Ami Bangladeshi

Ami Bangladeshi

Ami Bangladeshi

Blogs

একটি কাল্পনিক রণ্ডে ভূঁ!

সাম্রাজ্যবাদ, ফ্যাসিবাদ, পুঁজিবাদ, উপনিবেশবাদ, নব্য উপনিবেশবাদ, সর্বহারাদের একনায়কতন্ত্র, এ জাতীয় ঢাউস ঢাউস কিছু কথা বলে হাঁটু পানিতে আমাকে চুবিয়ে মারতে পেরেছেন অনুভব করতে পেরে তৃপ্তির ঢেকুর তুললেন। বলাই বাহুল্য মহামান্য এই তিনি বহু-ঘাটের পোড়-খাওয়া একজন তামাটে বাম সেনা। অনেকটা অণু-পরমাণু, বিভাজন-সংযোজনার মত ছিন্ন-বিচ্ছিন্ন বিশেষ একটা রাজনৈতিক দলের প্রথম সাড়ির নেতা। সংসার বলতে কেবল দুটো বেড়াল...

জ্ঞান অর্জন করতে তোমারা সুদূর চীন দেশে যাও!

শান্তিপুর গ্রামে আজ অশান্তির ছায়া। চতুঃপার্শ্বের গ্রাম গুলোতে দাবানলের মত ছড়িয়ে পরেছে খবরটা। পঞ্চায়েত জরুরি বৈঠকে বসেছে। সিদ্ধান্ত নিয়েছে বিচার বসাবে জুমা নামাজের পর। আসামী ছ্যার ছ্যার আলী। মারাত্মক অভিযোগে অভিযুক্ত সে। আল্লাহর কালাম অবমাননা করার অভিযোগ। যেন তেন প্রকারে নয়, মাটিতে ফেলে, পায়ে দলে। উত্তেজিত হয়ে আছে শান্তিপুরের জনগণ। যে কোন সময় অঘটন ঘটে যেতে পারে। স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদে চেয়ারম্যান ইলশা হাজী বাধা না দিলে অনেক আগেই মাটিতে পিষে ফেলত তাকে...

ওহে নিবরাস ইসলাম!

কেমন আছেন জনাব? ভাল নিশ্চয়? শুনছি ঢাকার কোন এক হীমাগারে লাশ হয়ে বিশ্রামে আছেন আপাতত। কবরে যাওয়ার সময় কি হয়নি এখনো? তাহলে আর দেরী কেন? যত দ্রুত যাবেন তত দ্রুতই স্বর্গের সুশীতল বাতাস, সুস্বাদু আহার, লাল নীল পানীয় আর তুলতুলে নরম গরম শরীরের পরীদের ভোগ করার কথা। দেরী মানেই তো স্বর্গসূখ হতে বঞ্চিত হওয়া। এসবের জন্যেই তো সুদূর তুরস্ক হয়ে সিরিয়ার পথে পা বাড়িয়েছিলেন। মিশন একমপ্লিশড্‌! দেরী নিশ্চয় আপনার মেনুতে ছিলনা? আপনি দেখতে পাচ্ছেন কিনা জানিনা তবে আমরা পাচ্ছি, আপনাকে কবরে নিয়ে যাওয়ার মতও কেউ নেই...

বাংলাদেশি হাই-প্রোফাইল মহিলা জংগী...

কথা বাইরের কাউকে নিয়ে নয়। অধমের নিজের চক্ষুতে দেখা ও নিজের কানে শ্রবণ করা। ঘটনা একজন মহিলাকে নিয়ে। নির্দিষ্ট করে বললে একজন অথবা একাধিক প্রবাসী বাংলাদেশি গৃহবধূকে নিয়ে। পৃথিবীর অর্থনৈতিক রাজধানী নিউইয়র্কের কুইন্স নামের এলাকা। বাইরের পৃথিবী হতে কাউকে চোখ বেঁধে এখানে ছেড়ে দিলে হঠাৎ করে তার বুঝতে অসুবিধা হবে সে কোথায়! একজন ভারতীয় ভাববে সে কেরালায় অথবা গুজরাটে। পাকিস্তানী ভাববে করাচীর কোন গলিতে। রুশ দেশের সের্গেই ভাববে হয়ত সেন্ট পিটার্সবার্গের নেভস্কি প্রসপেক্টে...

যায় যদি যাক প্রাণ, হীরকের রাজা ভগবান!

সময়টা বিএনপি-জামাত জোটের সোনালী সময়। চারদিকে লুটপাটের মৌ মৌ গন্ধ। সবাই খাচ্ছে। হাটে-ঘাটে, বাজারে-বন্দরে, নদী-নালায় চুরি চামারির মহোৎসব। ফেইসবুক নামক এন্টি-সরকার প্রপাগান্ডা মেশিন তখনো পৃথিবীর মুখ দেখেনি। বাংলা ইউনিকোডও মাতৃগর্ভ হতে ধরণীতে পা রাখতে পারেনি। ব্লগ বলতে প্রিয় ডটকমের জননী ই-মেলা ডটকমের একক দাপট। চুটিয়ে সময় কাটাচ্ছি আমরা। ঝাল মিটিয়ে খালেদা-নিজামী গংদের ধোলাই করছি। তারেক-মামুন সিন্ডিকেটদের খাম্বা চুরি নিয়ে রামায়ন রচনা করছি...

সর্বকালের, সর্বনিকৃষ্ট জঙ্গি...

আইনের ঊর্ধ্বে উঠে যারা অস্ত্র হাতে নেয় তারাই জঙ্গি। তাদের বাকি পরিচয় মুখ্য হতে পারেনা। অন্তত: দেশের প্রচলিত আইন ও বিচার ব্যবস্থার বিবেচনায়। পুলিশ সুপার বাবুল আক্তারের স্ত্রীর হত্যাকাণ্ডে জঙ্গি সংশ্লিষ্টতা খতিয়ে দেখছেন শহরের পুলিশ কমিশনার। কথায় বলে ইট মারলে পাটকেল খেতে হয়। সরকারী স্পন্সরে দেশের এমন কোন স্তর নেই যেখানে বিনাবিচারে মানুষকে হত্যা করা হয়নি। অর্থের লোভে দেশের পুলিশ, র‍্যাব অহরহ ভাড়া খাটছে। জলজ্যান্ত মানুষকে লাশ বানিয়ে পুতে ফেলছে, ভাসিয়ে দিচ্ছে নদী-নালায়...

আমাকে গ্রেফতার করা হউক!

২০০৩ সালে নিউ ইয়র্কস্থ কুইন্সের বড় একটা স্টোরে কাজ করি। হরেক রকম গ্রাহকদের আগমন ঘটে এখানে। আমার আয়ের সবটাই কমিশন ভিত্তিক। ইংরেজি, বাংলা, রুশ,ইধার উধার টাইপের হিন্দি-উর্দু, ভাষার এই ভিন্নতা ব্যবসার অন্যতম হাতিয়ার। কারণ কুইন্সের এ এলাকায় ইংরেজির পাশাপাশি বাকি ভাষা গুলোর প্রাধান্যও কম নয়। রুশ তাদের অন্যতম। কোন এক সকালে চার জনের একটা গ্রুপ আমার সাথে দেখা করে জানতে চায় কথা বলা যাবে কি-না। গ্রাহক ভেবে বিনয়ে বিগলিত হয়ে জানালাম গ্রাহক সেবাই আমার কাজ...

৫ই মে'র ব্লাড-মানি ও শফি হুজুর

মধ্যপ্রাচ্যের অনেক দেশে খুনের দায়ে মৃত্যুদণ্ড প্রাপ্ত আসামীকে বেঁচে থাকার একটা শেষ সুযোগ দেয়া হয়। যার মূলে থাকে ব্লাড-মানি। অর্থাৎ যাকে খুন করা হয়েছে তার আত্মীয়-স্বজনদের সাথে আর্থিক লেনাদেনার বোঝাপড়ায় আসতে পারলে আসামীকে খালাস করে দেয়ার অধিকার রাখে ঐ দেশের বিচারব্যবস্থা...