Ami Bangladeshi

Ami Bangladeshi

Ami Bangladeshi

আমরা অন্ধ নই, আমাদের চোখ খোলা, আমরা দেখছি

Bangladeshi

সুযোগটা গর্ভাচেভেরই সৃষ্টি। ক্ষমতা হাতে পাওয়ার অল্পদিনের ভেতর ডিক্রি জারি করে প্রতিটা শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানকে জানিয়ে দেন এখন হতে দেশের যে কোন বিষয়ে খোলামেলা তর্ক করা যাবে। তাতে অতীতের মত সাইবেরিয়ায় নির্বাসনে যাওয়ার ভয় থাকবেনা। ব্যাপারটা হজম করার মত স্বাস্থ্যবান উদর রুশদের পেটে তখনো বেড়ে উঠেনি। তাই একনায়কতান্ত্রিক সমাজ ব্যবস্থায় তর্ক বিতর্কের সংজ্ঞা নতুন করে ফরমুলেট করার মত দার্শনিক তাৎক্ষণিক ভাবে হাতে পাওয়া যায়নি। স্বভাবতই এ নিয়ে দেখা দিল অনিশ্চয়তা। অনিশ্চয়তার ঢেউ আমাদের শ্রেণীকক্ষেও আঘাত হানল। বৈজ্ঞানিক সাম্যবাদ নামক বাধ্যতামূলক একটা সাবজেক্টে গতবাঁধা বুলি আওড়ানোর ফাঁকে শিক্ষক জানিয়ে দিলেন আজ আমাদের তর্ক করতে হবে। এবং সেটাও বাধ্যতামূলক। তর্কের বিষয়, সমাজতান্ত্রিক সমাজ ব্যবস্থায় সোভিয়েত দেশের জাতিগত সমস্যা। ১০০টা ভাষা এবং ততধিক সংস্কৃতির একটা দেশে জাতিগত কোন সমস্যা আছে কিনা তা তর্ক করে বের করতে হবে। ২৬ জনের একটা ক্লাশে প্রায় সবাই নাম লেখাল এক পক্ষে। অর্থাৎ এ দেশে এ জাতীয় কোন সমস্যা নেই। রুশ, ইউক্রেনিয়ান, তাতার, উজবেক, চেচেন, আর্মেনিয়ান, ওরা সবাই হাতে হাত রেখে সোভিয়েত পতাকার নীচে সুখে শান্তিতে বসবাস করছে। দুই পক্ষ ছাড়া যে বিতর্ক হয়না অধিকাংশ রুশদের মগজে ঢুকাতে শিক্ষকের বেশ কষ্ট হল। বিপক্ষে আমি একা। অবাক হল বাকি সবাই। অনেকে অভিযোগ করল তাদের রুটি-হালুয়া খেয়ে তাদেরই বিরোধীতা করছি। শিক্ষক অভয় দিলেন। শুরু হল বিতর্ক। রেশারেশি, ক্রোধ এবং অসন্তুষ্টি এমন একটা পর্যায়ে গেল যেখান হতে সবাই সমস্বরে জানতে চাইল সমস্যা থাকলে এর সমাধান কি। আমি নিজেও ছিলাম উত্তেজিত। হয়ত মুখ ফসকেই বলে ফেললাম, জগাখিচুড়ির সোভিয়েত দেশকে ভেঙ্গে পনেরটা দেশে পরিনত করতে হবে। এবং প্রত্যেকটা জাতিকে তার আত্মনিয়ন্ত্রণের অধিকার দিতে হবে। হা হয়ে গেল সবার মুখ। পীন পতনের নীরবতা নেমে এল ক্লাশে। দুদিন আগে এ ধরনের বক্তব্যের একটাই ছিল শাস্তি, বিদেশিদের দ্রুত বিদায় এবং স্বদেশি রুশদের নির্বাসন। সময়টা ছিল গ্লাসনস্ত ও পেরেস্ত্রইকার সময়। তাই পার পেয়ে গেলাম পরাক্রমশালী সোভিয়েত দেশের সংহতির বিরুদ্ধে কথা বলে।

পাঁচ বছর পরের কথা। ১৯৯১ সালের ডিসেম্বরের যে দিনটায় সোভিয়েত সাম্রাজ্যের পতন হয় ছিলাম কক্সবাজারের একটা রেস্টহাউজে। আনবিক, পারমাণবিক বোমা আর লাখ লাখ সৈন্য সামন্ত নিয়ে কথিত সর্বহারাদের একনায়কতন্ত্র কেবল স্বদেশেই ক্ষমতা ধরে রাখার মিশনে ছিলনা, বরং গোটা পৃথিবীকে একদিন তাদের ক্যাম্পে আনার স্বপ্ন দেখত। তাসের ঘরের মত ভেঙ্গে গেল তাদের ঘর। আস্তাকুঁড়ে ঠাই নিল মার্কস, এঙ্গেলস ও লেনিনের সাম্যবাদী পৃথিবীর স্বপ্ন। বন্দুকের নলের মুখে ১০০টা জাতিকে দাসত্বের শৃংখলে আবদ্ধ রেখে একদল সুবিধাভোগী রাজনীতিবিদ ও তাদের সহযোগীরা কেবল দেশকে লুটেই ক্ষান্ত থাকেনি পাশাপাশি গোটা বিশ্বকে ঠেলে দিয়েছিল অনিশ্চয়তার গভীর অন্ধকারে। সোভিয়েত দেশে ঘটে যাওয়া এ ক্ষুদ্র ঘটনাটা মনে করার একটা উপলক্ষ হচ্ছে ক্ষমতা নিয়ে বর্তমান আওয়ামী সরকারের মনোভাব। ৫ই জানুয়ারীর নির্বাচনকে ঘিরে যে অন্যায়, অবৈধ ও অসুস্থ সংস্কৃতি বাংলাদেশে অনুপ্রবেশ ঘটানো হয়েছে ক্ষমতাসীনরা ধরে নিয়েছে জাতি হিসাবে আমরা তা মেনে নিতে বাধ্য। তারই ধারাবাহিকতায় উপজেলা নির্বাচনকে তছনছ করা হয়েছে পেশিশক্তি প্রদর্শনের মাধ্যমে। কলঙ্কিত বগুড়া উপনির্বাচনের জন্য বিএনপির গায়ে মাখানো হয়েছিল হাজারো কালিমা, অথচ আওয়ামী লীগের হাতে ধারাবাহিকভাবে দেশের সবকটা গণতান্ত্রিক প্রতিষ্ঠান ধর্ষিত হচ্ছে। তারা মুক্তিযুদ্ধ, স্বাধীনতার স্বপক্ষের শক্তি, ৩০ লাখ শহীদের রক্ত, রাজাকার, এসব ইস্যুকে বানিজ্যিক পণ্য বানিয়ে নতুন প্রজন্মের একটা বিরাট অংশকে মোহাবিষ্ট করতে সক্ষম হচ্ছে এবং পাশপাশি ব্যবহার করছে বিশেষ পরিবারের গোয়েবলসীয় প্রচারনায়। এসব পণ্যে ধার দেয়ার জন্য থেমে থেমে আয়োজন করছে মানব বন্ধনে পতাকা তৈরী ও জাতীয় সঙ্গীতে বিশ্বরেকর্ড করার মত হাস্যকর অনুষ্ঠান। এসব পণ্য হতেও লুটেরার দল বাগিয়ে নিচ্ছে রাষ্ট্রীয় সম্পদ।

১৯১৭ হতে ১৯৯১। পরাশক্তির তকমা গায়ে লাগিয়েও সোভিয়েতরা পারেনি। মানুষের মৌলিক অধিকার কেড়ে নিয়ে গুটি কয়েক সুবিধাভোগী নিজেদের ভাগ্য গড়ার যে বিশাল আয়োজন তারা করেছিল তা এত বছর পরে হলেও ধ্বসে গিয়েছিল। এটাই মানব ধর্ম। এভাবেই সভ্যতা বিবর্তিত হয়। গায়ের জোর আর মিথ্যার ফানুসে চড়ে বেশিদূর যাওয়া যায়না। আওয়ামী ঘোড়ায় চড়ে শেখ পরিবারের যাত্রাও যে বেশিদূর গড়াবে না তা সময়ই বলয়ে দেবে। ততদিন আসুন একদল রাষ্ট্রীয় লুটেরা ও খুনিদের বলাৎকার জমা-খরচের খাতায় লিপিবদ্ধ করতে থাকি। সময় হলেই তা সুদে আসলে পরিশোধ করে দেব।

Comments

Post new comment

  • Allowed HTML tags: <a> <em> <strong> <cite> <code><b><p><h1><h2><h3><ul> <ol> <li> <dl> <dt> <dd><img><object><param><embed>
  • Web page addresses and e-mail addresses turn into links automatically.
  • Lines and paragraphs break automatically.

More information about formatting options

Image CAPTCHA
Enter the characters shown in the image.
Write in Bangla