছেন জাতিসংঘে বাংলাদেশের স্থানীয় প্রতিনিধি ড. এ কে আব্দুল মোমেন। সম্প্রতি তিনি এ প্রস্তাব পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে পাঠিয়েছেন। এই ৬ জনসহ মুক্তিযুদ্ধের সময় যুক্তরাষ্ট্রে অবস্থানরত যেসব বাংলাদেশি আর্থিক সহযোগিতাসহ নানাভাবে উল্লেখযোগ্য অবদান রেখেছেন তাদেরকে দেশের পক্ষ থেকে সম্মাননা দেয়ার ব্যাপারে গত বৃহস্পতিবার মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক প্রতিমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করে তিনি আলোচনাও করেছেন।

যুক্তরাষ্ট্রের ৬ বিশিষ্ট নাগরিক হলেন: প্রয়াত সিনেটর এডওয়ার্ড কেনেডি, বিখ্যাত পপ গায়ক প্রয়াত জর্জ হ্যারিসন, জোয়ান বায়েজ, প্রখ্যাত সেতারবাদক ভারতীয় বংশোদ্ভূত ওস্তাদ রবিশংকর, প্রয়াত প্রফেসর ড. রবার্ট রাইন্ডস ও কূটনীতিক আর্চার ব্লার্ড।

ড. একে আব্দুল মোমেন এ প্রতিবেদককে জানিয়েছেন, কেনেডি ছিলেন বাংলাদেশের অকৃত্রিম বন্ধু। মুক্তিযুদ্ধের সময় নিক্সন প্রশাসন যখন পাকিস্তানের পক্ষে বাংলাদেশে অস্ত্র পাঠাচ্ছে তখন কেনেডি তীব্র প্রতিবাদ করে অস্ত্র পাঠানো বন্ধ করতে বলেছেন। বাংলাদেশের সপক্ষে সিনেটে ৩১ বার জোরালো বক্তব্য দিয়েছেন। জর্জ হ্যারিসন বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধে সহযোগিতার জন্য নিউইয়র্কে আয়োজন করেছিলেন বৃহৎ কনসার্টের। তার সঙ্গে ছিলেন মহিলা শিল্পী জোয়ান বায়েজ ও সেতারবাদক ওস্তাদ রবিশংকর। হ্যারিসনের গাওয়া "বাংলাদেশ, বাংলাদেশ" গানটি আমেরিকানদের মধ্যে বাংলাদেশকে ব্যাপক পরিচিত করে তোলে। এ কনসার্টের টিকিট থেকে পাওয়া সমুদয় অর্থ তারা মুজিবনগর সরকারকে দান করেন।

প্রফেসর ড. রবার্ট রাইন্ডস ছিলেন আমেরিকান ন্যাশনাল সায়েন্স ফাউন্ডেশনের সভাপতি। তিনি বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের জন্য একাই ৬৫ হাজার ডলার সংগ্রহ করে দেন। অথচ সেখানে অবস্থানরত বাংলাদেশি সবাই মিলে তখন সংগ্রহ করেছিলেন মাত্র ১৮ হাজার ডলার। শুধু তাই নয়, সম্পূর্ণ বেআইনিভাবে অতিগোপনে তিনি মুক্তিযোদ্ধাদের জন্য ওয়াকিটকিসহ বিভিন্ন সরঞ্জামাদি পাঠিয়েছিলেন। এসব সরঞ্জামাদি পরিচালনার জন্য তিনি তৈয়ব উদ্দিন মাহতাব ও হাসান নামে দুজন বাংলাদেশিকে প্রশিক্ষণও দিয়ে পাঠিয়েছিলেন।

আর্চার ব্লার্ড মুক্তিযুদ্ধের সময় ছিলেন ঢাকায় যুক্তরাষ্ট্রের কনসাল জেনারেল। পাকিস্তান বাহিনীর বর্বরতার সব তথ্য তিনি সংগ্রহ করে প্রতিনিয়ত যুক্তরাষ্ট্র সরকারকে পাঠাতেন এবং বাংলাদেশের পক্ষে সহযোগিতা চাইতেন। যদিও নিক্সন সরকারের অবস্থান ছিল পাকিস্তানের পক্ষে। তার এই ভূমিকায় যুক্তরাষ্ট্রের তৎকালীন পররাষ্ট্রমন্ত্রী হেনরি কিসিঞ্জার প্রচণ্ড ক্ষুব্ধ হন। এর ফলে পুরো চাকরি জীবনে আর্চারের আর পদোন্নতি হয়নি। অবশ্য চাকরি থেকে অবসর নেয়ার পর যুক্তরাষ্ট্র সরকার ৭১-এ তার ওই সাহসী ভূমিকার জন্য তাকে অ্যাওয়ার্ড দিয়েছে।

ড. মোমেন বলেন, মুক্তিযুদ্ধের সঠিক ইতিহাস এদের মূল্যায়ন ছাড়া অপূর্ণ থেকে যাবে। যারা ইতিমধ্যে মারা গেছেন তাদের মরণোত্তরসহ এই ৬ জনকে বাংলাদেশের নাগরিকত্ব প্রদান করলে পক্ষান্তরে বাংলাদেশই সম্মানিত হবে। মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী এ ব্যাপারে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেবেন বলে তাকে আশ্বাস দেন।

আগামী ২৬ ডিসেম্বর নিউইয়র্কে তাদেরকে (পরিবারের সদস্যসহ) একটি সংবর্ধনা দেয়ার আশাবাদও ব্যক্ত করেন ড. মোমেন। সূত্র: আমাদের সময়।

স্বাধীনতা যুদ্বে মতিয়া চৌধুরী

Photobucket

১৫ই আগষ্ট রাতে যা ঘটেছিল...

মিলটন আনোয়ার:

পঁচাত্তরের পনেরই আগস্ট। ভোররাত। ধানমণ্ডির বাড়িটি আক্রান্ত হওয়ার আগেই রাষ্ট্রপতি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান আত্মীয় ও মন্ত্রিসভার সদস্য আবদুর রব সেরনিয়াবাতের হত্যাকাণ্ডের খবর পেয়ে যান।

যে ঘরে বঙ্গবন্ধু ছিলেন তার বাইরের বারান্দায় ঘুমিয়েছিল মো. সেলিম (আব্দুল) ও আব্দুর রহমান শেখ (রমা)।

উপর থেকেই বঙ্গবন্ধু নিচতলায় ব্যক্তিগত সহকারি এ এফ এম মহিতুল ইসলামকে টেলিফোনে বলেন, ‘সেরনিয়াবাতের বাসায় দুষ্কৃতকারীরা আক্রমণ করেছে। জলদি পুলিশ কন্ট্রোল রুমে ফোন লাগা।’ পুলিশ কন্ট্রোল রুমে ফোন করে সাড়া না পেয়ে মহিতুল গণভবন (তৎকালীন রাষ্ট্রপতির কার্যালয়) এক্সচেঞ্জে যোগাযোগের চেষ্টা করতে থাকেন।

ভোর সাড়ে ৫টায় বঙ্গবন্ধুর বাড়ির রক্ষীরা বিউগল বাজিয়ে জাতীয় পতাকা উত্তোলন শুরু করা মাত্রই বাড়িটি লক্ষ্য করে দক্ষিণ দিক থেকে সরাসরি আক্রমণ শুরু হয়।

একটু পরেই বঙ্গবন্ধু তার ঘরের দরজা খুলে বারান্দায় বেরিয়ে আসেন। ঘুম থেকে ওঠে গৃহকর্মী আব্দুল আর রমা। বেগম মুজিবের কথায় রমা নিচে নেমে মেইন গেটের বাইরে এসে দেখেন সেনাবাহিনীর কিছু সদস্য গুলি করতে করতে বঙ্গবন্ধুর বাড়ির দিকে এগুচ্ছে।

রমা বাড়ির ভেতরে ফিরে দেখেন, লুঙ্গি আর গেঞ্জি পরা অবস্থাতেই বঙ্গবন্ধু নিচতলায় নামছেন। দোতলায় গিয়ে দেখেন বেগম মুজিব আতঙ্কিত অবস্থায় ছোটাছুটি করছেন। রমা আর দোতলায় দাঁড়িয়ে না থেকে তিনতলায় চলে যান এবং বঙ্গবন্ধুর বড় ছেলে শেখ কামাল ও তার স্ত্রী সুলতানা কামালকে ঘুম থেকে তুলেন।

ঘটনা শুনে শার্ট-প্যান্ট পরে নিচতলায় নামেন শেখ কামাল। সুলতানা কামাল আসেন দোতলা পর্যন্ত।

রমা দোতালায় শেখ জামাল ও তার স্ত্রীকেও ঘুম থেকে তুলেন। জামা-কাপড় পরে শেখ জামাল তার স্ত্রীকে নিয়ে দোতলায় বেগম মুজিবের কক্ষে যান।

ওদিকে গোলাগুলির মধ্যে অভ্যর্থনা কক্ষে বঙ্গবন্ধুর সামনেই বিভিন্ন জায়গায় ফোন করতে থাকেন মহিতুল।

পুলিশ কন্ট্রোল রুম ও গণভবন এক্সচেঞ্জে চেষ্টার একপর্যায়ে রিসিভার নিয়ে বঙ্গবন্ধু নিজেই বলেন, ‘আমি প্রেসিডেন্ট শেখ মুজিব বলছি ঃ’। বঙ্গবন্ধু তার কথা শেষ করতে পারেননি। একঝাঁক গুলি জানালার কাচ ভেঙে অফিসের দেয়ালে লাগে। কাচের এক টুকরায় মহিতুলের ডান হাতের কনুই জখম হয়। ওই জানালা দিয়ে গুলি আসতেই থাকে। বঙ্গবন্ধু টেবিলের পাশে শুয়ে পড়েন এবং মহিতুলের হাত ধরে কাছে টেনে শুইয়ে দেন।

এর মধ্যেই গৃহকর্মী আব্দুলকে দিয়ে বঙ্গবন্ধুর কাছে তার পাঞ্জাবি ও চশমা পাঠিয়ে দেন বেগম মুজিব। কিছুক্ষণ পর গুলিবর্ষণ থেমে গেলে বঙ্গবন্ধু উঠে দাঁড়িয়ে আব্দুলের হাত থেকে পাঞ্জাবি আর চশমা নিয়ে পরেন। নিচতলার এই ঘর থেকে বারান্দায় বের হয়ে বঙ্গবন্ধু পাহারায় থাকা সেনা ও পুলিশ সদস্যদের বলেন, ‘এতো গুলি হচ্ছে, তোমরা কী করছো?’ এ কথা বলেই বঙ্গবন্ধু উপরে চলে যান।

বঙ্গবন্ধু উপরে উঠতে না উঠতেই শেখ কামাল নিচে নেমে বারান্দায় দাঁড়িয়ে বলেন, ‘আর্মি আর পুলিশ ভাইরা, আপনারা আমার সঙ্গে আসেন।’ এ সময় শেখ কামালের পেছনে গিয়ে দাঁড়ান মহিতুল ইসলাম ও পুলিশের ডিভিশনাল সুপারিনটেনডেন্ট (ডিএসপি) নুরুল ইসলাম খান।

ঠিক তখনই মেজর নূর, মেজর মহিউদ্দিন (ল্যান্সার) এবং ক্যাপ্টেন বজলুল হুদা সৈন্যদের নিয়ে বঙ্গবন্ধুর বাড়িতে ঢোকে। গেটের ভেতর ঢুকেই তারা ‘হ্যান্ডস্ আপ’ বলে চিৎকার করতে থাকে। মহিতুল ইসলামকে টেনে ঘরের মধ্যে নিয়ে যান নুরুল ইসলাম খান।

কোনো কথা না বলেই শেখ কামালের পায়ে গুলি করে বজলুল হুদা। নিজেকে বাঁচাতে লাফ দিয়ে ঘরের মধ্যে গিয়ে পড়েন শেখ কামাল। মহিতুলকে বলতে থাকেন, ‘আমি শেখ মুজিবের ছেলে শেখ কামাল। আপনি ওদেরকে বলেন।’ মহিতুল ঘাতকদের বলেন, ‘উনি শেখ মুজিবের ছেলে শেখ কামাল।’

এই কথা বলার সঙ্গে সঙ্গে শেখ কামালকে লক্ষ করে বজলুল হুদা তার হাতের স্বয়ংক্রিয় অস্ত্র দিয়ে ব্রাশফায়ার করে। সঙ্গে সঙ্গে মারা যান শেখ কামাল। এর মধ্যে একটা গুলি মহিতুলের হাটুতে, আরেকটা নুরুল ইসলামের পায়ে লাগে।

এ অবস্থাতেই মহিতুলকে টেনে নুরুল ইসলাম তার কক্ষে নিয়ে যান। সেখানে তারা দেখেন, পুলিশের বিশেষ শাখার এক সদস্য দাঁড়িয়ে ভয়ে কাঁপছে। অস্ত্রটা তার পায়ের কাছে পড়ে আছে। মুহূর্তের মধ্যে ওই ঘরে ঢুকে বজলুল হুদা সবাইকে বাইরে গিয়ে দাঁড়ানোর আদেশ দেন।

নিচে কী হচ্ছে তার কিছুটা আঁচ করতে পেরেছিলেন বঙ্গবন্ধু। তিনি দোতলায় তার ঘরের দরজা বন্ধ করে বিভিন্ন জায়গায় ফোন করতে থাকেন। একপর্যায়ে ফোনে তার সামরিক সচিব কর্নেল জামিলউদ্দিনকে পান। তিনি তাকে বলেন, ‘জামিল, তুমি তাড়াতাড়ি আসো। আর্মির লোকরা আমার বাসা অ্যাটাক করেছে। শফিউল্লাহকে ফোর্স পাঠাতে বলো।’

তৎকালীন সেনাপ্রধান জেনারেল শফিউল্লাহকেও ফোন করেন বঙ্গবন্ধু। তিনি তাকে বলেন, ‘শফিউল্লাহ তোমার ফোর্স আমার বাড়ি অ্যাটাক করেছে, কামালকে (শেখ কামাল) বোধ হয় মেরে ফেলেছে। তুমি জলদি ফোর্স পাঠাও।’

জবাবে শফিউল্লাহ বলেন, ‘আই অ্যাম ডুয়িং সামথিং। ক্যান ইউ গেট আউট অফ দ্যা হাউজ?’

বঙ্গবন্ধুর কথা শোনার পরই কর্নেল জামিল তার ব্যক্তিগত লাল রঙের গাড়িটি নিয়ে বঙ্গবন্ধুর বাসার উদ্দেশ্যে রওনা হন। সঙ্গে ছিলেন নিজের গাড়িচালক আয়েনউদ্দিন মোল্লা। কিন্তু পথেই সোবাহানবাগ মসজিদের কাছে তাকে গুলি করে হত্যা করে ঘাতকরা। পালিয়ে বেঁচে যান আয়েনউদ্দিন।

এদিকে বঙ্গবন্ধুর বাড়ির গেটের সামনে মহিতুল, নুরুল ইসলাম, আব্দুল মতিন, পুলিশের বিশেষ শাখার সদস্যসহ অন্য সদস্যদের সারি করে দাঁড় করানো হয়। এর মধ্যে ঘাতকদের একজন পুলিশের বিশেষ শাখার সদস্যকে গুলি করলে গুলিবিদ্ধ হয়ে তিনি পড়ে যান।

এরপর ঘাতকরা গুলি করতে করতে ওপরে চলে যায়। তারা শেখ জামালের ঘরের বাথরুমে আশ্রয় নেওয়া গৃহকর্মী আব্দুলকে গুলি করে। হাতে ও পেটে গুলিবিদ্ধ অবস্থাতে তিনি সিঁড়ির পাশে গিয়ে হেলান দিয়ে বসে থাকেন।

‘তোরা কী চাস? কোথায় নিয়ে যাবি আমাকে?’

বঙ্গবন্ধুর ঘরে তিনি ছাড়াও ছিলেন বেগম মুজিব, শেখ জামাল, শেখ রাসেল, সুলতানা কামাল, রোজী জামাল। ঘাতকরা বঙ্গবন্ধুর ঘরের বাইরে অবস্থান নেয়। গোলাগুলি থামলে বঙ্গবন্ধু দরজা খুলে বারান্দায় বেরিয়ে আসলেই ঘাতকরা তাকে ঘিরে ধরে। মেজর মহিউদ্দিন ও তার সঙ্গের সৈন্যরা বঙ্গবন্ধুকে নিচে নিয়ে যেতে থাকে। ঘাতকদের উদ্দেশ্যে বঙ্গবন্ধু বলেন, ‘তোরা কী চাস? কোথায় নিয়ে যাবি আমাকে?’

#

রক্তে ভেসে যায় সারা সিঁড়ি

বঙ্গবন্ধুর ব্যক্তিত্বের কাছে মহিউদ্দিন ঘাবড়ে যায়। বঙ্গবন্ধু বলেন, ‘তোরা আমাকে কোথায় নিয়ে যাবি, কী করবি, বেয়াদবি করছিস কেন?’ এ সময় নিচতলা ও দোতলায় সিঁড়ির মাঝামাঝি অবস্থান নেয় বজলুল হুদা ও নূর। বঙ্গবন্ধুকে নিচে নিয়ে আসার সময় নূর কিছু একটা বললে মহিউদ্দিন সরে দাঁড়ায়। সঙ্গে সঙ্গে বজলুল হুদা ও নূর তাদের স্টেনগান দিয়ে বঙ্গবন্ধুকে গুলি করে।

বঙ্গবন্ধুর বুকে ও পেটে ১৮টি গুলি লাগে। নিথর দেহটা সিঁড়ির মধ্যে পড়ে থাকে। সারা সিঁড়ি ভেসে যায় রক্তে।

#

রমাই প্রথম বেগম মুজিবকে জানায়, বঙ্গবন্ধুকে গুলি করা হয়েছে

বঙ্গবন্ধুর পেছন পেছন রমাও যাচ্ছিল। কিন্তু, ঘাতকরা তাকে ঘরের মধ্যে চলে যেতে বলে। এর মধ্যে দোতলায় শেখ রেহানার ঘরে থাকা তার চাচা শেখ নাসের ওই কক্ষে যান। তার হাতে গুলি লাগার ক্ষত ছিল। রমাই প্রথম বেগম মুজিবকে জানায়, বঙ্গবন্ধুকে গুলি করা হয়েছে।

এ সময় ওই ঘরের বাথরুমে আশ্রয় নেন বেগম মুজিব, শেখ জামাল, শেখ রাসেল, সুলতানা কামাল, রোজী জামাল, শেখ নাসের ও রমা। ঘাতকরা বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করে নিচে নেমে এসে বাড়ি থেকে বেরিয়ে যায়।

এরপর পরই মেজর আজিজ পাশা ও রিসালদার মোসলেউদ্দিন তাদের সৈন্যসহ বঙ্গবন্ধুর বাড়িতে আসে। আজিজ পাশা তার সৈন্যদের নিয়ে দোতলায় চলে যায়। তারা বঙ্গবন্ধুর ঘরের দরজায় ধাক্কা দিতে থাকে। একপর্যায়ে তারা দরজায় গুলি করে। তখন বেগম মুজিব দরজা খুলে দেন এবং ঘরের মধ্যে যারা আছে তাদের না মারার জন্য অনুরোধ করেন। ঘাতকরা বেগম মুজিব, শেখ রাসেল, শেখ নাসের ও রমাকে নিচে নিয়ে আসতে থাকে।

সিঁড়িতে বঙ্গবন্ধুর লাশ দেখেই বেগম মুজিব কান্নায় ভেঙে পড়েন এবং চিৎকার দিয়ে বলেন, ‘আমি যাব না, আমাকে এখানেই মেরে ফেল।’

#

রক্তক্ষরণে বিবর্ণ হয়ে যায় সুলতানা কামালের মুখ

বেগম মুজিব নিচে নামতে অস্বীকৃতি জানান। ঘাতকরা শেখ রাসেল, শেখ নাসের ও রমাকে নিচে নিয়ে যায়। আর, বেগম মুজিবকে তার ঘরে ফিরিয়ে নিয়ে আসে। বেগম মুজিবসহ বঙ্গবন্ধুর ঘরে আগে থেকেই অবস্থান নেওয়া শেখ জামাল, সুলতানা কামাল ও রোজী জামালকে নির্বিচারে গুলি করে হত্যা করে আজিজ পাশা ও রিসালদার মোসলেউদ্দিন।

বেগম মুজিবের নিথর দেহটি ঘরের দরজায় পড়ে থাকে। বাঁ দিকে পড়ে থাকে শেখ জামালের মৃতদেহ। রোজী জামালের মুখে গুলি লাগে। আর রক্তক্ষরণে বিবর্ণ হয়ে যায় সুলতানা কামালের মুখ।

#

শেখ মুজিব বেটার দ্যান শেখ নাসের

শেখ নাসের, শেখ রাসেল আর রমাকে নিচে নিয়ে যাওয়া হয়। তাদের সবাইকে লাইনে দাঁড় করানো হয়। এ সময় শেখ নাসের ঘাতকদের উদ্দেশ্যে বলেন, ‘আমি তো রাজনীতি করি না। কোনো রকম ব্যবসা-বাণিজ্য করে খাই।’ ঘাতকরা একে অপরকে বলে, ‘শেখ মুজিব বেটার দ্যান শেখ নাসের।’

এরপর তারা শেখ নাসেরকে বলে, ‘ঠিক আছে। আপনাকে কিছু বলব না। আপনি ওই ঘরে গিয়ে বসেন।’ এই বলে তাকে অফিসের সঙ্গে লাগোয়া বাথরুমে নিয়ে গুলি করে। এরপর শেখ নাসের ‘পানি পানি’ বলে গোঙাতে থাকেন। তখন শেখ নাসেরের ওপর আরেকবার গুলিবর্ষণ করা হয়।

#

‘ভাইয়া, আমাকে মারবে না তো?’

লাইনে দাঁড়িয়ে শেখ রাসেল প্রথমে রমাকে ও পরে মহিতুল ইসলামকে জড়িয়ে ধরে বলে, ‘ভাইয়া, আমাকে মারবে না তো?’

মহিতুল জবাব দেয়, ‘না ভাইয়া, তোমাকে মারবে না।’ এ সময় শেখ রাসেল তার মায়ের কাছে যেতে চাইলে আজিজ পাশা মহিতুলের কাছ থেকে জোর করে তাকে দোতলায় নিয়ে যেতে বলে।

আজিজ পাশার কথামতো এক হাবিলদার শেখ রাসেলকে দোতলায় নিয়ে গিয়ে গুলি করে হত্যা করে। রাসেলের চোখ বের হয়ে যায়। আর মাথার পেছনের অংশ থেতলে যায়। রাসেলের দেহটি পড়ে থাকে সুলতানা কামালের পাশে।

পুরো ঘরের মেঝেতে মোটা রক্তের আস্তর পড়ে গিয়েছিল। এর মাঝেই ঘাতকের দল লুটপাট চালায়।

বঙ্গবন্ধুর বাড়িতে সেদিন তার দু’ মেয়ে ছিলেন না। বড় মেয়ে শেখ হাসিনা স্বামীর সঙ্গে জার্মানিতে ছিলেন। ছোট বোন শেখ রেহানাকেও নিয়ে গিয়েছিলেন তারা।

#

ঘাতকদের প্রস্তুতি

১৯৭৫ সালের ১৪ আগস্ট সন্ধ্যা ঘনিয়ে আসার সঙ্গে সঙ্গে সেনাবাহিনীর টু-ফিল্ড রেজিমেন্টের যানবাহনগুলো সচল হয়ে ওঠে। ক্যান্টনমেন্টের দক্ষিণে অবস্থিত ইউনিট থেকে ১০৫ এমএম কামানগুলোকে ভারি ট্রাক দিয়ে টেনে নির্মাণাধীন জিয়া আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে নিয়ে যাওয়া হয় নিয়মিত নৈশ প্রশিক্ষণের জন্য। রাত ১০টায় সেনানিবাসের উত্তর প্রান্ত থেকে বেঙ্গল ল্যান্সারের টি-৫৪ ট্যাংকগুলো ইউনিট থেকে বেরিয়ে পড়ে। এয়ারপোর্টে ১৮টি কামান ও ২৮টি ট্যাংক একত্রিত হয়।

রাত সাড়ে ১১টার দিকে মেজর ডালিম, মেজর নূর, মেজর হুদা, মেজর শাহরিয়ার, মেজর পাশা, মেজর রাশেদ প্রমুখ সেখানে জড়ো হয়।

১৫ আগস্ট রাতের প্রথম প্রহরে মেজর ফারুক অফিসারদের নির্দেশ দেয়Ñ বিমান বন্দরের কাছে হেড কোয়ার্টারে স্কোয়াড্রন অফিসে মিলিত হতে। অফিসারদের আপারেশনের পরিকল্পনা জানায় মেজর ফারুক।

সে-ই ছিলো এই অপারেশনের দায়িত্বে। প্রধান টার্গেট বঙ্গবন্ধুর বাড়ি সরাসরি আক্রমণের পরিকল্পনা করা হয়। ওই বাড়িকে ঘিরে দু’টো বৃত্ত তৈরির সিদ্ধান্ত হয়। আরো সিদ্ধান্ত হয়, ভেতরের বৃত্তের সদস্যরা সরাসরি বঙ্গবন্ধুর বাড়ি আক্রমণ করবে। বাইরে থেকে রক্ষীবাহিনী বা ভেতর থেকে সেনাবাহিনীর কোনো আক্রমণ এলে তা ঠেকানোর দায়িত্বে দেওয়া হয় বাইরের বৃত্তের সদস্যদের।

এর দায়িত্ব দেওয়া হয় মেজর নূর ও মেজর হুদাকে। সিদ্ধান্ত হয়- তারা ধানমণ্ডি ২৭ নম্বর রোড, সোবাহানবাগ মসজিদ এবং ৩২ নম্বর ব্রিজে রোড ব্ল¬ক করবে। প্রধান টার্গেট বঙ্গবন্ধুর বাসা আক্রমণের সঙ্গে সঙ্গে ধানমণ্ডিতেই শেখ ফজলুল হক মণি এবং আব্দুর রব সেরনিয়াবাতের বাসায় আক্রমণেরও সিদ্ধান্ত হয়।

ডালিমকে বঙ্গবন্ধুর বাসায় আক্রমণের সময় উপস্থিত থাকতে অনুরোধ করেন মেজর ফারুক। কিন্তু পূর্ব সম্পর্কের অজুহাতে বঙ্গবন্ধুর বাসায় আক্রমণে উপস্থিত না থেকে স্বেচ্ছায় সেরনিয়াবাতের বাসায় আক্রমণের দায়িত্ব নেয় ডালিম।

ভারি মেশিনগান সংযোজিত দ্রুতগতির একটি জিপে রওনা দেয় ডালিম। সঙ্গে এক প্লাটুন ল্যান্সারসহ একটি বড় ট্রাক।

শেখ মণির বাসায় আক্রমণের দায়িত্ব দেয়া হয় রিসালদার মোসলেমউদ্দিনকে। তার সঙ্গে দেওয়া হয় দু’প্ল¬াটুন সৈন্য।

এক কোম্পানি সেনাসহ রেডিও স্টেশন, বিশ্ববিদ্যালয় ও নিউমার্কেট এলাকার দায়িত্বে থাকেন মেজর শাহরিয়ার। একই সঙ্গে ওই গ্র“পকে বিডিআর থেকে কোনো ধরনের আক্রমণ হলে প্রতিহত করার দায়িত্বও দেওয়া হয়।

২৮টি গোলাবিহীন ট্যাংক নিয়ে শের-ই বাংলা নগরে রক্ষীবাহিনীকে প্রতিহত করার দায়িত্ব নেন মেজর ফারুক নিজে। তবে ট্যাংকের মেশিনগানগুলোয় প্রচুর গুলি ছিল। মেজর মহিউদ্দিনের নেতৃত্বে বঙ্গবন্ধুর বাড়ি আক্রমণের জন্য ১২টি ট্রাকে সাড়ে তিনশ সাধারণ সৈনিককে তৈরি করা হয়।

মেজর রশিদের সরাসরি কোনো আক্রমণের দায়িত্ব ছিল না। তার দায়িত্ব ছিল হত্যাকাণ্ড পরবর্তী পরিস্থিতি সামাল দেওয়া এবং সার্বিক রাজনৈতিক পরিস্থিতি সমন্বয় করা।

তার নেতৃত্বে থাকা ১৮টি কামান গোলাভর্তি করে যুদ্ধাবস্থায় তৈরি রাখা হয়। কামানগুলো রক্ষীবাহিনীর হেড কোয়ার্টার এবং বঙ্গবন্ধুর বাসা লক্ষ্য করে তাক করা হয়। একটি মাত্র ১০৫ এমএম হাউইটজার কামান রাখা হয় আর্টিলারির মেজর মহিউদ্দিনের অধীনে বঙ্গবন্ধুর বাড়ির উল্টো দিকে লেকের পাড়ে।

দায়িত্ব বুঝিয়ে দেওয়ার পর সবাইকে তাজা বুলেট ইসু করা হয়। ঘাতকের দল বিমানবন্দর এলাকা থেকে ভোররাত ৪টার দিকে ধানমণ্ডির উদ্দেশে যাত্রা শুরু করে। ফারুকের নেতৃত্বে ২৮টি ট্যাংক বিমানবন্দর সড়কে বনানীর এমপি. চেকপোস্ট দিয়ে সেনানিবাসের ভেতরে ঢুকে পড়ে। এর মধ্যে ফজরের আজান পড়ে যায়।

ফারুক তার ট্যাংক নিয়ে ৪৬ ব্রিগেড ইউনিটের লাইনের একেবারে ভেতর দিয়ে বাইপাস সড়ক ধরে সেনাসিবাসের প্রধান সড়কে চলে আসে। ঢাকা সেনানিবাসে সে সময়ে বিমানবাহিনীর যে হেলিপ্যাড ছিল, তার ঠিক উল্টো দিকের একটি গেট দিয়ে ফারুক তার ট্যাংক নিয়ে বিমানবন্দরের (পুরনো বিমানবন্দর) ভেতর ঢুকে পড়ে। এ সময় ফারুককে অনুসরণ করছিল মাত্র দুটি ট্যাংক। বাকি ট্যাংকগুলো পথ হারিয়ে জাহাঙ্গীর গেট দিয়ে ফার্মগেটের দিকে এগুতে থাকে।

ফারুক এয়ারপোর্টের পশ্চিম দিকের দেয়াল ভেঙে রক্ষীবাহিনীর হেডকোয়ার্টারের সামনে উপস্থিত হয়।

ভোর সোয়া ৫টার দিকে মেজর ডালিম ও রিসালদার মোসলেমউদ্দিনের নেতৃত্বে আব্দুর রব সেরনিয়াবাত ও শেখ মণির বাসা আক্রান্ত হয়।

শেখ মণি ও তার অন্তঃসত্ত্বা স্ত্রীকে হত্যা করে ঘাতকরা। বেঁচে যান শেখ মণির ছেলেম শেখ ফজলে শামস পরশ ও শেখ ফজলে নূর তাপস।

ডালিমের নেতৃত্বে হত্যা করা হয় আবদুর রব সেরনিয়াবাত, তার ১৪ বছর বয়সী মেয়ে বেবী, ১২ বছরের ছেলে আরিফ, চার বছরের নাতি বাবু (আবুল হাসনাত আবদুল্লার ছেলে), ভাতিজা শহীদ সেরনিয়াবাত, ভাগ্নে আবদুল নইম খান রিন্টু (আওয়ামী লীগ নেতা আমীর হোসেন আমুর খালাতো ভাই), তিন অতিথি এবং চারজন কাজের লোককে।

#

দাফন

পরের দিন ঢাকার স্টেশন কমান্ডার আব্দুল হামিদ বঙ্গবন্ধুর লাশ ছাড়া ১৫ আগস্টে নিহতদের লাশ দাফন করেন। আব্দুল হামিদ ধানমণ্ডির ৩২ নম্বরের বাসভবন থেকে কফিনে নিহতদের লাশ এবং ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের মর্গ থেকে শেখ মণি ও আবদুর রব সেরনিয়াবাতের পরিবারের সদস্যদের লাশ সংগ্রহ করে বনানী গোরস্থানে দাফনের ব্যবস্থা করেন।

বনানী কবরস্থানে সারিবদ্ধ কবরের মধ্যে প্রথমটি বেগম মুজিবের, দ্বিতীয়টি শেখ নাসেরের, এরপর শেখ কামাল, সুলতানা কামাল, শেখ জামাল, রোজী জামাল, শেখ রাসেল, ১৩ নম্বরটি শেখ মণির, ১৪ নম্বরটি আরজু মণির, ১৭ নম্বরটি সেরনিয়াবাতের আর বাকি কবরগুলো সেদিন এই তিন বাড়িতে যারা মারা গিয়েছিলেন তাদের। ১৬ আগস্ট সেনাবাহিনীর হেলিকপ্টারে বঙ্গবন্ধুর লাশ নিয়ে যাওয়া হয় টুঙ্গীপাড়ায়। সেখানে তাকে দাফন করা হয় তার বাবার কবরের পাশে। সেনাবাহিনীর ওই হেলিকপ্টারের পাইলট ছিলেন ফ্লাইট লে. শমশের আলী।

সূত্র: বঙ্গবন্ধু হত্যা মামলায় দেওয়া এ এফ এম মহিতুল ইসলাম, আব্দুর রহমান শেখ (রমা), মো. সেলিম (আব্দুল), অবসরপ্রাপ্ত হাবিলদার মো. কুদ্দুস শিকদার, অবসরপ্রাপ্ত লে. কর্নেল আব্দুল হামিদ, সাবেক সেনাপ্রধান শফিউল্লাহ, আয়েনউদ্দিন মোল্লা ( সোবহানবাগে নিহত বঙ্গবন্ধুর সামরিক সচিব কর্নেল জামিলউদ্দিনের গাড়িচালক) এর সাক্ষ্য এবং অবসরপ্রাপ্ত লে. কর্নেল আব্দুল হামিদের বই ‘তিনটি সেনা অভ্যুত্থান ও কিছু না বলা কথা’।
http://www.amadershomoy.com/content/2010/01/28/news0831.htm

১৯৭১ সালের অস্থায়ী বাংলাদেশ সরকার

অস্থায়ী সরকারের গঠন

রাষ্ট্রপতি- শেখ মুজিবুর রহমান (অনুপস্থিত)

উপরাষ্ট্রপতি- সৈয়দ নজরুল ইসলাম (রাষ্ট্রপতির অনুপস্থিতিতে অস্থায়ী রাষ্ট্রপতির দায়িত্ব পালন)

প্রধানমন্ত্রী- তাজউদ্দীন আহমদ
[সম্পাদনা] মন্ত্রণালয় ও দায়িত্বপ্রাপ্ত মন্ত্রীগণ
নং মন্ত্রণালয়সমূহের নাম [৯]
১ প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়।
২. পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়।
৩ অর্থ,শিল্প ও বানিজ্য মন্ত্রণালয়।
৪ মন্ত্রিপরিষদ সচিবালয়।
৫ সাধারণ প্রশাসন বিভাগ।
৬ স্বাস্থ্য ও কল্যাণ মন্ত্রণালয়।
৭ তথ্য ও বেতার মন্ত্রণালয়।
৮ স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়।
৯ ত্রাণ ও পুনর্বাসন মন্ত্রণালয়।
১০ সংসদ বিষয়ক বিভাগ।
১১ কৃষি বিভাগ।
১২ প্রকৌশল বিভাগ।
নং মন্ত্রীর নাম দ্বায়িত্বপ্রাপ্ত মন্ত্রণালয় [৯]
১ তাজউদ্দীন আহমদ ক- প্রধানমন্ত্রী খ- প্রতিরক্ষা

গ- তথ্য ও বেতার এবং টেলিযোগাযোগ

ঘ- অর্থনৈতিক বিষয়, পরিকল্পনা ও উন্নয়ন

ঙ- শিক্ষা,স্থানীয় স্বায়াত্তশাষন সরকার, স্বাস্থ্য,শ্রম ও সমাজকল্যান

চ- সংস্থাপন ও প্রশাসন

ছ- যেসব বিষয়ের দায়িত্ব মন্ত্রিপরিষদের অন্য কোন সদস্যকে প্রদান করা হয়নি
২ খন্দকার মোশতাক আহমেদ ক- পররাষ্ট্র বিষয় খ- আইন ও সংসদ বিষয়
৩ এম মনসুর আলী ক- অর্থ ও জাতীয় রাজস্ব খ- বাণিজ্য ও শিল্প

গ- পরিবহণ
৪ এ এইচ এম কামরুজ্জামান ক- স্বরাষ্ট্র বিষয়ক খ- সরবরাহ, ত্রাণ ও পুনর্বাসন

গ- কৃষি

মন্ত্রণালয়ের বাইরে আরো কয়েকটি সংস্থা ছিল যারা সরাসরি মন্ত্রিপরিষদের কর্তৃত্বাধীনে কাজ করত। যেমনঃ

1. - পরিকল্পনা কমিশন
2. - শিল্প ও বাণিজ্য বোর্ড
3. - নিয়ন্ত্রণ বোর্ড, যুব ও অভ্যর্থনা শিবির
4. - ত্রাণ ও পুনর্বাসন কমিটি
5. - শরণার্থী কল্যাণ বোর্ড ।[৯]

উপরাষ্ট্রপতির দপ্তর[১৩]

উপদেষ্টাবৃন্দ- মোহাম্মদ উল্লাহ (এম এন এ), সৈয়দ আবদুস সুলতান (এম এন এ), কোরবান আলি (এম এন এ)

একান্ত সচিব- কাজী লুৎফুল হক

সহকারী সচিব- আজিজুর রহমান

প্রধান নিরাপত্তা অফিসার- সৈয়দ এম করিম

প্রধানমন্ত্রীর দপ্তর[১৩]

এডিসি- মেজর নূরুল ইসলাম

একান্ত সচিব- ডাঃ ফারুক আজিজ

তথ্য অফিসার- আলী তারেক
[সম্পাদনা] মন্ত্রণালয়সমূহের বিবরণী
প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়[১৩]
পদের নাম দায়িত্বপ্রাপ্ত ব্যক্তি
প্রধান সেনাপতি কর্নেল এম এ জি ওসমানী
চিফ অব স্টাফ কর্নেল এম এ রব
বিমান বাহিনী প্রধান গ্রুপ ক্যাপ্টেন এ কে খোন্দকার
প্রধান সেনাপতির এডিসি লেঃ নূর
প্রতিরক্ষা সচিব আবদুস সামাদ
উপ সচিব আকবর আলি খান

এস এ ইমাম
সহকারী সচিব নূরুল ইসলাম চৌধুরী

এম এইচ সিদ্দিকী
কেবিনেট ও সংস্থাপন মন্ত্রণালয়[১৩]
পদের নাম দায়িত্বপ্রাপ্ত ব্যক্তি
প্রধান সচিব রুহুল কুদ্দুস
সংস্থাপন সচিব নূরুল কাদের খান
কেবিনেট সচিব এইচ টি ইমাম
উপ-সচিব কামাল উদ্দিন আহম্মদ

তৌফিক এলাহী চৌধুরী

দীপক কুমার চৌধুরী

ওলিউল ইসলাম
সহকারী সচিব বজলুর রহমান

নরেশ চন্দ্র রায়

মতিউর রহমান

এম এ আউয়াল

আবু তালেব

মোহাম্মদ হেদায়েত উল্ল্যা

কামাল উদ্দিন সিদ্দিকী

শাহ মতিউর রহমান
পরিকল্পনা কমিশন[১৩]
পদের নাম দায়িত্বপ্রাপ্ত ব্যক্তি
চেয়ারম্যান ডঃ মুজাফফর আহমদ চৌধুরী
সদস্য স্বদেশ বসু

ডঃ মোশাররফ হোসেন

ডঃ আনিসুজ্জামান

ডঃ খান সরওয়ার মোর্শেদ
দেপুটি চীফ এ এ মাসুদ মিঞা

কে এস ডি সরমান

এ এস এম হোসেন

এম খালেকুজ্জামান

এ কে রায়

ডঃ ওয়াজিঊর রহমান

ডঃ এম নুরুল ইসলাম
রিসার্স অফিসার ডি কে কলিন নো

তপন কুমার বোস

এম এ নওজেশ আলী

ডি কে নাথ
স্বরাষ্ট্র,ত্রাণ ও পুনর্বাসন মন্ত্রণালয়[১৩]
সচিব এম এ খালেক
উপ-সচিব খসরুজ্জামান চৌধুরী
সহকারী সচিব সৈয়দ মাহবুবুর রশিদ

জ্ঞানরঞ্জন সাহা

গোলাম আকবর
স্টাফ অফিসার এম এ গাফফার
জেলা আনসার অফিসার শরীফুল হক

রশীদ বখত মজুমদার
মহাকুমা আনসার অফিসার সৈয়দ হাবিবুল বারী
আনসার অফিসার শামসুর রহমান

আকরাম হোসেন

তবিবুর রহমান

এ কে হুমায়ূন

কে জি কাদের

আবুল বাশার

আবদুল মান্নান

আলী আকবর

মোঃ জহির উদ্দিন
প্রেস,তথ্য,বেতার,ফিল্ম,আর্ট অ্যান্ড ডিজাইন[১৩]
পদের নাম দায়িত্বপ্রাপ্ত ব্যক্তি
এম এন এ ইনচার্জ জনাব আবদুল মান্নান (এম এন এ)
সচিব (প্রথম) আবদুস সামাদ ( ৩ সেপ্টে-১৩ অক্টো)
সচিব (দ্বিতীয়) আনোয়ারুল হক খান (১৪ অক্টো-১৬ ডিসে)
ডাইরেক্টর-আর্ট অ্যান্ড ডিজাইন কামরুল হাসান
ডাইরেক্টর-ফিল্ম আব্দুল জব্বার খান
ডাইরেক্টর-প্রেস অ্যান্ড পাবলিসিটি এম আর আখতার মুকুল
অর্থ,শিল্প ও বানিজ্য মন্ত্রণালয়[১৩]
পদের নাম দায়িত্বপ্রাপ্ত ব্যক্তি
মন্ত্রীর একান্ত সচিব সাফাত হোসেন
সচিব (অর্থ) খোন্দকার আসাদুজ্জামান
সহকারী সচিব (অর্থ) মাখন চন্দ্র মাঝি

শামসুদ্দিন হায়দার

ক্ষিতিশ চন্দ্র কুন্ডু

এ কে এম হেফারত উল্লাহ

আলি করি
সহকারী সচিব (শিল্প ও বাণিজ্য) মোঃ ইদ্রিস আলি

জগন্নাথ দে

এ কে আনোয়ার হক
শিক্ষা মন্ত্রণালয়[১৩]
পদের নাম দায়িত্বপ্রাপ্ত ব্যক্তি
উপদেষ্টা কামরুজ্জামান (এম এন এ)
শিক্ষা অফিসার আহমেদ হোসেন
কৃষি মন্ত্রণালয়[১৩]
পদের নাম দায়িত্বপ্রাপ্ত ব্যক্তি
সচিব নূরউদ্দিন আহমদ
উপ-সচিব শহিদুল ইসলাম
বিভাগীয় বন কর্মকর্তা এন এম সরকার

মোজাম্মেল হোসেন
পররাষ্ট্র ও আইন মন্ত্রণালয়[১৩]
পদের নাম দায়িত্বপ্রাপ্ত ব্যক্তি
সচিব মাহবুবুল আলম চাষী
ওএসডি ব্যারিস্টার [[মওদুদ আহমদ]
মন্ত্রীর একান্ত সচিব [[কামাল উদ্দিন সিদ্দিকী]

পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মিশনসমূহ[১৩]
কলকাতা
পদের নাম দায়িত্বপ্রাপ্ত ব্যক্তি
বাংলাদেশ হাই কমিশনার, কলকাতা এম হোসেন আলি
প্রথম সচিব আর আই চৌধুরী
তৃতীয় সচিব # আনোয়ারুল চৌধুরী

1. কাজী নজরুল ইসলাম

সহকারী প্রেস এ্যাটাচী এম মোকছুদ আলী
অফিসার জায়েদুর রহমান
নয়াদিল্লী
পদের নাম দায়িত্বপ্রাপ্ত ব্যক্তি
কাউন্সিলর হুমায়ূন রশীদ চৌধুরী
দ্বিতীয় সচিব কে এম শাহাবুদ্দিন
সহকারী প্রেস এ্যাটাচী আমজাদুল হক
হংকং
পদের নাম দায়িত্বপ্রাপ্ত ব্যক্তি
ট্রেড কমিশনার মহিউদ্দিন আহমদ
ফিলিপাইন
পদের নাম দায়িত্বপ্রাপ্ত ব্যক্তি
রাষ্ট্রদূত কে কে পন্নী
নিউইয়র্ক
পদের নাম দায়িত্বপ্রাপ্ত ব্যক্তি
উপ-কন্সাল এ এইচ মাহমুদ আলী
উপ-স্থায়ী প্রতিনিধি, জাতিসংঘ এম এ করিম
ওয়াশিংটন
পদের নাম দায়িত্বপ্রাপ্ত ব্যক্তি
মিনিস্টার এনায়েত করিম
রাজনৈতিক কাউন্সিলার এ এম এম এস কিবরিয়া
অর্থনৈতিক কাউন্সিলার আবুল মাল আব্দুল মুহিত
শিক্ষা ও সংস্কৃতি বিষয়ক কাউন্সিলার এ আর মতিনউদ্দিন
তৃতীয় সচিব সৈয়দ মোয়াজ্জেম আলি
একাউন্টস অফিসার এম আর চৌধুরী
সহকারী তথ্য অফিসার শেখ রুস্তম আলি
সহকারী প্রশাসনিক অফিসার এ এম এস আলম
যুক্তরাজ্য
পদের নাম দায়িত্বপ্রাপ্ত ব্যক্তি
দ্বিতীয় সচিব মহিউদ্দিন আহমদ
পরিচালক(অর্থ) এ লুৎফুল মতিন
কাউন্সিলার রেজাউল করিম
ডেপুটি ডাইরেক্টর আবদুর রঊফ
লেবার এ্যাটাচী ফজলুল হক চৌধুরী
সুইজারল্যান্ড
পদের নাম দায়িত্বপ্রাপ্ত ব্যক্তি
দ্বিতীয় সচিব ওয়ালিউর রহমান
ইরাক
পদের নাম দায়িত্বপ্রাপ্ত ব্যক্তি
রাষ্ট্রদূত এ এফ এম আবুল ফাতাহ